+88 01737 196 111 hi@islamidawahcenter.com Ka: 65/5, Shahjadpur, Gulshan, Dhaka

জ্বিনে আক্রান্ত রুগীর রুকইয়াহ – জ্বিনে আক্রান্ত রুগীর ইসলামিক চিকিৎসা।

জ্বিনের স্পর্শ… (১)

 

বিসমিল্লাহ্‌!

[ক] যাদু, জ্বিন ও বদনজর সিরিজের দ্বিতীয় অধ্যায় আজ শুরু হচ্ছে। সিরিজের নাম শুধু “জ্বিন” দিলাম না এজন্য.. কারণ এটা ব্যাপক অর্থবোধক, জ্বিন সিরিজ বললে এর মাঝে জ্বিন জাতির ইতিহাস, প্রকার, গোত্র, জীবনাচার অনেক কিছু আলোচনা আবশ্যক হয়ে পড়ে, অথচ এতে আমরা শুধু খারাপ জ্বিনদের বিভিন্ন প্রকার ক্ষতি থেকে বাঁচার ইসলাম সম্মত নিয়ে আলোচনা করবো। আল্লাহ্‌ আমাদের সহায় হোক.. .

[খ] আজ আমরা ‘জ্বিন মানুষের ক্ষতি করতে পারে কিনা’ এবিষয়ে বিশুদ্ধ ইসলামী আক্বিদা জানবো। এপ্রসঙ্গে সহীহ আকিদার সারকথা হচ্ছে- “জ্বিন মানুষের ক্ষতি করতে পারে, বিভিন্নভাবে কষ্ট দিতে পারে, অসুস্থ করে দিতে পারে, এমনকি সম্পূর্ণ পাগলও বানিয়ে দিতে পারে!” চলুন হাদিস থেকে আমরা কয়েকটি উদাহরণ দেখে নেই.. . প্রথম হাদিসটি আবু ইয়া’লা ইবনে মুররা থেকে বর্ণিত, রাসুল সা. এর সাথে এক সফরের ঘটনা, যাতে সাহাবায়ে কিরাম রা. অনেকগুলো আশ্চর্য বিষয় দেখেছিলেন। তাঁর মাঝে একটি হচ্ছে.. “….আমরা পথিমধ্যে এক মহিলাকে দেখতে পেলাম, তার সাথে একটা শিশু ছিলো। মহিলা রাসূল সা. এর কাছে এসে বললো: ইয়া রাসূলাল্লাহ, আমার ছেলেটা খুব বিপদে আছে, আমরাও একে নিয়ে বিপদে আছি! দৈনিক কয়েকবার একে জ্বিনে ধরে..!! রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, বাচ্চাটাকে এদিকে নিয়ে আসো.. এরপর রাসুল সা. বাচ্চাটার মুখ হা করে ধরে, “উখরুজ আদুওয়াল্লাহ, আনা রাসুলুল্লাহ!” (হে আল্লাহর দুষমন বের হ! আমি আল্লাহর রাসুল) বলে ওর মুখে ফু দিলেন, এরকম তিনবার করলেন। এরপর মহিলাকে বললেন, আচ্ছা একে নিয়ে যাও, ফেরার পথে যখন আমরা এদিক দিয়ে যাবো, তখন আরেকবার দেখা করো.. অতঃপর আমরা সফর থেকে ফেরার সময় ওই মহিলাকে আবার পেলাম, রাসুল সা. জিজ্ঞেস করলেন- তোমার ছেলের কী অবস্থা? মহিলা বললো, যে আল্লাহ আপনাকে সত্য সহকারে প্রেরণ করেছেন তার শপথ! সেদিনের পর থেকে আমার ছেলে খুব ভালো আছে, কোনো সমস্যা হয়নি। মহিলার সাথে তিনটা ভেড়া ছিল, সেগুলো রাসুল সা.কে দিতে চাইলো। রাসুল সা. কোনো সাহাবাকে বললেন, একটা নাও.. বাকিগুলো ফিরিয়ে দাও… . হায়সামি রহ. বলেন, ইমাম আহমাদ রহ. দুটি সহিহ সনদে হাদিসটি বর্ণনা করেছেন (মাজমাউয যাওয়ায়েদ ৯/৪ দ্রঃ) এছাড়াও শব্দের সামান্য কম বেশিসহ এই হাদিসটা অনেক প্রসিদ্ধ হাদিসের কিতাবে এসেছে, যেমন- তাবারানী, দারিমী, আবু দাউদ। মুসতাদরাকে হাকেমে এটাকে সহিহ বলা হয়েছে, এবং ইমাম যাহাবি সমর্থন করেছেন। (২/৬১৭ দ্রঃ) .

[গ] এছাড়া রাসুল সা. এর জামানার বেশ কয়েকটি জ্বিন ছাড়ানোর ঘটনা আছে, আমরা তার মাঝে এক দুইটা খেয়াল করি.. জাবের ইবনে আব্দুল্লাহ রা. এর বর্ণনা করেন, গাযওয়ায়ে যাতুর রিকা অভিযানে আমরা রাসূল সা. এর সাথে ছিলাম, এক মহিলা তার বাচ্চাকে নিয়ে এসে বললো ইয়া রাসুলুল্লাহ শয়তান এর ওপর ভর করেছে। রাসুল সা. বাচ্চাটাকে একদম কাছে নিয়ে আসলেন, এরপর “উখরুজ আদুওয়াল্লাহ, আনা রাসুলুল্লাহ!” বলে ছেলেটার মুখে ফু দিলেন তিনবার, তারপর বললেন, যাও এর আর কোনো সমস্যা নাই। (মুজামুল আওসাত, মাজমাউয যাওয়ায়েদ) . এরকম বেশ কয়েকটি ঘটনা আছে, ইবনে আব্বাস রা. বর্ণিত একটা ঘটনা এরকম, এক মহিলা তার বাচ্চাকে নিয়ে এসে বললো ইয়া রাসুলুল্লাহ সকাল বিকেলে একে পাগলামী ধরে, আমাদের জীবন অঅতিষ্ঠ করে ফেলছে। রাসুল সা. বুকে হাত বুলালেন (আরেক ঘটনায় আছে বাচ্চাটার পিঠে তিনটা থাপ্পড় দিলেন) আর বললেন “উখরুজ আদুওয়াল্লাহ, আনা রাসুলুল্লাহ!” পরে ছেলেটা বমি করলো, বমির সাথে কুকুরের বাচ্চার মত কিছু একটা বের হয়ে দৌড় দিলো। (সেটা জিন ছিলো..) [এর সনদ হাসান] এই দুটি ঘটনা মুসনাদে আহমাদ, দারিমী, তাবারানী, দালায়েলুন নাবুওয়াহ এসব হাদিসগ্রন্থে পাওয়া যাবে। হাদিসগুলোর তাহকিক এখানে দেখুন- http://fatwa.islamweb.net/fatwa/index.php… .

[ঘ] কোরআনের একটি আয়াত দিয়ে আলাপ শেষ করা যাক। উলামায়ে কিরাম এপ্রসঙ্গে নিম্নের আয়াতটিও পেশ করে থাকেন.. الَّذِينَ يَأْكُلُونَ الرِّبَا لَا يَقُومُونَ إِلَّا كَمَا يَقُومُ الَّذِي يَتَخَبَّطُهُ الشَّيْطَانُ مِنَ الْمَسِّ অর্থঃ “যারা সুদ খায়, তারা কিয়ামতে এমনভাবে দন্ডায়মান হবে, যেন তাদেরকে শয়তান আসর করে পাগল বানিয়ে দিয়েছে।” (সুরা বাক্বারা, আয়াত ২৭৫) . এই আয়াত থেকে অন্তত দুইটি বিষয় বুঝা যায়- এক. খারাপ জিন মানুষকে আসর করতে পারে.. দুই. জিনের আসরের কারনে মানুষ অসুস্থ এমনকি পাগল হয়ে যেতে পারে। [মারিফুল কোরআন (পূর্ণাঙ্গ এডিশন) ১ম খন্ড ৬১১পৃ. দ্রষ্টব্য] ইমাম কুরতুবি রহ. বলেন- মানুষকে জ্বিন আসর করতে পারে, এটা যারা অস্বীকার করে তাদের ভ্রান্তির বিরুদ্ধে এই আয়াতটি দলিল। (তাফসিরে কুরতুবি এই আয়াতের তাফসির দ্রষ্টব্য) . রাসুলের জামানার একটা ঘটনা (আবু দাউদ শরিফে) আছে, একজন জিনের আসরে পাগল হয়ে গিয়েছিলো, ভালো হচ্ছিলো না। তাকে শেকল দিয়ে বেধে রাখা হতো। একজন সাহাবী সুরা ফাতিহা পড়ে কয়েকদিন রুকইয়া করলে সে সুস্থ হয়ে যায়, পরে ওই সাহাবী রাসুল সা. এর কাছে এসে ঘটনা শোনায়। তখন কোরআন দ্বারা ঝাড়ফুঁক করার কারণে রাসুল সা. সাহাবীর প্রশংসা করেন।

 

জ্বিনের স্পর্শ (২)

 

— [ক] সালাফে সালেহিনদের থেকে জ্বিনের চিকিৎসা বিষয়ক অনেক ওয়াকিয়া বর্ণিত আছে। যেমন: একজন মৃগীরুগীকে আক্রান্ত অবস্থায় দেখে ইবনে মাসউদ রা. তার কানের কাছে গিয়ে افحسبتم انماخلقناكم عبسا আয়াতটা থেকে সুরার শেষ পর্যন্ত পড়েন, আর সে সাথে সাথে সুস্থ হয়ে যায়। তখন রাসুল সা. ইবনে মাসউদ রা.কে ডেকে বললেন- তুমি ওর কানের কাছে গিয়ে পড়লে? ইবনে মাসউদ রা. আয়াতটি বললেন। তখন রাসুল সা. বললেন, কোনো যোগ্য ব্যাক্তি যদি পাহাড়ের ওপরে এটা (সুরা মুমিনুনের এই আয়াত/আয়াতগুলো) পড়ে, তাহলে পাহাড়ও সরে যাবে! (তিরমিযী, হাকেম। এই হাদিসের সনদে একজন যয়ীফ রাবী আছে ইবনে লাহি’আ, অন্যরা সিকাহ) . ইবনে তাইমিয়া রহ. এর অনেকগুলো ঘটনা আছে, যেখানে উনি افحسبتم انما আয়াতটি পড়ে জ্বিন তাড়িয়েছেন। একবার এক ঘাড়ত্যাড়া জ্বিনকে উনি এই আয়াত পড়ছেন আর পিটাইছেন!! এই ঘটনা সামনে আসছে। .

[খ] ইবনে আবিদ দুনিয়া রহ. এর আল-হাওয়াতিফ গ্রন্থ থেকে খুব সংক্ষেপে দুটি ঘটনা বলি.. এক শিয়া হজ্ব করতে গিয়েছিলো, সে যখনই কোনো গুরুত্বপূর্ণ আমল করতে যাচ্ছিলো তখনই মৃগীরোগে আক্রান্ত হচ্ছিলো। (উলামাদের মতে, মৃগীরোগ জ্বিনের আসরের কারনে হয়) হুসাইন বিন আব্দুর রহমান রহ. মিনায় ওই লোকটাকে পেয়ে জ্বিনকে উদ্দেশ্য করে বললেন, “তুমি যদি ইহুদি হও তবে মুসা আ. এর দোহাই, যদি খৃষ্টান হও তবে ঈসা আ. এর দোহাই, আর মুসলমান হলে তোমাকে মুহাম্মাদ সা. এর দোহাই দিয়ে বলছি তুমি চলে যাও।” তখন জ্বিন কথা বলে উঠলো, “আমি ইহুদিও না, খ্রিষ্টানও না.. বরং মুসলমান! আমি এই হতভাগাকে দেখেছি সে আবু বাকর রা. এবং ওমর রা.-কে গালিগালাজ করে। এজন্য আমি তাকে হজ্জ করতে দেইনি।” . আরেকটি ঘটনা আছে, এক মুতাযিলাকে জ্বিন ধরেছিলো। সবাই ভিড় করে দেখছিলো, সাঈদ ইবনে ইয়াইয়া রহ. তার কাছে গিয়ে বললেন, “তুমি এর ওপর কেন আক্রমণ করেছ? আল্লাহ কি তোমাকে এই অধিকার দিয়েছে? না তুমিই বাড়াবাড়ি করছো?” তখন লোকটার মুখ দিয়ে জ্বিন বলে উঠলো, “আপনি আমাকে ছেড়ে দিন, আমি একে খতম করে ফেলবো। সে বলছে কোরআন মাখলুক..!” (এটা মুতাযিলা ফিরকার একটা আকিদা) .

