আপনি কি জাহান্নামি নাকি জান্নাতি / Are-You-Hell-Or-Paradise

 

 

Are-You-Hell-Or-Paradise

 

 

 

আপনি কি জাহান্নামি নাকি জান্নাতি / Are-You-Hell-Or-Paradise

আপনি কি জাহান্নামি নাকি জান্নাতি ★★মাত্র দুই মিনিটে যাচাই করুন। আপনার চরিত্রে জাহান্নামিদের লক্ষণ আছে কিনা? অথবা জেনে নিন জাহান্নামী কারা? তাদের বৈশিষ্ঠ্য কি? তাদের সাথে আপনার মিল কি? নাকি আপনি জাহান্নাম থেকে নিরাপদ?  রাসুলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন;

لَيْسَ الْمُؤْمِنُ بِالطَّعَّانِ وَلاَ اللَّعَّانِ وَلاَ الْفَاحِشِ وَلاَ الْبَذِيءِ

মুমিন কখনো দোষারোপকারী হয় না, অভিসম্পাত করে না, অশ্লীল কাজ করে না এবং কটুভাষীও হয় না। (তিরমিজী ১৯৭৭; সহীহাহ ৩২০; সহীহ) রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন,

الْمُؤْمِنُ غِرٌّ كَرِيمٌ، وَالْفَاجِرُ خِبٌّ لَئِيمٌ

মুমিন হয় সরল ও ভদ্র, পক্ষান্তরে পাপীষ্ঠ হয় ধূর্ত ও দুশ্চরিত্রের। (আবূ দাঊদ ৪৭৯০, সনদ হাসান) রাসূল (ﷺ) বলেছেন,

أَلاَ أُخْبِرُكُمْ بِأَهْلِ النَّارِ كُلُّ عُتُلٍّ جَوَّاظٍ مُسْتَكْبِرٍ

আমি কি তোমাদের জাহান্নামীদের সম্পর্কে অবহিত করবো না? তারা হলো রুঢ় স্বভাবের, কঠিন হৃদয়ের ও অহংকারী। (সহীহুল বুখারী: ৬০৭১, ৪৯১৮; সহিহ মুসলিম: ৭০৭৯) অন্য বর্ণনায় রাসূল (ﷺ) বলেছেন

أَلاَ أُخْبِرُكُمْ بِأَهْلِ النَّارِ كُلُّ جَوَّاظٍ زَنِيمٍ مُتَكَبِّرٍ

আমি কি তোমাদেরকে জাহান্নামীদের সম্পর্কে অবহিত করবো না? তারা হলো বদমেজাজী, কুখ্যাত এবং অহংকারী। (সহিহ মুসলিম: ৭০৮১) রাসূল (ﷺ) বলেছেন,

وَأَهْلِ النَّارِ كُلُّ جَوَّاظٍ عُتُلٍّ مُسْتَكْبِرٍ

জাহান্নামীরা হলো অবাধ্য, বদমেজাজী ও অহংকারী। (সহীহুল বুখারী: ৬৬৫৭) রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন;

تَحَاجَّتِ الْجَنَّةُ وَالنَّارُ فَقَالَتِ النَّارُ أُوثِرْتُ بِالْمُتَكَبِّرِينَ وَالْمُتَجَبِّرِينَ‏

জান্নাত ও জাহান্নাম পরস্পর বিতর্কে লিপ্ত হলে, জাহান্নাম বলল; প্রতাবশালী ও দাম্ভিকদের দ্বারা আমাকে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। (সহীহুল বুখারী: ৪৮৫০; সহিহ মুসলিম: ৭০৬৫, ৭০৬৭) রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন,

لا يَدْخُلُ الْجَنَّةَ الجَّوَّاظَ وَلاَ الْجَعْظَرِىُّ

‘দুশ্চরিত্র ও রূঢ় স্বভাবের মানুষ জান্নাতে প্রবেশ করবে না’। (আবূ দাঊদ ৪৮০১, সনদ ছহীহ) রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন,

لايَدْخُلُ الجَّنَّةَ قَتَّاتٌ

‘চোগলখোর জান্নাতে প্রবেশ করবে না’। (সহীহুল বুখারী: ৬০৫৬, সহিহ মুসলিম: ১৯২,১৯৩) রাসূল (ﷺ) বলেছেন,