[খ] ইমাম আহমাদ বিন হাম্বল রহ.এর সময়ে বাদশাহর মেয়েকে জ্বিন ধরেছিলো। তখন ইমাম আহমাদের কাছে এক মন্ত্রী এসে ঘটনা জানালো। ইমাম আহমাদ রহ. একটি জুতা বের করে অযু করলেন, এরপর বললেন- জ্বিনকে গিয়ে বলো “তুমি কি এই মেয়েকে ছেড়ে যাবে? নাকি ইমাম আহমাদের হাতে জুতার বাড়ি খাবে?” মন্ত্রী গিয়ে কথাগুলো জ্বিনকে বললো, জ্বিন বললো: “আমি চলে যাবো.. ইমাম আহমাদ যদি বাগদাদ থেকে চলে যেতে বলেন তাও চলে যাবো! ইমাম আহমাদ আল্লাহর অনুগত বান্দা। যে আল্লাহর অনুগত হয়, সব সৃষ্টি তার অনুগত হয়ে যায়।” এরপর জ্বিন চলে গেলো। কিন্তু…. ইমাম আহমাদ রহ. এর ইন্তিকালের পর আবার এসে ভর করলো, এবার বাদশাহ একজনকে ইমাম আহমাদ রহ. এর ছাত্র আবু বাকর মারূযী রহ. এর কাছে পাঠালো, উনি একটা জুতা নিয়ে মেয়েটার কাছে আসলো.. জ্বিনটা বললো, এবার আর আমি যাচ্ছিনা! ইমাম আহমাদ আল্লাহর আনুগত্য করতো, তাই তার কথা শুনে চলে গেছিলাম, তোমাদের কথা তো আমি শুনবো না..!! . [গ] ইবনে তাইমিয়া রহ. এর একটি ঘটনা, উনি এক মেয়ে রুগির ওপর সুরা মুমিনুনের ওই (১১৫নং) আয়াতটা পড়েন, তখন জ্বিন কথা বলে ওঠে।

اَفَحَسِبۡتُمۡ اَنَّمَا خَلَقۡنٰكُمۡ عَبَثًا وَّاَنَّكُمۡ اِلَيۡنَا لَا تُرۡجَعُوۡنَ‏
(23:115) Did you imagine that We created you without any purpose,102 and that you will not be brought back to Us?”

ইবনে তাইমিয়া রহ.- তুমি ওকে ধরছো কেন? জ্বিন– আমি ওকে পছন্দ করি.. – সেতো তোমাকে পছন্দ করে না! — আমি ওকে নিয়ে হজ্বে যাবো.. – সেতো তোমার সাথে হজ্বে যেতে চায় না! জ্বিনটা ঘাড়ত্যাড়া ছিলো, ইবনে তাইমিয়া রহ. আচ্ছাতাকে পিটানি দিলেন, তখন জ্বিন বললো- আপনি বলছেন তো? আপনার কথা মেনে আমি চলে যাচ্ছি! ইবনে তাইমিয়া রহ. বললেন- থাম থাম! আমার কথা না বরং আল্লাহর এবং রাসুলের কথা (মুমিনকে কষ্ট দেয়া হারাম) মেনে চলে যা! এবার জ্বিন চলে গেল, আর কখনো আসেনি.. .

[ঘ] আজ সবশেষে জেনে নিন মানুষকে কেন জ্বিন ধরে বা অন্যান্য ক্ষতি করে? এর বেশ কয়েকটি কারণ আছে, যেমন:

১. যদি কোনোভাবে কোনো জ্বিনকে কষ্ট দেয়া হয়, আঘাত করা হয়

২. যদি কোনো জিনের ওপর গরম পানি ফেলা হয়

৩. অথবা কোনো জিনের গায়ে প্রসাব করা হয়

৪. অথবা বিশেষ কোনো কারণ ছাড়াই অহেতুক কষ্ট দেয়ার জন্য আসর করতে পারে, যেমন অনেক মানুষ অহেতুক জিনদের কষ্ট দেয়

৫. কোনো জিন হয়তো কাউকে পছন্দ করে, এজন্য আসর করতে পারে

৬. আগের কোনো শত্রুতার জেরে আসর করতে পারে, বা ক্ষতি করতে পারে

৭. যদি তাদের কাউকে ইচ্ছাকৃত বা ভুলক্রমে মেরে ফেলা হয়, এজন্য বদলা নিতে ক্ষতি করতে পারে। … এখানে জেনে রাখা উচিত, মানুষকে বিনাদোষে কষ্ট দেয়া যেমন হারাম তেমন জিনদের কষ্ট দেয়াও হারাম। ইচ্ছাকৃতভাবে বিনাদোষে জিনকে হত্যা করলেও কিসাস লাযিম হয়। তবে অনিচ্ছাকৃত ভাবে আঘাত করলে বা হত্যা করলে কিসাস (বদলা) নেয়া বৈধ হবে না। . এক্ষেত্রে রাসুল সা. একটা সহজ উসুল (মূলনীতি) বর্ণনা করেছেন, কোনো ক্ষতিকর প্রাণী যেমন যেমনঃ সাপ দেখলে তিনবার বলতে হবে, “তুমি জ্বিন হলে এখান থেকে চলে যাও।” এরপর মারলে কিসাস নেয়া যাবেনা। একজন মুহাদ্দিসের ঘটনা প্রসিদ্ধ আছে, যিনি একটা সাপকে হত্যা করেছিলেন, সেটি আসলে জ্বিন ছিলো। তখন জ্বিনেরা উনাকে জ্বিনদের আদালতে নিয়ে যায়। উনি হাদিসটি শুনিয়ে বলেন, আমি তো তিনবার চলে যেতে বলেছিলাম। সেখানে একজন জ্বিন সাহাবী ছিলো, তিনি বলেন- এটা আমিও রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি। এরপর জ্বিনেরা উক্ত মুহাদ্দিসকে নিজ বাড়িতে ফেরত দিয়ে যায়.

 

 

Islami Dawah Center Cover photo

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টারকে সচল রাখতে সাহায্য করুন!

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টার ১টি অলাভজনক দাওয়াহ প্রতিষ্ঠান, এই প্রতিষ্ঠানের ইসলামিক ব্লগটি বর্তমানে ২০,০০০+ মানুষ প্রতিমাসে পড়ে, দিন দিন আরো অনেক বেশি বেড়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

বর্তমানে মাদরাসা এবং ব্লগ প্রজেক্টের বিভিন্ন খাতে (ওয়েবসাইট হোস্টিং, CDN,কনটেন্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং, ব্লগ পোস্টিং, ডিজাইন এবং মার্কেটিং) মাসে গড়ে ৫০,০০০+ টাকা খরচ হয়, যা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সেকারনে, এই বিশাল ধর্মীয় কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে সর্বপ্রথম আল্লাহর কাছে আপনাদের দোয়া এবং আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন, এমন কিছু ভাই ও বোন ( ৩১৩ জন ) দরকার, যারা আইডিসিকে নির্দিষ্ট অংকের সাহায্য করবেন, তাহলে এই পথ চলা অনেক সহজ হয়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

যারা এককালিন, মাসিক অথবা বাৎসরিক সাহায্য করবেন, তারা আইডিসির মুল টিমের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবেন, ইংশাআল্লাহ।

আইডিসির ঠিকানাঃ খঃ ৬৫/৫, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা -১২১২, মোবাইলঃ +88 01609 820 094, +88 01716 988 953 ( নগদ/বিকাশ পার্সোনাল )

ইমেলঃ info@islamidawahcenter.com, info@idcmadrasah.com, ওয়েব: www.islamidawahcenter.com, www.idcmadrasah.com সার্বিক তত্ত্বাবধানেঃ হাঃ মুফতি মাহবুব ওসমানী ( এম. এ. ইন ইংলিশ, ফার্স্ট ক্লাস )

 

জ্বিনের স্পর্শ (৩) —–

 

[ক] জ্বিন আসর করার প্রকারভেদ আলোচনা করে আজকের পর্ব শুরু করা যাক। আচ্ছা তার আগে জেনে নেয়া উচিত জ্বিনের আসর ব্যাপারটা বুঝাতে কি কি শব্দ ব্যবহার হয়। . বাংলায় যেমন জ্বিনে ধরা, আসর করা, ভর করা, বাতাস লাগা ইত্যাদি ব্যবহার হয়, আরবীতে তেমন আল-মাসসু / মাসসে শাইতান – শয়তানের স্পর্শ (المس) আস-সর’উ / সর’উল জ্বিন – জ্বিন ধরা possession of jinn (الصرع) [মৃগীরোগ (Epilepsy) বুঝাতেও আস-সর’উ ব্যবহার হয়] আস-বুল বালা – বিপদে ধরা (اصاب البلاء) এরকম বিভিন্ন শব্দ দিয়ে এটা বুঝায়। .

[খ] তো জ্বিন কয়েকভাবে আসর করতে পারে, অথবা আরেকটু শুদ্ধভাবে বললে..

 

জ্বিন দ্বারা মানুষ কয়েকভাবে আক্রান্ত হয়:

 

১। পুরো শরীর আক্রান্ত হওয়া। যাকে স্বাভাবিকভাবে আমরা “অমুককে জিনে ধরেছে” বলি। এক্ষেত্রে আক্রান্ত ব্যক্তি নিজের শরীরের ওপর থেকে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ হারায়, জ্বিন তার মুখ দিয়ে কথা বলে, সব অনুভূতি নিয়ন্ত্রণ করে। তাকে আঘাত করলে জ্বিন ব্যাথা পায়।

২। শরীরের কোনো অঙ্গ যেমন হাত, পা অথবা মাথা আক্রান্ত হওয়া। এটা কয়েকভাবে হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, জ্বিন হাতে বা পায়ে ঢুকে থাকে যেখানে সবসময় ব্যাথা করে, অথবা একদম অচল হয়ে যায়। কিংবা ব্রেইনে ঢুকে থাকে, যার ফলে মাঝেমধ্যে উল্টাপাল্টা আচরণ করে, কেউ এক পর্যায়ে সম্পূর্ণ পাগল হয়ে যায়। এক্ষেত্রে যেমন এক অঙ্গ আক্রান্ত হতে পারে, তেমন একাধিক অঙ্গও হতে পারে। একটা জ্বিন যেমন শরীরে ঢুকে থাকতে পারে, একটা মানুষের শরীরে একাধিক জ্বিনও থাকতে পারে। . বাস্তবতা বুঝতে সহজভাবে ভাবুন, “শয়তান মানুষের রগের ভেতর দিয়ে চলাচল করে” (তারাও জিন) এটাতো সাফ হাদিস তাইনা? আচ্ছা! এখন আপনার পায়ে কতগুলা রগ আছে আপনি চিন্তা করেন… একজন মিসরীয় শায়খের ঘটনা, উনার কাছে একজন রুগী আসলো, যার এক পা একদম অচল হয়েছিলো “ডাক্তাররা কোনো সমস্যা খুজে পাচ্ছিলো না” (point to be noted) তো শায়খ যখন উনার মাথায় হাত রেখে রুকইয়ার আয়াতগুলো পড়লেন, তখন রুগীর মুখ দিয়ে জ্বিন কথা বলে উঠলো, সে মুসলমান ছিলো.. তাকে বুঝিয়ে সুঝিয়ে চলে যেতে রাজি করানোর সময় জানা গেলো, এই শরীরে আরো দুইটা জ্বিন আছে যারা খ্রিষ্টান! তো এরকমও ঘটতে পারে.. (আল্লাহ হিফাজত করুক)

৩। স্বল্প সময়ের জন্য আক্রমণ করা। জ্বিন যেমন শরীরের মাঝে ঢুকে দীর্ঘসময় থাকতে পারে, তেমনি কোনো ক্ষতি করে তখনি বের হয়ে যেতে পারে। তবে মাঝেমাঝে ঢুকে আবার চলে যায়, আবার ঢুকে আবার যায়.. এমন ঘটনা খুব কম। কারণ ‘কোনো মানুষের শরীরে ঢোকা’ কাজটা জ্বিনের জন্য বেশ কষ্টসাধ্য একটা বিষয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে হয়তো কোনো একটা ক্ষতি করে (যেমন জ্বর বানিয়ে দিয়ে) তখনই চলে যায়, যেটাকে জিনের বাতাস লাগছে বলে। অথবা একবার শরীরে ঢুকে, চিকিৎসা করানোর আগে যেতে চায়না.. (এটাকে জিনে ধরছে বলে) এখানে বলে রাখা ভালো… ‘তৃতীয়প্রকার’ তথা স্বল্প সময়ের জন্য জিন আক্রমণ করার মাঝে “বোবা ধরা”কেও গণ্য করেছেন অনেক অভিজ্ঞ আলেম। (তবে আমার কেন যেন মনে হয় এটা হুদাই শারীরিক সমস্যা, জিন-ভুত কিছু না) … আর হ্যা! উপরে যে পয়েন্ট গেলো.. অতিপ্রাকৃতিক সমস্যাগুলোর অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এমন হয়.. “কোনো ব্যথা বা রোগ আছে; অথচ মেডিকেল টেস্টে কিছু ধরা পড়ছে না!” এটা অহরহ দেখা যাচ্ছে.. বাস্তবে এটা জিন এবং বদনজর; উভয় ক্ষেত্রেই একটা মেজর সাইন! (বড় আলামত) জ্বিন আক্রান্তের সবগুলো লক্ষণ আগামী পর্বে আলোচনা করা হবে ইনশাআল্লাহ। . [গ] কোন কোন অবস্থায় জ্বিন মানুষের শরীরে ঢুকতে পারে! এটা এর আগে একদিন আলোচনা করা হয়েছে। সিরিজের ধারাবাহিকতা রক্ষার্থে আরেকবার উল্লেখ করা জরুরী ভাবছি.. . খারাপ জ্বিন সর্বাবস্থায় আপনার ওপর আক্রমণ করতে পারে না। শয়তানের ক্ষেত্রেও একই ব্যাপার। সবসময় আপনাকে বশ করতে পারেনা। তবে আক্রান্ত হয়ে গেলে হইছে কাম…।

 

খবিস জ্বিন ৪ অবস্থায় মানুষের ভেতর ঢুকতে পারে।

 

১. খুব ভীত অবস্থায় থাকলে

২. খুব রাগান্বিত অবস্থায় থাকলে

৩. খুব উদাসীন অবস্থায় থাকলে

৪. কুপ্রবৃত্তির গোলামী করা অবস্থায় (মানে যখন কোনো খারাপ কাজ করছে এই অবস্থায়) . তো এসব হচ্ছে খারাপ জ্বিন মানুষের ওপর আসর করার সময়। এ অবস্থায় নাকি জ্বিনের অনেক কষ্ট হয়, বিশেষত কেউ যদি দু’আ কালাম পড়ে, আর অপরদিকে জ্বিনকে যদি কোনো যাদুকর জোর করে পাঠায়.. তাহলে তো বেচারা জ্বিনের জান খারাপ। এদিকেও বিপদ, ওদিকেও বিপদ। তো, ওসব ক্ষতি থেকে বাচতে আমাদেরকে হাদিসে বর্ণিত সকালসন্ধ্যার আমলগুলোর অভ্যাস করা উচিৎ আর সর্বোপরি গাফেল না হওয়া উচিৎ… তাহলে আল্লাহ চায়তো সহজেই আমরা খারাপ জ্বিনের আক্রমণ থেকে বাঁচতে পারবো।

 

 

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন!

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে  জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

 

 

জ্বিনের স্পর্শ (৪) আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ, ক্ষতি থেকে বাচার টিপস

 

[ক] আজ শুরুতে আমরা জ্বিন আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ জানবো। গতপর্বে ব্যখা করা হয়েছে, মানুষ কয়েকভাবে জ্বিন দ্বারা আক্রান্ত হয়। আমাদের সমাজে whole body possession বা যেটাকে জ্বিনে ধরা বলে এটাকেই শুধু জ্বিনের সমস্যা ভাবা হয়, পুরো শরীর পজেসড না হলে সচরাচর কেউ বিশ্বাস করে না যে জ্বিন আছে শরীরে। কিন্তু আসলেই এটা সম্ভব যে, কারো শরীরে জ্বিন ঢুকে আছে.. আর দিনের পর দিন ধীরেধীরে সে মানসিক এবং শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। . প্রসঙ্গক্রমে বলে রাখা জরুরী, আমরা যে লক্ষণগুলো আলোচনা করতে যাচ্ছি এক-দুদিন এসব দেখলেই জ্বিন আক্রান্ত হয়েছে ভাববার কারণ নেই, কারণ এগুলো স্বাভাবিক অসুখবিসুখ এর কারণেও হতে পারে। এই লক্ষণগুলো কারো মাঝে যদি দীর্ঘদিন ধরে বিদ্যমান থাকে, তাহলে ধরে নিবেন সমস্যা আছে। . আলোচনার সুবিধার্থে পজেসড হওয়ার লক্ষণগুলোকে আমরা দুই ভাগে ভাগ করে নিচ্ছি। ঘুম সংক্রান্ত এবং অন্য সময়ের..।

 

 

[খ] – ঘুম সংক্রান্ত লক্ষণ সমূহ-

 

১। নিদ্রাহীনতা: যার জন্য সারারাত শুধু বিশ্রাম নেয়াই হয়, ঘুম হয়না

২। উদ্বিগ্নতা: যেজন্য রাতে বার বার ঘুম ভেঙে যাওয়া।

৩। বোবায়ধরা: ঘুমের সময় কেউ চেপে ধরেছে, নড়াচড়া করতে পারছে না। প্রায়ই এমন হওয়া

৪। ঘুমের মাঝে প্রায়শই চিৎকার করা, গোঙানো, হাসি-কান্না করা

৫। ঘুমন্ত অবস্থায় হাটাহাটি করা (Sleepwalking)

৬। স্বপ্নে কোনো প্রাণিকে আক্রমণ করতে বা ধাওয়া করতে দেখা। বিশেষতঃ কুকুর, বিড়াল, ইঁদুর, উট, সিংহ, শিয়াল, সাপ (*)

৭। স্বপ্নে নিজেকে অনেক উঁচু কোনো যায়গা থেকে পড়ে যেতে দেখা

৮। কোনো গোরস্থান বা পরিত্যক্ত যায়গা, অথবা কোনো মরুভূমির সড়কে হাটাচলা করতে দেখা

৯। বিশেষ আকৃতির মানুষ দেখা। যেমন: অনেক লম্বা, খুবই খাটো, খুব কালো কুচকুচে

১০। জ্বিন-ভুত দেখা . (*) ফ্যাক্টঃ যদি স্বপ্নে সবসময় দুইটা বা তিনটা প্রাণী আক্রমণ করতে আসছে দেখে, তাহলে বুঝতে হবে সাথে দুইটা বা তিনটা জ্বিন আছে। .

 

[গ] – ঘুম ব্যতীত অন্য সময়ের লক্ষণ

১। দীর্ঘ মাথাব্যথা (চোখ, কান, দাত ইত্যাদি সমস্যার কারণে নয়, এমনিই)

২। ইবাদত বিমুখতা: নামাজ, তিলাওয়াত, যিকির আযকারে আগ্রহ উঠে যাওয়া। মোটকথা, দিনদিন আল্লাহর থেকে দূরে সরে যাওয়া

৩। মেজাজ বিক্ষিপ্ত হয়ে থাকা, কিছুতেই মন না বসা..

৪। ব্যাপক অলসতা; সবসময় অবসন্নতা ঘিরে রাখা

৫। মৃগীরোগ

৬। শরীরের কোনো অংঙ্গে ব্যাথা কিংবা বিকল হয়ে যাওয়া। ডাক্তাররা যেখানে সমস্যা খুজে পেতে বা চিকিৎসা করতে অপারগ হচ্ছে। … আবারও মনে করিয়ে দেই, শারীরিক রোগের কারণেও এসব হয়ে থাকে। তবে যখন দীর্ঘদিন যাবত যখন এসব লক্ষণ দেখা যাবে, তখন ভাববেন কোনো সমস্যা আছে। .

[ঘ] আগামী পর্বে হয়তো বাসাবাড়ি থেকে জিন তাড়ানোর পদ্ধতি, এরপর জ্বিনদ্বারা আক্রান্ত রুগীকে রুকইয়াহ করার নিয়ম আলোচনা হবে ইনশাআল্লাহ। তবে পোস্ট অনেক লম্বা হতে পারে। এজন্য দুই পর্বে দেয়ার ইচ্ছা আছে। যাহোক, আজ সবশেষে খবিস

 

জ্বিনের ক্ষতি থেকে বাঁচতে কয়েকটি মৌলিক বিষয় জেনে নিন।

 

১। জামা’আতে নামাজ আদায় করা। তাহাজ্জুদ পড়া। এই দুটি আপনার আত্মিক শক্তি বৃদ্ধি করে।

২। গানবাজনা থেকে বিরত থাকা।

৩। সর্বদা পাকপবিত্র থাকা। বিশেষত: ঘুমের আগে অযু করে বিছানায় যাওয়া।

৪। ঘুমের আগে আয়াতুল কুরসি এবং সুরা বাকারার শেষ দুই আয়াত পড়া। [[ সূরাতুল বাকারা। পবিত্র কোরআনুল কারীমের দ্বিতীয় সূরা। এ সূরাটির শেষ দুটি আয়াতের রয়েছে বিশেষ ফজিলত ও তাৎপর্য। নিয়মিত এ অংশটির আমল বান্দাকে নানা বিপদ-আপদ থেকে রক্ষা করবে। জান্নাতের পথও সুগম করবে। রাসূলুল্লাহ (সা.)-কে এক ব্যক্তি জিজ্ঞেস করলেন, হে আল্লাহর রাসূল (সা.)! কোরআনের কোন সূরা সবচেয়ে বেশি মর্যাদাবান? তিনি বললেন, সূরা ইখলাস। এর পর আবার বললেন, কোরআনের কোন আয়াতটি মর্যাদাবান? তিনি বললেন, আয়াতুল করছি। অতপর বলেন, হে আল্লাহর নবী! আপনি কোন আয়াতকে পছন্দ করেন যা দ্বারা আপনার ও আপনার উম্মত লাভবান হবে? নবীজী (সা.) বললেন, সূরা বাকারার শেষ আয়াত। কেননা, এ দুটি আয়াত আল্লাহর রহমতের খাজানা, যা আরশের নিচের এ উম্মতকে দান করা হয়েছে। এ আয়াতের মাঝে যা সম্পৃক্ত করা হয়েছে এর মধ্যে দুনিয়া ও আখিরাতের কোনো ভালো কাজকে বাদ দেয়া হয়নি। সূত্র: দারেমি, কিতাবু ফাযিলুল কোরআন। এ হাদীস দ্বারা বুঝা যায়, নিশ্চয় নবী কারীম (সা.) সূরা বাকারার শেষ অংশ নিজে এবং তার সাহাবারাও ভালোবাসতেন। আর তা হলো সূরা বাকারার ২৮৫-২৮৬ নং শেষ দু্ইটি আয়াত।

آمَنَ الرَّسُولُ بِمَا أُنزِلَ إِلَيْهِ مِن رَّبِّهِ وَالْمُؤْمِنُونَ كُلٌّ آمَنَ بِاللّهِ وَمَلآئِكَتِهِ وَكُتُبِهِ وَرُسُلِهِ لاَ نُفَرِّقُ بَيْنَ أَحَدٍ مِّن رُّسُلِهِ وَقَالُواْ سَمِعْنَا وَأَطَعْنَا غُفْرَانَكَ رَبَّنَا وَإِلَيْكَ الْمَصِيرُ (সূরা: বাকারা, আয়াত: ২৮৫)

لاَ يُكَلِّفُ اللّهُ نَفْسًا إِلاَّ وُسْعَهَا لَهَا مَا كَسَبَتْ وَعَلَيْهَا مَا اكْتَسَبَتْ رَبَّنَا لاَ تُؤَاخِذْنَا إِن نَّسِينَا أَوْ أَخْطَأْنَا رَبَّنَا وَلاَ تَحْمِلْ عَلَيْنَا إِصْرًا كَمَا حَمَلْتَهُ عَلَى الَّذِينَ مِن قَبْلِنَا رَبَّنَا وَلاَ تُحَمِّلْنَا مَا لاَ طَاقَةَ لَنَا بِهِ وَاعْفُ عَنَّا وَاغْفِرْ لَنَا وَارْحَمْنَآ أَنتَ مَوْلاَنَا فَانصُرْنَا عَلَى الْقَوْمِ الْكَافِرِينَ (সূরা: বাকারা, আয়াত: ২৮৬)

আয়াতদ্বয়ের অর্থ: ‘রাসূল বিশ্বাস রাখেন ওই সমস্ত বিষয় সম্পর্কে যা তাঁর পালনকর্তার পক্ষ থেকে তাঁর কাছে অবতীর্ণ হয়েছে এবং মুসলমানরাও সবাই বিশ্বাস রাখে আল্লাহর প্রতি, তাঁর  ফেরেশতাদের প্রতি, তাঁর গ্রন্থসমূহের প্রতি এবং তাঁর পয়গাম্বরগণের প্রতি। তারা বলে, আমরা তাঁর পয়গাম্বরদের মধ্যে কোনো তারতম্য করি না। তারা বলে, আমরা শুনেছি এবং কবুল করেছি। আমরা তোমার ক্ষমা চাই, হে আমাদের পালনকর্তা। তোমারই দিকে প্রত্যাবর্তন করতে হবে। আল্লাহ কাউকে তার সাধ্যাতীত কোনো কাজের ভার দেন না, সে তাই পায় যা সে উপার্জন করে এবং তাই তার ওপর বর্তায় যা সে করে। হে আমাদের পালনকর্তা, যদি আমরা ভুলে যাই কিংবা ভুল করি, তবে আমাদের অপরাধী করো না। হে আমাদের পালনকর্তা! এবং আমাদের ওপর এমন দায়িত্ব অর্পণ করো না,  যেমন আমাদের পূর্ববর্তীদের ওপর অর্পণ করেছ, হে আমাদের প্রভূ! এবং আমাদের দ্বারা ওই বোঝা বহন করিও না, যা বহন করার শক্তি আমাদের নেই। আমাদের পাপ মোচন কর। আমাদেরকে ক্ষমা কর এবং আমাদের প্রতি দয়া কর। তুমিই আমাদের প্রভু। সুতরাং কাফের সম্প্রদায়ে বিরুদ্ধে আমাদের সাহায্য কর। (সুরা: বাকারা, আয়াত ২৮৫-২৮৬ )  ]

৫। সব কাজে বিসমিল্লাহ বলা, বিশেষত: খাবার সময় এবং ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ করতে। এছাড়া উঁচু থেকে লাফ দেয়ার সময়, কিছু ফেলার সময়, অন্ধকারে কিছু করার সময়ও বিসমিল্লাহ বলা ভালো।

৬। কুকুর – বিড়াল না মারা, সাপ মারতে চাইলে আগে জোর আওয়াজে ৩বার বলা “জ্বিন হলে চলে যাও..”