لاَ يَدْخُلُ الْجَنَّةَ قَاطِعُ رَحِمٍ

‘আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্নকারী জান্নাতে প্রবেশ করবে না।’ (সহীহ মুসলিম: ৬৪১৫) রাসূল (ﷺ) বলেছেন,

لاَ يَدْخُلُ الْجَنَّةَ مَنْ لاَ يَأْمَنُ جَارُهُ بَوَائِقَهُ

যার অনিষ্ট থেকে তার প্রতিবেশী নিরাপদ থাকে না, সে জান্নাতে প্রবেশ করবে না (সহীহ মুসলিম, ৭৬) রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন,

‏لاَ يَدْخُلُ الْجَنَّةَ مَنْ كَانَ فِي قَلْبِهِ مِثْقَالُ ذَرَّةٍ مِنْ كِبْرٍ

যার অন্তরে অণু পরিমাণ অহংকার থাকবে সে জান্নাতে প্রবেশ করবে না। (সহীহ মুসলিম: ১৬৬) রাসুলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন;

ثَلاَثَةٌ لاَ يُكَلِّمُهُمُ اللَّهُ يَوْمَ الْقِيَامَةِ وَلاَ يُزَكِّيهِمْ – وَلاَ يَنْظُرُ إِلَيْهِمْ – وَلَهُمْ عَذَابٌ أَلِيمٌ شَيْخٌ زَانٍ وَمَلِكٌ كَذَّابٌ وَعَائِلٌ مُسْتَكْبِرٌ ‏

 

IDC Partner

 

তিন ব্যক্তির সাথে কিয়ামতের দিন আল্লাহ তায়াআলা কথা বলবেন না, তাদের (গুনাহ থেকে) পবিত্র করবেন না, তাদের প্রতি তাকাবেনও না আর তাদের জন্য রয়েছে কঠোর শাস্তি। বৃদ্ধ যিনাকারী , মিথ্যাবাদী বাদশাহ ও অহংকারী দরিদ্র ব্যক্তি। (সহিহ মুসলিম; ১৯৬) রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন, وَإِنَّ أَبْغَضَكُمْ إِلَىَّ وَأَبْعَدَكُمْ مِنِّي مَجْلِسًا يَوْمَ الْقِيَامَةِ الثَّرْثَارُونَ وَالْمُتَشَدِّقُونَ وَالْمُتَفَيْهِقُو ‏”‏

‏.‏ قَالُوا يَا رَسُولَ اللَّهِ قَدْ عَلِمْنَا الثَّرْثَارُونَ وَالْمُتَشَدِّقُونَ فَمَا الْمُتَفَيْهِقُونَ قَالَ ‏”‏الْمُتَكَبِّرُونَ ‏”‏

তোমাদের মধ্যে সেই ব্যক্তিরা আমার নিকট ঘৃণ্য ও ক্বিয়ামতের দিন আমার নিকট থেকে দূরে অবস্থান করবে যারা বাচাল, নির্লজ্জ ও মুতাফাইহিকুন। ছাহাবীগণ বললেন, বাচাল ও নির্লজ্জ তো বুঝলাম। কিন্তু মুতাফাইহিকুন কারা, হে আল্লাহর রাসূল? তিনি বলেন, অহংকারীরা। (তিরমিযী ২০১৮, সনদ ছহীহ) রাসূল (ﷺ) বলেছেন,

إِنَّ شَرَّ النَّاسِ مَنْزِلَةً عِنْدَ اللَّهِ يَوْمَ الْقِيَامَةِ مَنْ وَدَعَهُ أَوْ تَرَكَهُ النَّاسُ اتِّقَاءَ فُحْشِهِ

কিয়ামতের দিনে আল্লাহর কাছে ঐ ব্যক্তি নিকৃষ্ট স্তরের বলে গণ্য হবে, যাকে লোকজন তার দুর্ব্যবহারের জন্য পরিত্যাগ করে। (মুসলিম: ৬৪৯০; বুখারী: ৬০৩২; আবূ দাউদ; ৪৭৯১) রাসূল (ﷺ) বলেছেন,

إِنَّ شَرَّ النَّاسِ مَنْ تَرَكَهُ النَّاسُ ـ أَوْ وَدَعَهُ النَّاسُ ـ اتِّقَاءَ فُحْشِهِ