৭। কোনো গর্তে প্রসাব না করা। হাদিসে এব্যাপারে পরিষ্কার নিষেধাজ্ঞা আছে।

৮। ঘরে প্রবেশের এবং বের হওয়ার দোয়া পড়া, দোয়া না জানলে অন্তত বিসমিল্লাহ বলা।

৯। সন্ধ্যার সময় ঘরের জানালা বন্ধ করা, বাচ্চাদের বাহিরে বের হতে না দেয়া। সন্ধ্যার কিছুক্ষণ পর বাচ্চাদের বের হতে কিংবা জানালা খুলতে পারেন।

১০। স্ত্রী সহবাসের পুর্বে অবশ্যই দু’আ পড়া। বিয়ের প্রথম রাতের দোয়াটি পড়া।

১১। টয়লেটে ঢোকার সময় দু’আ পড়া।

১২। প্রতিদিন “লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহ্দাহু লা-শারীকালাহ, লাহুল মুলকু ওয়ালাহুল হ্ামদ, ওয়াহুওয়া ‘আলা কুল্লি শাইয়িন ক্বদীর” ১০০বার পড়া। একশতবার না হলে, অন্তত সকাল – সন্ধ্যায় ১০বার করে পড়া।

১২। সকাল সন্ধ্যার অন্যান্য মাসনুন আমলগুলো নিয়মিতভাবে প্রতিদিন করা

১৩। সুরা ইখলাস ফালাক নাস, তথা তিনকুল-এর আমল গুরুত্ব সহকারে করা। আয়েশা সিদ্দীকা রা. থেকে এব্যাপারে চল্লিশটিরও বেশি সনদে বর্ণিত হয়েছে, রাসুল সা. জীবনের শেষ পর্যন্ত এর আমল করেছেন। আমল হলো, রাসূল সা. প্রতিরাতে ঘুমানোর পূর্বে সূরা ইখলাস তিনবার, সূরা ফালাক তিনবার ও সূরা নাস তিনবার পড়ে দুইহাতের তালুতে ফুঁ দিতেন। ফুঁ এর সাথে হালকা থুতু বেরিয়ে আসতো। এরপর সমস্ত শরীরে হাত বুলিয়ে নিতেন। দ্বিতীয়ত: প্রতিদিন ফজর ও মাগরিবের নামাযের পর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম একবার সূরা ইখলাস, একবার সূরা ফালাক ও একবার সূরা নাস এভাবে তিন সূরা তিনবার পড়তেন। এসময়ে ফুঁ দেয়া লাগবে না। হাদীসের শেষাংশে আল্লাহর রাসূল সা বলেন, এআমলই তোমার জন্য যথেষ্ট। অন্য হাদিসের আছে এই সুরাগুলো পড়ে বাচ্চাদের ফুঁ দিয়ে দিতেন… … উপরে উল্লেখিত পরামর্শ বিভিন্ন হাদিস থেকে নেয়া, লেখা দীর্ঘ হয়ে যাবে এজন্য সবগুলো হাদিস উল্লেখ করা সম্ভব হলো না। . আর উপরে বলা কিছু দুয়া “যাদুগ্রস্ত-১২” পর্বে পাবেন। এছাড়া বাকিগুলো প্রসিদ্ধ অনেক বইতে পাবেন, যেমনঃ হিসনে হাসিন, গুলজারে সুন্নাহ, হিসনুল মুসলিম। আরো সহজে পাবেন নুরানী মাদরাসার বাচ্চারা একটা নীল রঙের বই পড়ে (নুরানী পদ্ধতিতে কোরআন শিক্ষা এরকম নাম), বেলায়েত সাহেবের লেখা, সেখানে। . যাহোক, অনেকগুলো ব্যাপার আলোচনা হলো, আল্লাহ আমাদের সতর্ক থাকার তাওফিক দিন, আমিন.. জ্বিনের স্পর্শ 

 

(৫) বাড়ি থেকে জ্বিন তাড়ানো, রাক্বির জন্য লক্ষণীয়, এবিষয়ক কিছু বই

 

[ক] আজ খুব গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি বিষয় আলোচনা হবে ইনশাআল্লাহ। প্রথম বিষয় হচ্ছে, কোনো বাড়িতে যদি জ্বিনের উৎপাত থাকে, তাহলে তাড়াবেন কিভাবে? এর বেশ কয়েকটি বৈধ পদ্ধতি আছে, সবগুলোই কমবেশি ফলপ্রসূ। . প্রথম পদ্ধতি: আপনি আরো দুজন লোক সাথে নিয়ে ওই বাড়িতে যাবেন, তারপর জোরে জোরে কয়েকবার বলবেন.. (প্রথম কমেন্টের পিকচার দ্রষ্টব্য) . أُنَاشِدُكُمْ بِالْعَهْدِ الَّذِيْ أَخَذَهُ عَلَيْكُمْ سُلَيْمَانَ أَنْ تَرْحَلُوْا وَتَخْرُجُوْا مِنْ بَيْتِنَا أُنَاشِدُكُمُ اللّٰهُ أَنْ تَخْرُجُوْا وَلَا تُؤْذُوْا أحَدًا . অর্থাৎ: “আমি তোমাদের সেই ওয়াদার জন্য আমার বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি, যে ওয়াদা সুলাইমান আ. তোমাদের থেকে নিয়েছেন। আমি আল্লাহর শপথ করে বলছি, তোমরা বের হয়ে যাও এবং কারো ক্ষতি করো না।” — পরপর তিনদিন এরকম করবেন, আরবিও বলবেন, বাংলাও বলবেন। ইনশাআল্লাহ! জ্বিনেরা বাড়ি ছেড়ে চলে যাবে। এরপরেও যদি কোনো সমস্যা টের পান, তাহলে দ্বিতীয় পদ্ধতি অনুসরণ করুন…. .

[খ] দ্বিতীয় পদ্ধতি: একটা বড় পাত্রে পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি নিন, এরপর পানির কাছে মুখ নিয়ে নিচের দু’আটি পড়ুন- (দ্বিতীয় কমেন্টের পিকচার দ্রষ্টব্য)

. بِسْمِ اللّٰهِ ، اَمْسِيْنَا بِا للّٰهِ الَّذِيْ لَيْسَ مِنْهُ شَيْءٌ مُمْتَنِعٌ ، وَبِعِزَّةِ اللّٰهِ الَّتِيْ لَا تُرَامُ وَلَا تُضَامُ، وَبِسُلْطَانِ اللّٰهِ الْمُنِيْعِ نَحْتَجِبُ، وَبِأَسْمَائِهِ الْحُسْنٰى كُلِّهَا عَائِذٌ مِّنَ الْأَبَالِسَةِ ، وَمِنْ شَرِّ شَيَاطِيِنِ الْإِنْسِ وَالْجِنِّ ، وَمِنْ شَرِّ كُلَّ مُعْلِنٌ اَوْ مُسِرٌّ ، وَمِنْ شَرِّ مَا يَخْرُجُ بِاللَّيْلِ وَيَكْمُنُ بِالنَّهَارِ ، ويَكْمُنُ بِاللَّيْلِ و يَخْرُجُ بِالنَّهَارِ ، وَمِنْ شَرِّ مَا خَلَقَ وَذَرَأَ وَبَرَأَ ، وَمِنْ شَرِّ اِبْلِيْسِ وَجُنُوْدِهِ ، وَمِنْ شَرِّ دَابَّةٍ اَنْتَ آخِذٌ بِنَاصِيَتِهَا إِنَّ رَبِّيْ عَلٰى صِرَاطٍ مُّسْتَقِيْمٍ ، اَعُوْ بِمَا اسْتَعَاذَ بِهٖ مُوْسٰى ، وَعِيْسٰى ، وَاِبْرَاهِيْمَ الَّذِيْ وَفّٰى ، وَمِنْ شَرِّ مَا خَلَقَ وَذَرَأَ وَبَرَأَ ، وَمِنْ شَرِّ اِبْلِيْسِ وَجُنُوْدِهِ ، وَمِنْ شَرِّ مَا يَبْغٰي

এরপর আউযুবিল্লাহ বিসমিল্লাহ সহ (২৩ পারায়) সুরা সফফাত এর প্রথম ১০ আয়াত পড়ুন,

. اعوذ بالله من الشيطن الرجيم – بسم الله الرحمن الرحيم

وَالصَّافَّاتِ صَفًّا (1)

فَالزَّاجِرَاتِ زَجْرًا (2)

فَالتَّالِيَاتِ ذِكْرًا (3)

إِنَّ إِلَهَكُمْ لَوَاحِدٌ (4)

رَبُّ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ وَمَا بَيْنَهُمَا وَرَبُّ الْمَشَارِقِ (5)

إِنَّا زَيَّنَّا السَّمَاءَ الدُّنْيَا بِزِينَةٍ الْكَوَاكِبِ (6)

وَحِفْظًا مِنْ كُلِّ شَيْطَانٍ مَارِدٍ (7)

لَا يَسَّمَّعُونَ إِلَى الْمَلَإِ الْأَعْلَى وَيُقْذَفُونَ مِنْ كُلِّ جَانِبٍ (8)

دُحُورًا وَلَهُمْ عَذَابٌ وَاصِبٌ (9)

إِلَّا مَنْ خَطِفَ الْخَطْفَةَ فَأَتْبَعَهُ شِهَابٌ ثَاقِبٌ (10) 

 

সব পড়ে পানিতে ফুঁ দিবেন। এবং ওই পানি পুরো বাড়ীতে ছিটিয়ে দিবেন। ইনশাআল্লাহ আর কোনো সমস্যা থাকবে না। বাড়িতে দুষ্ট জ্বিন থাকলে চলে যাবে। (উপরিউক্ত পদ্ধতি ইবনুল কায়্যিম রহ. উনার ﺍﻟﻮﺍﺑﻞ ﺍﻟﺼﻴﺐ ﻓﻲ ﺍﻟﻜﻠﻢ ﺍﻟﻄﻴﺐ ‏ কিতাবে বর্ণনা করেছেন, বিন বায রহ. থেকেও এই আলোচনা পাওয়া যায়। আমার মনে হয়, উপরের পদ্ধতি অনুসরণ করে পানি ছিটানোর পর একবার আযান দেয়া উত্তম…) .

[খ] তৃতীয় (সুন্নাহসম্মত) পদ্ধতি: এটা গত ২রা মার্চ মুন্সিগঞ্জের মাহফিলে সাইয়্যেদ আসজাদ মাদানী দা.বা. বয়ান করেছেন। কোনো বাড়িতে জ্বিনের উৎপাত থাকলে সেই বাড়িতে পরপর তিনদিন সুরা বাক্বারা তিলাওয়াত করতে হবে। আর নতুন বাড়ি করার পর যদি পরপর তিনদিন সুরা বাক্বারা তিলাওয়াত করা হয়, তাহলে আগে থেকে কোনো জ্বিন বা অন্য ক্ষতিকর মাখলুক থাকলে চলে যাবে। এর সমর্থনে হাদিসও আছে। . তো, এই হচ্ছে বাড়ি থেকে খবিস জ্বিন তাড়ানোর সমাধান। তবে এসব করার পরে আর যেন সমস্যা না হয়, এজন্য কিছু বিষয় খেয়াল রাখবেন…

১. বাড়িতে ইসলামী পরিবেশ চালু রাখার চেষ্টা করা, বিশেষতঃ কোনো প্রাণীর ভাস্কর্য বা ছবি যেন ঘরে টাঙানো না থাকে। রাসুল সা. বলেছেন যে ঘরে কুকুর বা জীবজন্তুর ছবি থাকে, সেখানে রহমতের ফেরেশতা প্রবেশ করে না।

২. আর নফল – সুন্নাত নামাজ সম্ভব হলে ঘরে পড়বেন। আহলিয়া থাকলে বলবেন, যে ঘরে সবসময় নামাজ পড়া হয়, সেটা বাদে অন্যান্য ঘরেও যেন মাঝেমাঝে পড়ে।

৩. সম্ভব হলে প্রতিমাসে ১-২বার সুরা বাক্বারা পড়া।

৪. বিসমিল্লাহ বলে বাড়িতে প্রবেশ করা, বিসমিল্লাহ বলে দরজা – জানালা বন্ধ করা।

৫. টয়লেটের দরজা বন্ধ রাখা। আল্লাহ আমাদের হিফাজত করুক… আ-মীন.. .

[গ] কোনো জ্বিনে ধরা রুগীর চিকিৎসা করার ক্ষেত্রে অনেকগুলো ব্যাপার থাকে, যেসব চিকিৎসককে খেয়াল রাখতে হয়। প্রথমত: উপস্থিত বুদ্ধি এখানে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যাহোক, এখন আমরা জানবো যিনি চিকিৎসা করবেন তার কি কি গুন থাকা উচিত-

১. আকিদা বিশুদ্ধ হওয়া, শিরক-বিদআতমুক্ত পরিচ্ছন্ন ইসলামী আক্বিদার অনুসারী হওয়া।

২. মৌলিক ইবাদাতগুলো তথা নামাজ-কালাম, মাহরাম-গাইরে মাহরাম এসব বিষয়ে যত্নবান হওয়া। হালাল-হারামের ব্যাপারে যত্নবান হওয়া, হারাম থেকে বেঁচে থাকা।

৩. অধিক পরিমাণে জিকির-আজকার, রোজা, তাহাজ্জুদ ইত্যাদির মাধ্যমে আত্মিকভাবে দৃঢ় হওয়া।

৪. আল্লাহর কালাম যে জ্বিন-শয়তানের ওপর প্রভাব ফেলতে সক্ষম, এব্যাপারে দৃঢ় বিশ্বাস (ইয়াক্বীন) রাখা।

৫. জ্বিন জাতির অবস্থা তথা: প্রকারভেদ, জাতপাত, কাজকর্ম, সংক্ষিপ্ত ইতিহাস, কিভাবে মানুষের ওপর আসর করে, কিভাবে কিভাবে বের হয়… ইত্যাদি বিষয়গুলো সম্পর্কে অবগত থাকা।

৬. জ্বিনদের মাঝে মিথ্যা বলার প্রবণতা খুবই বেশি! এজন্য জ্বিনদের স্বভাব, ধোঁকাবাজি, কূটকৌশলের ব্যাপারে সতর্ক থাকা। (যেমন: দ্বিতীয় পর্বে বলা ইবনে তাইমিয়া রহ. এর ঘটনায়… জ্বিন বলেছিল আপনার কথা মেনে চলে যাচ্ছি। ইবনে তাইমিয়া রহ. বললেন, না! তুমি আল্লাহ এবং রাসুল স. এর আনুগত্য করে চলে যাও। এখানে উনি এই কথা না বললে সম্ভাবনা ছিল, হয়তো উনার মৃত্যুর পর আবার জ্বিন ফিরে আসতো। ইমাম আহমাদ বিন হাম্বলের ঘটনায় যেমনটা আমরা দেখেছি!)

৭. রাসুল সা. এর শিখিয়ে দেয়া দু’আগুলো যেমন: ঘরে – মসজিদে ঢোকার দোয়া, বের হওয়ার দোয়া, কুকুর ডাকতে শুনলে দোয়া (আ’উযুবিল্লাহ পড়তে হয়) কাক ডাকতে শুনলে দোয়া, টয়লেটে ঢোকার-বের হবার দোয়া, এসবের ব্যাপারে যত্নশীল হওয়া। এজন্য বিশুদ্ধ এবং নির্ভরযোগ্য কোনো গ্রন্থের সহায়তা নেয়া যেতে পারে।

৮. নিজের ব্যাপারে খুব সতর্ক থাকা। কারণ, আপনি নিজেই দুর্বল হলে অন্যের ওপর ভর করা শয়তানকে শায়েস্তা করবেন কিভাবে? এজন্য খারাপ জ্বিন-শয়তান থেকে বাঁচার জন্য যা যা করনীয় আছে, সেসব গুরুত্ব সহকারে করা। (এক শায়খের ঘটনা আগেও বলা হয়েছে। জ্বিন ছাড়ানোর সময় উনার ওপরেই আসর করার চেষ্টা করেছিলো জ্বিন, কিন্তু সকালে দুয়া পড়ার কারণে পারেনি.. লিংক কমেন্টে)

৯. আর সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, জ্বিন ছাড়াতে গিয়ে কোরআন-সুন্নাহ বিরোধী অবৈধ কোনো পন্থার অনুসরণ না করা। সম্পূর্ণ আল্লাহর ওপর তাওয়াককুল (ভরসা) রাখা। যে, আল্লাহ অবশ্যই এই বিপদ থেকে উদ্ধার করবেন। সমস্যার সমাধান করবেন।

১০. চিকিৎসক ব্যক্তি বিবাহিত পুরুষ হওয়া উচিত। আবশ্যক নয়, তবে রিকোমেন্ডেড…। আর হ্যাঁ! সমস্যা সমাধানে চিকিৎসককে অবশ্যই আন্তরিক হতে হবে, মনে রাখবেন এটাও একটা রোগ। ফিজিক্যাল না হলেও, স্প্রিচুয়্যাল। যাহোক, এই বিষয়গুলো অবশ্যই খেয়াল রাখবেন। আল্লাহ আমাদের হিফাজত করুক… .

[ঘ] কেউ যদি এই বিষয়ে পড়াশোনা করতে চায় তাহলে তার জন্য সাজেস্টেড কিছু বই এর নাম-

১. ইমাম সুয়ুতি রহ.-এর লাক্বতুল মারজান ফি আহকামিল জান (আরবির চেয়ে বাংলা জ্বিন জাতির ইতিহাস বেশি ভালো)

২. ইবনে তাইমিয়া রহ.-এর রিসালাতুল জ্বিন

৩. ইমাম নববী রহ. এর শরাহ সাথে রেখে মুসলিম শরিফের “কিতাবুত ত্বীব / চিকিৎসা অধ্যায়” দেখা যায়

৪. বুখারীর “বাদাউল খলক/ সৃষ্টির সূচনা” অধ্যায় দেখতে পারেন, সাথে ফাতহুল বারি রাখলে আরো ভালো

৫. ইবনে কাসির রহ. উনার তাফসীরে কিছু আলোচনা করেছেন এবিষয়ে

৬. আ-কাম আল মারজান ফি গারাইবিল জান, লেখক: বদরুদ্দিন শিবলী হানাফী রহ.

৭. তালবীসে ইবলিস, লেখক: ইবনুল জাওযি রহ.

৮. ওয়াকায়াতুল ইনসান মিনাল জিন্নি ওয়াশ শাইত্বন, লেখক: শাইখ ওয়াহিদ বিন আব্দুস সালাম

৯. ইগাসাতুল লাহফান মিন মাসাইদিশ শাইত্বন, লেখক: ইবনুল কায়্যিম রহ.

১০. আলামুল জিন (এই নামে ৩জন লেখকের আলাদা আলাদা বই আছে) .

[ঘ] সবশেষে বলে রাখা ভালো, জ্বিন সিরিজ লিখতে গিয়ে আমি মৌলিকভাবে দুটি বইয়ের সহায়তা নিয়েছি, প্রথমত: ইমাম সুয়ুতির لقط المرجان في احكام الجان এটা মদীনা পাবলিকেশন্স থেকে জ্বিন জাতির ইতিহাস নামে অনূদিত হয়েছে। আর অপরটি হচ্ছে মিসরের শাইখ ওয়াহিদ এর লিখা وقاية الانسان من الجن والشيطان এটার অনুবাদ হয়নি। চিকিৎসার পদ্ধতিগুলো সাধারণত শেষোক্ত বই থেকে নেয়া। আর হাদিসের ক্ষেত্রে ইসলাম ওয়েব / জাওয়ামিউল কালিম থেকে আরবী কিতাবের সহায়তা নেয়া হয়েছে। . আগামী পর্বে ইনশাআল্লাহ জ্বিন সিরিজের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় আলোচনা হবে ইনশাআল্লাহ। যেহেতু এব্যাপারে আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা নেই, এজন্য শুধু বই থেকে অনুবাদ করে লেখাটা ফুটিয়ে তোলা আমার জন্য বেশ কষ্টসাধ্য একটা কাজ। এজন্য আপনাদের দু’আ প্রার্থী.  

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন!

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে  জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

 

“জ্বিন আক্রান্ত মানুষের শরীর থেকে জ্বিন তাড়ানোর ইসলাম সমর্থিত সিস্টেম”

 

জ্বিনের স্পর্শ (৬) —- অবধারিতভাবে আজ যে বিষয়টা আলোচনায় করতে হবে, তা হচ্ছে “জ্বিন আক্রান্ত মানুষের শরীর থেকে জ্বিন তাড়ানোর ইসলাম সমর্থিত সিস্টেম” আমরা ৩টি ধাপে বিষয়গুলো আলোচনা করবো, আশা করছি ধৈর্য ধরে সাথেই থাকবেন। . [প্রথম স্টেপ- চিকিৎসার প্রস্তুতি] চিকিৎসক এর গুণাবলী যা গত পর্বে আলোচনা হয়েছে সেসব তো খেয়াল রাখবেন, এরপর যে ঘরে চিকিৎসা করা হবে, তাঁর পরিবেশ মানানসই হওয়াটাও গুরুত্বপূর্ণ।

১. ঘর টাঙানো বা সাজিয়ে রাখা কোন জীবের ছবি এবং ভাস্কর্য থাকলে সরিয়ে ফেলতে হবে। যেন রহমতের ফেরেশতা প্রবেশ করে।

২. কোনও মিউজিক্যাল ইন্সট্রুমেন্ট থাকলে সরিয়ে ফেলতে হবে।

৩. রুগীর সাথে কোনও তাবিজ থাকলে খুলে ফেলতে হবে। তাবিজ আল্লাহর ওপর তাওয়াককুলের প্রতিবন্ধক।

৪. সেখানে উপস্থিত কেউ যেন অনৈসলামিক অবস্থায় না থাকে, সেটা খেয়াল রাখতে হবে। যেমন: কোনও পুরুষ স্বর্ণ পরে আছে, অথবা কোনও মহিলা বেপর্দা হয়ে আছে।

৫. রুগী এবং তার পরিবারকে এবিষয়ে ইসলামি দর্শন সংক্ষেপে বলবেন, যেমন: এই চিকিৎসায় আমার কোনও ক্ষমতা নাই, সমস্যা সমাধানের ক্ষমতা একমাত্র আল্লাহ তা’আলার। আল্লাহ তা’আলা কোরআন এর মাঝে শিফা (আরোগ্য) রেখেছেন, আর রাসূল সা. কোরআন দ্বারা চিকিৎসার নির্দেশ দিয়েছেন এজন্য আমরা রুকইয়াহ শারিয়্যাহ পারফর্ম (এর বাংলা কি?) করবো। আর শিরকি ঝাড়ফুঁক বিষয়েও সতর্ক করবেন।

৬. রুগী যদি শরীরের একাংশে আক্রান্ত হয় তাহলে নিশ্চিত হওয়ার জন্য প্রশ্ন করুন। সে স্বপ্নে কোনও প্রাণী দেখে কি না, দেখলে কয়টা প্রাণী দেখে, একই প্রাণী বারবার দেখে কি না। স্বপ্নে কোনও প্রাণী ধাওয়া করে কি না। বোবায় ধরে কি না। মোটকথা, ৪র্থ পর্বে যে ১০-১২টা লক্ষণ বর্ণনা করা হয়েছে সেসবগুলোর ব্যাপারে প্রশ্ন করুন। যাতে ব্যাপারটা নিশ্চিত হওয়া যায়। আর হ্যাঁ! যদি স্বপ্নে সে সবসময় দুইটা প্রাণীকে.. যেমন: দুইটা সাপকে ধাওয়া করতে দেখে, তাহলে বুঝতে হবে দুইটা জ্বিন আছে। যদি কোনও বিশেষ আকৃতির কোনও মানুষকে ক্রুশ পরিহিত অবস্থায় দেখে, তাহলে বুঝতে হবে খ্রিষ্টান জ্বিন। যাহোক, এসব প্রশ্ন করে অবস্থা সম্পর্কে মোটামুটি একটা ধারণা নিয়ে শুরু করবেন।

৭. রুগী মহিলা হলে… রুগীকে সম্পূর্ণ পর্দাবৃত অবস্থায় থাকতে হবে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো হয় “যদি কোনও মাহরাম পুরুষ রুকইয়াহ করে, তাহলে অতিরিক্ত ঝামেলা হবেনা।”

৮. সেখানে রুগীর কোন মাহরাম যেন অবশ্যই উপস্থিত থাকে, যেমন: বাবা, ভাই অথবা স্বামী থাকতে পারে। এছাড়া সেখানে অন্য গাইরে মাহরাম কেউ যেন না থাকে। পর্দার বিধান যেন লঙ্ঘন না হয়, এব্যাপারে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে হবে।

৯. চিকিৎসা করার পূর্বে ওযু করে নেয়া উচিত। সম্ভব হলে দু’রাকাত সালাতুল হাজত পড়ে নিন। নইলে অন্তত: ইস্তিগফার -দরুদ পড়ে আল্লাহর কাছে সাহায্য চেয়ে চিকিৎসা শুরু করুন… .