নিশ্চয় সবচেয়ে নিকৃষ্ট লোক সে-ই যার অশালীনতা থেকে বেঁচে থাকার জন্য মানুষ তার সংশ্রব ত্যাগ করে। (বুখারী: ৬০৫৪) মন্দ স্বভাব বিশিষ্ট ব্যক্তি তার লালিত মন্দ স্বভাবের কারণে জান্নাতে প্রবেশে অন্যতম বাধা হবে।

হাদীছে এসেছে; عن ابى هريرة رضي الله ان رسول الله صلى الله عليه وصلم قال اَتَدْرُوْنَ مَا لْمُفْلِسُ قَالُوْا الْمُفْلِسُ قِيْنَا مَنْ لاَ دِرْهَمَ لَهُ وَلاَ مَتَاعَ فَقَالَ اِنَّ الْمُفْلِسَ مِنْ اُمَّتِىْ مَنْ يَأْةِىْ يَوْمَ الْقِيَامَةِ بصَّلَوةٍ وَّصِيَامٍ وَزَكَاَةٍ وَّيَأْتِىْ قَدْ شَتَمَ هَذَا وَقَذَف هَذَا وَأَكَلَ مَالَ هَذَا وَ سَفَكَ دَمَ هَذَا وَضَرَبَ هَذَا فيُعْطَى هَذَا مِنْ حَسَنَاتِهِ وَهَذَا مِنْ حَسَنَاتِهِ فاِنْ فَنِيَتْ حَسَنَاتُهُ قَبْلَ اَنْ يَقْضَى مَا عَلَيْهِ اُخِذَ مِنْ خَطَايَاهُمْ فَطُرِحَتْ عَلَيْهِمْ … طُرِحَ فِى النَّار

আবূ হুরায়রা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত,

রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বলেন, ‘তোমরা কি জান অভাবী কে? ছাহাবীগণ বললেন, আমাদের মধ্যে তো সেই অভাবী যার টাকা-পয়সা ও অর্থ-সম্পদ নেই। রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বলেন, ক্বিয়ামতের দিন আমার উম্মতের মধ্যে সেই সবচেয়ে বেশি অভাবী হবে, যে দুনিয়াতে সলাত, সিয়াম, যাকাত আদায় করে আসবে এবং সাথে সাথে সেই লোকেরাও আসবে, কাউকে সে গালি দিয়েছে, কাউকে অপবাদ দিয়েছে, কারো মাল-সম্পদ আত্মসাত করেছে, কাউকে হত্যা করেছে, কাউকে আবার মেরেছে। সুতরাং এই হক্বদারকে তার নেকী দেয়া হবে।  

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন।

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে বিস্তারিত জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

 
 
Islami Dawah Center Cover photo

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টারকে সচল রাখতে সাহায্য করুন!

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টার ১টি অলাভজনক দাওয়াহ প্রতিষ্ঠান, এই প্রতিষ্ঠানের ইসলামিক ব্লগটি বর্তমানে ২০,০০০+ মানুষ প্রতিমাসে পড়ে, দিন দিন আরো অনেক বেশি বেড়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

বর্তমানে মাদরাসা এবং ব্লগ প্রজেক্টের বিভিন্ন খাতে (ওয়েবসাইট হোস্টিং, CDN,কনটেন্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং, ব্লগ পোস্টিং, ডিজাইন এবং মার্কেটিং) মাসে গড়ে ৫০,০০০+ টাকা খরচ হয়, যা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সেকারনে, এই বিশাল ধর্মীয় কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে সর্বপ্রথম আল্লাহর কাছে আপনাদের দোয়া এবং আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন, এমন কিছু ভাই ও বোন ( ৩১৩ জন ) দরকার, যারা আইডিসিকে নির্দিষ্ট অংকের সাহায্য করবেন, তাহলে এই পথ চলা অনেক সহজ হয়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

যারা এককালিন, মাসিক অথবা বাৎসরিক সাহায্য করবেন, তারা আইডিসির মুল টিমের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবেন, ইংশাআল্লাহ।

আইডিসির ঠিকানাঃ খঃ ৬৫/৫, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা -১২১২, মোবাইলঃ +88 01609 820 094, +88 01716 988 953 ( নগদ/বিকাশ পার্সোনাল )

ইমেলঃ info@islamidawahcenter.com, info@idcmadrasah.com, ওয়েব: www.islamidawahcenter.com, www.idcmadrasah.com সার্বিক তত্ত্বাবধানেঃ হাঃ মুফতি মাহবুব ওসমানী ( এম. এ. ইন ইংলিশ )