[দ্বিতীয় স্টেপ: চিকিৎসা] রুগীর মাথায় হাত রেখে, উচ্চ আওয়াজে রুকইয়ার আয়াতগুলো তিলাওয়াত করুন। তবে যেহেতু সেখানে সিহর/যাদু বিষয়ক আয়াতও আছে তাই জ্বিনের ক্ষেত্রে সবগুলো আয়াত তিলাওয়াতের দরকার নেই।

 

Islami Dawah Center Cover photo

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টারকে সচল রাখতে সাহায্য করুন!

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টার ১টি অলাভজনক দাওয়াহ প্রতিষ্ঠান, এই প্রতিষ্ঠানের ইসলামিক ব্লগটি বর্তমানে ২০,০০০+ মানুষ প্রতিমাসে পড়ে, দিন দিন আরো অনেক বেশি বেড়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

বর্তমানে মাদরাসা এবং ব্লগ প্রজেক্টের বিভিন্ন খাতে (ওয়েবসাইট হোস্টিং, CDN,কনটেন্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং, ব্লগ পোস্টিং, ডিজাইন এবং মার্কেটিং) মাসে গড়ে ৫০,০০০+ টাকা খরচ হয়, যা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সেকারনে, এই বিশাল ধর্মীয় কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে সর্বপ্রথম আল্লাহর কাছে আপনাদের দোয়া এবং আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন, এমন কিছু ভাই ও বোন ( ৩১৩ জন ) দরকার, যারা আইডিসিকে নির্দিষ্ট অংকের সাহায্য করবেন, তাহলে এই পথ চলা অনেক সহজ হয়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

যারা এককালিন, মাসিক অথবা বাৎসরিক সাহায্য করবেন, তারা আইডিসির মুল টিমের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবেন, ইংশাআল্লাহ।

আইডিসির ঠিকানাঃ খঃ ৬৫/৫, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা -১২১২, মোবাইলঃ +88 01609 820 094, +88 01716 988 953 ( নগদ/বিকাশ পার্সোনাল )

ইমেলঃ info@islamidawahcenter.com, info@idcmadrasah.com, ওয়েব: www.islamidawahcenter.com, www.idcmadrasah.com সার্বিক তত্ত্বাবধানেঃ হাঃ মুফতি মাহবুব ওসমানী ( এম. এ. ইন ইংলিশ, ফার্স্ট ক্লাস )

 

জ্বিনের চিকিৎসার জন্য শুধু নিচের আয়াতগুলো পড়লেই যথেষ্ট।

 

১। সুরা ফাতিহা সুরা নং- ০০১ : আল-ফাতিহা

بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ উচ্চারণ : বিসমিল্লাহির রহমা-নির রহি-ম। অনুবাদ : শুরু করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি দয়ালু।

الْحَمْدُ لِلَّهِ رَبِّ الْعَالَمِينَ উচ্চারণ : আলহামদু লিল্লাহি রব্বিল আ -লামি-ন। অনুবাদ : যাবতীয় প্রশংসা আল্লাহ তা’আলার যিনি সকল সৃষ্টি জগতের পালনকর্তা।

الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ উচ্চারণ : আররহমা-নির রাহি-ম। অনুবাদ : যিনি নিতান্ত মেহেরবান ও দয়ালু।

مَالِكِ يَوْمِ الدِّينِ উচ্চারণ : মা-লিকি ইয়াওমিদ্দি-ন। অনুবাদ : বিচার দিনের একমাত্র অধিপতি।

إِيَّاكَ نَعْبُدُ وَإِيَّاكَ نَسْتَعِينُ উচ্চারণ : ইয়্যা-কা না’বুদু ওয়া ইয়্যা-কা নাসতাই’-ন অনুবাদ : আমরা একমাত্র তোমারই ইবাদত করি এবং শুধুমাত্র তোমারই সাহায্য প্রার্থনা করি।

اهْدِنَا الصِّرَاطَ الْمُسْتَقِيمَ উচ্চারণ : ইহদিনাস সিরাতা’ল মুসতাকি’-ম অনুবাদ : আমাদের সরল পথ দেখাও।

صِرَاطَ الَّذِينَ أَنْعَمْتَ عَلَيْهِمْ غَيْرِ الْمَغْضُوبِ عَلَيْهِمْ وَلَا الضَّالِّينَ

উচ্চারণ : সিরাতা’ল্লা যি-না আনআ’মতা আ’লাইহিম গা’ইরিল মাগ’দু’বি আ’লাইহিম ওয়ালা দ্দ-ল্লি-ন।

অনুবাদ : সে সমস্ত লোকের পথ, যাদেরকে তুমি নেয়ামত দান করেছ। তাদের পথ নয়, যাদের প্রতি তোমার গজব নাযিল হয়েছে এবং যারা পথভ্রষ্ট হয়েছে।

২। সুরা বাকারা ১-৫

(1
الم
আলিফ লাম মীম।
A.L.M.
(2
ذَلِكَ الْكِتَابُ لاَ رَيْبَ فِيهِ هُدًى لِّلْمُتَّقِينَ
 
এ সেই কিতাব যাতে কোনই সন্দেহ নেই। পথ প্রদর্শনকারী পরহেযগারদের জন্য,
 
This is the Book; in it is guidance sure, without doubt, to those who fear Allah.
(3
الَّذِينَ يُؤْمِنُونَ بِالْغَيْبِ وَيُقِيمُونَ الصَّلاةَ وَمِمَّا رَزَقْنَاهُمْ يُنفِقُونَ
 
যারা অদেখা বিষয়ের উপর বিশ্বাস স্থাপন করে এবং নামায প্রতিষ্ঠা করে। আর আমি তাদেরকে যে রুযী দান করেছি তা থেকে ব্যয় করে
 
Who believe in the Unseen, are steadfast in prayer, and spend out of what We have provided for them;
 
(4
والَّذِينَ يُؤْمِنُونَ بِمَا أُنزِلَ إِلَيْكَ وَمَا أُنزِلَ مِن قَبْلِكَ وَبِالآخِرَةِ هُمْ يُوقِنُونَ
 
এবং যারা বিশ্বাস স্থাপন করেছে সেসব বিষয়ের উপর যা কিছু তোমার প্রতি অবতীর্ণ হয়েছে এবং সেসব বিষয়ের উপর যা তোমার পূর্ববর্তীদের প্রতি অবতীর্ণ হয়েছে। আর আখেরাতকে যারা নিশ্চিত বলে বিশ্বাস করে।
 
And who believe in the Revelation sent to thee, and sent before thy time, and (in their hearts) have the assurance of the Hereafter.
 
(5
أُوْلَـئِكَ عَلَى هُدًى مِّن رَّبِّهِمْ وَأُوْلَـئِكَ هُمُ الْمُفْلِحُونَ
 
তারাই নিজেদের পালনকর্তার পক্ষ থেকে সুপথ প্রাপ্ত, আর তারাই যথার্থ সফলকাম।
 
They are on (true) guidance, from their Lord, and it is these who will prosper.

 

৩। সুরা বাকারা ১৬৩-১৬৪

وَإِلَـهُكُمْ إِلَهٌ وَاحِدٌ لاَّ إِلَهَ إِلاَّ هُوَ الرَّحْمَنُ الرَّحِيمُ
 
আর তোমাদের উপাস্য একইমাত্র উপাস্য। তিনি ছাড়া মহা করুণাময় দয়ালু কেউ নেই।
And your Allah is One Allah. There is no god but He, Most Gracious, Most Merciful.
(164
إِنَّ فِي خَلْقِ السَّمَاوَاتِ وَالأَرْضِ وَاخْتِلاَفِ اللَّيْلِ وَالنَّهَارِ وَالْفُلْكِ الَّتِي تَجْرِي فِي الْبَحْرِ بِمَا يَنفَعُ النَّاسَ وَمَا أَنزَلَ اللّهُ مِنَ السَّمَاء مِن مَّاء فَأَحْيَا بِهِ الأرْضَ بَعْدَ مَوْتِهَا وَبَثَّ فِيهَا مِن كُلِّ دَآبَّةٍ وَتَصْرِيفِ الرِّيَاحِ وَالسَّحَابِ الْمُسَخِّرِ بَيْنَ السَّمَاء وَالأَرْضِ لآيَاتٍ لِّقَوْمٍ يَعْقِلُونَ
 
নিশ্চয়ই আসমান ও যমীনের সৃষ্টিতে, রাত ও দিনের বিবর্তনে এবং নদীতে নৌকাসমূহের চলাচলে মানুষের জন্য কল্যাণ রয়েছে। আর আল্লাহ তা’ আলা আকাশ থেকে যে পানি নাযিল করেছেন, তদ্দ্বারা মৃত যমীনকে সজীব করে তুলেছেন এবং তাতে ছড়িয়ে দিয়েছেন সবরকম জীব-জন্তু। আর আবহাওয়া পরিবর্তনে এবং মেঘমালার যা তাঁরই হুকুমের অধীনে আসমান ও যমীনের মাঝে বিচরণ করে, নিশ্চয়ই সে সমস্ত বিষয়ের মাঝে নিদর্শন রয়েছে বুদ্ধিমান সম্প্রদায়ের জন্যে।
Behold! in the creation of the heavens and the earth; in the alternation of the night and the day; in the sailing of the ships through the ocean for the profit of mankind; in the rain which Allah Sends down from the skies, and the life which He gives therewith to an earth that is dead; in the beasts of all kinds that He scatters through the earth; in the change of the winds, and the clouds which they Trail like their slaves between the sky and the earth;- (Here) indeed are Signs for a people that are wise.

 

৪। সুরা বাকারা ২৫৫-২৫৭

اللّهُ لاَ إِلَـهَ إِلاَّ هُوَ الْحَيُّ الْقَيُّومُ لاَ تَأْخُذُهُ سِنَةٌ وَلاَ نَوْمٌ لَّهُ مَا فِي السَّمَاوَاتِ وَمَا فِي الأَرْضِ مَن ذَا الَّذِي يَشْفَعُ عِنْدَهُ إِلاَّ بِإِذْنِهِ يَعْلَمُ مَا بَيْنَ أَيْدِيهِمْ وَمَا خَلْفَهُمْ وَلاَ يُحِيطُونَ بِشَيْءٍ مِّنْ عِلْمِهِ إِلاَّ بِمَا شَاء وَسِعَ كُرْسِيُّهُ السَّمَاوَاتِ وَالأَرْضَ وَلاَ يَؤُودُهُ حِفْظُهُمَا وَهُوَ الْعَلِيُّ الْعَظِيمُ
 
আল্লাহ ছাড়া অন্য কোন উপাস্য নেই, তিনি জীবিত, সবকিছুর ধারক। তাঁকে তন্দ্রাও স্পর্শ করতে পারে না এবং নিদ্রাও নয়। আসমান ও যমীনে যা কিছু রয়েছে, সবই তাঁর। কে আছ এমন, যে সুপারিশ করবে তাঁর কাছে তাঁর অনুমতি ছাড়া? দৃষ্টির সামনে কিংবা পিছনে যা কিছু রয়েছে সে সবই তিনি জানেন। তাঁর জ্ঞানসীমা থেকে তারা কোন কিছুকেই পরিবেষ্টিত করতে পারে না, কিন্তু যতটুকু তিনি ইচ্ছা করেন। তাঁর সিংহাসন সমস্ত আসমান ও যমীনকে পরিবেষ্টিত করে আছে। আর সেগুলোকে ধারণ করা তাঁর পক্ষে কঠিন নয়। তিনিই সর্বোচ্চ এবং সর্বাপেক্ষা মহান।
 
Allah. There is no god but He,-the Living, the Self-subsisting, Eternal. No slumber can seize Him nor sleep. His are all things in the heavens and on earth. Who is there can intercede in His presence except as He permitteth? He knoweth what (appeareth to His creatures as) before or after or behind them. Nor shall they compass aught of His knowledge except as He willeth. His Throne doth extend over the heavens and the earth, and He feeleth no fatigue in guarding and preserving them for He is the Most High, the Supreme (in glory).
 
(256
لاَ إِكْرَاهَ فِي الدِّينِ قَد تَّبَيَّنَ الرُّشْدُ مِنَ الْغَيِّ فَمَنْ يَكْفُرْ بِالطَّاغُوتِ وَيُؤْمِن بِاللّهِ فَقَدِ اسْتَمْسَكَ بِالْعُرْوَةِ الْوُثْقَىَ لاَ انفِصَامَ لَهَا وَاللّهُ سَمِيعٌ عَلِيمٌ
 
দ্বীনের ব্যাপারে কোন জবরদস্তি বা বাধ্য-বাধকতা নেই। নিঃসন্দেহে হেদায়াত গোমরাহী থেকে পৃথক হয়ে গেছে। এখন যারা গোমরাহকারী ‘তাগুত’দেরকে মানবে না এবং আল্লাহতে বিশ্বাস স্থাপন করবে, সে ধারণ করে নিয়েছে সুদৃঢ় হাতল যা ভাংবার নয়। আর আল্লাহ সবই শুনেন এবং জানেন।
 
Let there be no compulsion in religion: Truth stands out clear from Error: whoever rejects evil and believes in Allah hath grasped the most trustworthy hand-hold, that never breaks. And Allah heareth and knoweth all things.
 
(257
اللّهُ وَلِيُّ الَّذِينَ آمَنُواْ يُخْرِجُهُم مِّنَ الظُّلُمَاتِ إِلَى النُّوُرِ وَالَّذِينَ كَفَرُواْ أَوْلِيَآؤُهُمُ الطَّاغُوتُ يُخْرِجُونَهُم مِّنَ النُّورِ إِلَى الظُّلُمَاتِ أُوْلَـئِكَ أَصْحَابُ النَّارِ هُمْ فِيهَا خَالِدُونَ
 
যারা ঈমান এনেছে, আল্লাহ তাদের অভিভাবক। তাদেরকে তিনি বের করে আনেন অন্ধকার থেকে আলোর দিকে। আর যারা কুফরী করে তাদের অভিভাবক হচ্ছে তাগুত। তারা তাদেরকে আলো থেকে বের করে অন্ধকারের দিকে নিয়ে যায়। এরাই হলো দোযখের অধিবাসী, চিরকাল তারা সেখানেই থাকবে।
 
Allah is the Protector of those who have faith: from the depths of darkness He will lead them forth into light. Of those who reject faith the patrons are the evil ones: from light they will lead them forth into the depths of darkness. They will be companions of the fire, to dwell therein (For ever).

 

৫। সুরা বাকারা ২৮৫-২৮৬

آمَنَ الرَّسُولُ بِمَا أُنزِلَ إِلَيْهِ مِن رَّبِّهِ وَالْمُؤْمِنُونَ كُلٌّ آمَنَ بِاللّهِ وَمَلآئِكَتِهِ وَكُتُبِهِ وَرُسُلِهِ لاَ نُفَرِّقُ بَيْنَ أَحَدٍ مِّن رُّسُلِهِ وَقَالُواْ سَمِعْنَا وَأَطَعْنَا غُفْرَانَكَ رَبَّنَا وَإِلَيْكَ الْمَصِيرُ
 
রসূল বিশ্বাস রাখেন ঐ সমস্ত বিষয় সম্পর্কে যা তাঁর পালনকর্তার পক্ষ থেকে তাঁর কাছে অবতীর্ণ হয়েছে এবং মুসলমানরাও সবাই বিশ্বাস রাখে আল্লাহর প্রতি, তাঁর ফেরেশতাদের প্রতি, তাঁর গ্রন্থসমুহের প্রতি এবং তাঁর পয়গম্বরগণের প্রতি। তারা বলে আমরা তাঁর পয়গম্বরদের মধ্যে কোন তারতম্য করিনা। তারা বলে, আমরা শুনেছি এবং কবুল করেছি। আমরা তোমার ক্ষমা চাই, হে আমাদের পালনকর্তা। তোমারই দিকে প্রত্যাবর্তন করতে হবে।
 
The Messenger believeth in what hath been revealed to him from his Lord, as do the men of faith. Each one (of them) believeth in Allah, His angels, His books, and His apostles. “We make no distinction (they say) between one and another of His apostles.” And they say: “We hear, and we obey: (We seek) Thy forgiveness, our Lord, and to Thee is the end of all journeys.”
 
(286
لاَ يُكَلِّفُ اللّهُ نَفْسًا إِلاَّ وُسْعَهَا لَهَا مَا كَسَبَتْ وَعَلَيْهَا مَا اكْتَسَبَتْ رَبَّنَا لاَ تُؤَاخِذْنَا إِن نَّسِينَا أَوْ أَخْطَأْنَا رَبَّنَا وَلاَ تَحْمِلْ عَلَيْنَا إِصْرًا كَمَا حَمَلْتَهُ عَلَى الَّذِينَ مِن قَبْلِنَا رَبَّنَا وَلاَ تُحَمِّلْنَا مَا لاَ طَاقَةَ لَنَا بِهِ وَاعْفُ عَنَّا وَاغْفِرْ لَنَا وَارْحَمْنَآ أَنتَ مَوْلاَنَا فَانصُرْنَا عَلَى الْقَوْمِ الْكَافِرِينَ
 
আল্লাহ কাউকে তার সাধ্যাতীত কোন কাজের ভার দেন না, সে তাই পায় যা সে উপার্জন করে এবং তাই তার উপর বর্তায় যা সে করে। হে আমাদের পালনকর্তা, যদি আমরা ভুলে যাই কিংবা ভুল করি, তবে আমাদেরকে অপরাধী করো না। হে আমাদের পালনকর্তা! এবং আমাদের উপর এমন দায়িত্ব অর্পণ করো না, যেমন আমাদের পূর্ববর্তীদের উপর অর্পণ করেছ, হে আমাদের প্রভূ! এবং আমাদের দ্বারা ঐ বোঝা বহন করিও না, যা বহন করার শক্তি আমাদের নাই। আমাদের পাপ মোচন কর। আমাদেরকে ক্ষমা কর এবং আমাদের প্রতি দয়া কর। তুমিই আমাদের প্রভু। সুতরাং কাফের সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে আমাদের কে সাহায্যে কর।
 
On no soul doth Allah Place a burden greater than it can bear. It gets every good that it earns, and it suffers every ill that it earns. (Pray:) “Our Lord! Condemn us not if we forget or fall into error; our Lord! Lay not on us a burden Like that which Thou didst lay on those before us; Our Lord! Lay not on us a burden greater than we have strength to bear. Blot out our sins, and grant us forgiveness. Have mercy on us. Thou art our Protector; Help us against those who stand against faith.”

 

৬। সুরা আলে-ইমরান ১৮-১৯

১৮/شَهِدَ اللّهُ أَنَّهُ لاَ إِلَـهَ إِلاَّ هُوَ وَالْمَلاَئِكَةُ وَأُوْلُواْ الْعِلْمِ قَآئِمَاً بِالْقِسْطِ لاَ إِلَـهَ إِلاَّ هُوَ الْعَزِيزُ الْحَكِيمُ    

অর্থাৎ;-আল্লাহ সাক্ষ্য দেন যে, তিনি ছাড়া আর কোন উপাস্য নেই, ফেরেশ্তা ও জ্ঞানী বর্গও, আল্লাহ ন্যায়নীতিতে প্রতিষ্ঠীত, তিনি ছাড়া আর কোন উপাস্য নেই, তিনি পরাক্রম শালী প্রজ্ঞাময়।   এ আয়াতে, ‘উলুল ইলম’ বা জ্ঞ্যানবান গনও ফেরেশ্তাদের মত আল্লাহর ন্যায় নীতির প্রতি বিশ্বাস রাখেন, বলা হয়েছে।এই জ্ঞ্যানবান তারাই যাদের কথা আমরা সুরা বাক্বারার ১৬৪ আয়াত(আয়াতুল আয়াত) আল্লাহর নিদর্শনের আয়াতে পড়ে এসেছি। পৃথিবী ব্যাপী আল্লাহর নিদর্শন প্রত্যক্ষ করেই তারা চিনতে পারেন তার অদৃশ্য কারিগর কে। তাদের ল্যাবরেটরিতে রিসার্চ লাগেনা, লাগেনা ডক্টরেট ডিগ্রী অর্জন।

১৯/إِنَّ الدِّينَ عِندَ اللّهِ الإِسْلاَمُ وَمَا اخْتَلَفَ الَّذِينَ أُوْتُواْ الْكِتَابَ إِلاَّ مِن بَعْدِ مَا جَاءهُمُ الْعِلْمُ بَغْيًا بَيْنَهُمْ وَمَن يَكْفُرْ بِآيَاتِ اللّهِ فَإِنَّ اللّهِ سَرِيعُ الْحِسَابِ অর্থাৎ;-নিঃসন্দেহে আল্লাহর নিকট গ্রহনযোগ্য দ্বীন এক মাত্র ইসলাম, এবং যাদের প্রতি কিতাব দেওয়া হয়েছে, তাদের নিকট প্রকৃত জ্ঞান আসার পরও যারা মত বিরোধে লিপ্ত রয়েছে, শুধু মাত্র পরষ্পর বিদ্বেষ বশতঃ যারা আল্লাহর নিদর্শন সমুহের প্রতি কুফরী করে, তাদের জানা উচিত যে, নিশ্চিত রূপে আল্লাহ হিসাব গ্রহনে অত্যন্ত দ্রুত।

 

৭। সুরা আ’রাফ ৫৪-৫৬

إِنَّ رَبَّكُمُ اللّهُ الَّذِي خَلَقَ السَّمَاوَاتِ وَالأَرْضَ فِي سِتَّةِ أَيَّامٍ ثُمَّ اسْتَوَى عَلَى الْعَرْشِ يُغْشِي اللَّيْلَ النَّهَارَ يَطْلُبُهُ حَثِيثًا وَالشَّمْسَ وَالْقَمَرَ وَالنُّجُومَ مُسَخَّرَاتٍ بِأَمْرِهِ أَلاَ لَهُ الْخَلْقُ وَالأَمْرُ تَبَارَكَ اللّهُ رَبُّ الْعَالَمِينَ
 
নিশ্চয় তোমাদের প্রতিপালক আল্লাহ। তিনি নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলকে ছয় দিনে সৃষ্টি করেছেন। অতঃপর আরশের উপর অধিষ্টিত হয়েছেন। তিনি পরিয়ে দেন রাতের উপর দিনকে এমতাবস্থায় যে, দিন দৌড়ে রাতের পিছনে আসে। তিনি সৃষ্টি করেছেন সূর্য, চন্দ্র ও নক্ষত্র দৌড় স্বীয় আদেশের অনুগামী। শুনে রেখ, তাঁরই কাজ সৃষ্টি করা এবং আদেশ দান করা। আল্লাহ, বরকতময় যিনি বিশ্বজগতের প্রতিপালক। [ সুরা আরাফ ৭:৫৪ ]
 
ادْعُواْ رَبَّكُمْ تَضَرُّعًا وَخُفْيَةً إِنَّهُ لاَ يُحِبُّ الْمُعْتَدِينَ
 
তোমরা স্বীয় প্রতিপালককে ডাক, কাকুতি-মিনতি করে এবং সংগোপনে। তিনি সীমা অতিক্রমকারীদেরকে পছন্দ করেন না। [ সুরা আরাফ ৭:৫৫ ]
 
وَلاَ تُفْسِدُواْ فِي الأَرْضِ بَعْدَ إِصْلاَحِهَا وَادْعُوهُ خَوْفًا وَطَمَعًا إِنَّ رَحْمَتَ اللّهِ قَرِيبٌ مِّنَ الْمُحْسِنِينَ
 
পৃথিবীকে কুসংস্কারমুক্ত ও ঠিক করার পর তাতে অনর্থ সৃষ্টি করো না। তাঁকে আহবান কর ভয় ও আশা সহকারে। নিশ্চয় আল্লাহর করুণা সৎকর্মশীলদের নিকটবর্তী। [ সুরা আরাফ ৭:৫৬ ]

৮। সুরা মুমিনুন ১১৫-১১৮

(115
أَفَحَسِبْتُمْ أَنَّمَا خَلَقْنَاكُمْ عَبَثًا وَأَنَّكُمْ إِلَيْنَا لَا تُرْجَعُونَ
তোমরা কি ধারণা কর যে, আমি তোমাদেরকে অনর্থক সৃষ্টি করেছি এবং তোমরা আমার কাছে ফিরে আসবে না?
“Did ye then think that We had created you in jest, and that ye would not be brought back to Us (for account)?”
(116
فَتَعَالَى اللَّهُ الْمَلِكُ الْحَقُّ لَا إِلَهَ إِلَّا هُوَ رَبُّ الْعَرْشِ الْكَرِيمِ
অতএব শীর্ষ মহিমায় আল্লাহ, তিনি সত্যিকার মালিক, তিনি ব্যতীত কোন মাবুদ নেই। তিনি সম্মানিত আরশের মালিক।
Therefore exalted be Allah, the King, the Reality: there is no god but He, the Lord of the Throne of Honour!
(117
وَمَن يَدْعُ مَعَ اللَّهِ إِلَهًا آخَرَ لَا بُرْهَانَ لَهُ بِهِ فَإِنَّمَا حِسَابُهُ عِندَ رَبِّهِ إِنَّهُ لَا يُفْلِحُ الْكَافِرُونَ
যে কেউ আল্লাহর সাথে অন্য উপাস্যকে ডাকে, তার কাছে যার সনদ নেই, তার হিসাব তার পালণকর্তার কাছে আছে। নিশ্চয় কাফেররা সফলকাম হবে না।
If anyone invokes, besides Allah, Any other god, he has no authority therefor; and his reckoning will be only with his Lord! and verily the Unbelievers will fail to win through!
(118
وَقُل رَّبِّ اغْفِرْ وَارْحَمْ وَأَنتَ خَيْرُ الرَّاحِمِينَ
বলূনঃ হে আমার পালনকর্তা, ক্ষমা করুন ও রহম করুন। রহমকারীদের মধ্যে আপনি শ্রেষ্ট রহমকারী।
So say: “O my Lord! grant Thou forgiveness and mercy for Thou art the Best of those who show mercy!”

৯। সুরা সফফাত ১-১০

وَالصَّافَّاتِ صَفًّا ( 1 ) সা-দ - Ayaa 1
শপথ তাদের যারা সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়ানো,
فَالزَّاجِرَاتِ زَجْرًا ( 2 ) সা-দ - Ayaa 2
অতঃপর ধমকিয়ে ভীতি প্রদর্শনকারীদের,
فَالتَّالِيَاتِ ذِكْرًا ( 3 ) সা-দ - Ayaa 3
অতঃপর মুখস্থ আবৃত্তিকারীদের-
إِنَّ إِلَٰهَكُمْ لَوَاحِدٌ ( 4 ) সা-দ - Ayaa 4
নিশ্চয় তোমাদের মাবুদ এক।
رَّبُّ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ وَمَا بَيْنَهُمَا وَرَبُّ الْمَشَارِقِ ( 5 ) সা-দ - Ayaa 5
তিনি আসমান সমূহ, যমীনও এতদুভয়ের মধ্যবর্তী সবকিছুর পালনকর্তা এবং পালনকর্তা উদয়াচলসমূহের।
إِنَّا زَيَّنَّا السَّمَاءَ الدُّنْيَا بِزِينَةٍ الْكَوَاكِبِ ( 6 ) সা-দ - Ayaa 6
নিশ্চয় আমি নিকটবর্তী আকাশকে তারকারাজির দ্বারা সুশোভিত করেছি।
وَحِفْظًا مِّن كُلِّ شَيْطَانٍ مَّارِدٍ ( 7 ) সা-দ - Ayaa 7
এবং তাকে সংরক্ষিত করেছি প্রত্যেক অবাধ্য শয়তান থেকে।
لَّا يَسَّمَّعُونَ إِلَى الْمَلَإِ الْأَعْلَىٰ وَيُقْذَفُونَ مِن كُلِّ جَانِبٍ ( 8 ) সা-দ - Ayaa 8
ওরা উর্ধ্ব জগতের কোন কিছু শ্রবণ করতে পারে না এবং চার দিক থেকে তাদের প্রতি উল্কা নিক্ষেপ করা হয়।
دُحُورًا وَلَهُمْ عَذَابٌ وَاصِبٌ ( 9 ) সা-দ - Ayaa 9
ওদেরকে বিতাড়নের উদ্দেশে। ওদের জন্যে রয়েছে বিরামহীন শাস্তি।
إِلَّا مَنْ خَطِفَ الْخَطْفَةَ فَأَتْبَعَهُ شِهَابٌ ثَاقِبٌ ( 10 ) সা-দ - Ayaa 10
তবে কেউ ছোঁ মেরে কিছু শুনে ফেললে জ্বলন্ত উল্কাপিন্ড তার পশ্চাদ্ধাবন করে।
 
১০। সুরা আহকাফ ২৯-৩২
 
(29
وَإِذْ صَرَفْنَا إِلَيْكَ نَفَرًا مِّنَ الْجِنِّ يَسْتَمِعُونَ الْقُرْآنَ فَلَمَّا حَضَرُوهُ قَالُوا أَنصِتُوا فَلَمَّا قُضِيَ وَلَّوْا إِلَى قَوْمِهِم مُّنذِرِينَ
 
যখন আমি একদল জিনকে আপনার প্রতি আকৃষ্ট করেছিলাম, তারা কোরআন পাঠ শুনছিল,। তারা যখন কোরআন পাঠের জায়গায় উপস্থিত হল, তখন পরস্পর বলল, চুপ থাক। অতঃপর যখন পাঠ সমাপ্ত হল, তখন তারা তাদের সম্প্রদায়ের কাছে সতর্ককারীরূপে ফিরে গেল।
Behold, We turned towards thee a company of Jinns (quietly) listening to the Qur’an: when they stood in the presence thereof, they said, “Listen in silence!” When the (reading) was finished, they returned to their people, to warn (them of their sins).
(30
قَالُوا يَا قَوْمَنَا إِنَّا سَمِعْنَا كِتَابًا أُنزِلَ مِن بَعْدِ مُوسَى مُصَدِّقًا لِّمَا بَيْنَ يَدَيْهِ يَهْدِي إِلَى الْحَقِّ وَإِلَى طَرِيقٍ مُّسْتَقِيمٍ
 
তারা বলল, হে আমাদের সম্প্রদায়, আমরা এমন এক কিতাব শুনেছি, যা মূসার পর অবর্তীণ হয়েছে। এ কিতাব পূর্ববর্তী সব কিতাবের প্রত্যায়ন করে, সত্যধর্ম ও সরলপথের দিকে পরিচালিত করে।
They said, “O our people! We have heard a Book revealed after Moses, confirming what came before it: it guides (men) to the Truth and to a Straight Path.
(31
يَا قَوْمَنَا أَجِيبُوا دَاعِيَ اللَّهِ وَآمِنُوا بِهِ يَغْفِرْ لَكُم مِّن ذُنُوبِكُمْ وَيُجِرْكُم مِّنْ عَذَابٍ أَلِيمٍ
 
হে আমাদের সম্প্রদায়, তোমরা আল্লাহর দিকে আহবানকারীর কথা মান্য কর এবং তাঁর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন কর। তিনি তোমাদের গোনাহ মার্জনা করবেন।
“O our people, hearken to the one who invites (you) to Allah, and believe in him: He will forgive you your faults, and deliver you from a Penalty Grievous.
(32
وَمَن لَّا يُجِبْ دَاعِيَ اللَّهِ فَلَيْسَ بِمُعْجِزٍ فِي الْأَرْضِ وَلَيْسَ لَهُ مِن دُونِهِ أَولِيَاء أُوْلَئِكَ فِي ضَلَالٍ مُّبِينٍ
 
আর যে ব্যক্তি আল্লাহর দিকে আহবানকারীর কথা মানবে না, সে পৃথিবীতে আল্লাহকে অপারক করতে পারবে না এবং আল্লাহ ব্যতীত তার কোন সাহায্যকারী থাকবে না। এ ধরনের লোকই প্রকাশ্য পথভ্রষ্টতায় লিপ্ত।
“If any does not hearken to the one who invites (us) to Allah, he cannot frustrate ((Allah)’s Plan) on earth, and no protectors can he have besides Allah. such men (wander) in manifest error.”

১১। সুরা আর-রহমান ৩৩-৩৬

يَا مَعْشَرَ الْجِنِّ وَالْإِنسِ إِنِ اسْتَطَعْتُمْ أَن تَنفُذُوا مِنْ أَقْطَارِ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ فَانفُذُوا لَا تَنفُذُونَ إِلَّا بِسُلْطَانٍ ( 33 ) আল-ওয়াকিয়াহ - Ayaa 33
হে জিন ও মানবকূল, নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলের প্রান্ত অতিক্রম করা যদি তোমাদের সাধ্যে কুলায়, তবে অতিক্রম কর। কিন্তু ছাড়পত্র ব্যতীত তোমরা তা অতিক্রম করতে পারবে না।
فَبِأَيِّ آلَاءِ رَبِّكُمَا تُكَذِّبَانِ ( 34 ) আল-ওয়াকিয়াহ - Ayaa 34
অতএব, তোমরা উভয়ে তোমাদের পালনকর্তার কোন কোন অবদানকে অস্বীকার করবে?
يُرْسَلُ عَلَيْكُمَا شُوَاظٌ مِّن نَّارٍ وَنُحَاسٌ فَلَا تَنتَصِرَانِ ( 35 ) আল-ওয়াকিয়াহ - Ayaa 35
ছাড়া হবে তোমাদের প্রতি অগ্নিস্ফুলিঙ্গ ও ধুম্রকুঞ্জ তখন তোমরা সেসব প্রতিহত করতে পারবে না।
فَبِأَيِّ آلَاءِ رَبِّكُمَا تُكَذِّبَانِ ( 36 ) আল-ওয়াকিয়াহ - Ayaa 36
অতএব, তোমরা উভয়ে তোমাদের পালনকর্তার কোন কোন অবদানকে অস্বীকার করবে?

১২। সুরা হাশর ২১-২৪

সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াত- هُوَ اللَّهُ الَّذِي لَا إِلَهَ إِلَّا هُوَ عَالِمُ الْغَيْبِ وَالشَّهَادَةِ هُوَ الرَّحْمَنُ الرَّحِيمُ. هُوَ اللَّهُ الَّذِي لَا إِلَهَ إِلَّا هُوَ الْمَلِكُ الْقُدُّوسُ السَّلَامُ الْمُؤْمِنُ الْمُهَيْمِنُ الْعَزِيزُ الْجَبَّارُ الْمُتَكَبِّرُ سُبْحَانَ اللَّهِ عَمَّا يُشْرِكُون. هُوَ اللَّهُ الْخَالِقُ الْبَارِئُ الْمُصَوِّرُ لَهُ الْأَسْمَاء الْحُسْنَى يُسَبِّحُ لَهُ مَا فِي السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ وَهُوَ الْعَزِيزُ الْحَكِيمُ

অর্থঃ তিনিই আল্লাহ তা’আলা, তিনি ব্যতীত কোন উপাস্য নেই; তিনি দৃশ্য ও অদৃশ্যকে জানেন তিনি পরম দয়ালু, অসীম দাতা। তিনিই আল্লাহ তিনি ব্যতিত কোন উপাস্য নেই। তিনিই একমাত্র মালিক, পবিত্র, শান্তি ও নিরাপত্তাদাতা, আশ্রয়দাতা, পরাক্রান্ত, প্রতাপান্বিত, মাহাত্নøশীল। তারা যাকে অংশীদার করে আল্লাহ তা’ আলা তা থেকে পবিত্র। তিনিই আল্লাহ তা’আলা, স্রষ্টা, উদ্ভাবক, রূপদাতা, উত্তম নাম সমূহ তাঁরই। নভোমন্ডলে ও ভূমন্ডলে যা কিছু আছে, সবই তাঁর পবিত্রতা ঘোষণা করে। তিনি পরাক্রান্ত প্রজ্ঞাময়। এমএফ/

১৩। সুরা জ্বিন ১-৯

1
قُلْ أُوحِيَ إِلَيَّ أَنَّهُ اسْتَمَعَ نَفَرٌ مِّنَ الْجِنِّ فَقَالُوا إِنَّا سَمِعْنَا قُرْآنًا عَجَبًا
 
বলুনঃ আমার প্রতি ওহী নাযিল করা হয়েছে যে, জিনদের একটি দল কোরআন শ্রবণ করেছে, অতঃপর তারা বলেছেঃ আমরা বিস্ময়কর কোরআন শ্রবণ করেছি;
Say: It has been revealed to me that a company of Jinns listened (to the Qur’an). They said, ‘We have really heard a wonderful Recital!
(2
يَهْدِي إِلَى الرُّشْدِ فَآمَنَّا بِهِ وَلَن نُّشْرِكَ بِرَبِّنَا أَحَدًا
 
যা সৎপথ প্রদর্শন করে। ফলে আমরা তাতে বিশ্বাস স্থাপন করেছি। আমরা কখনও আমাদের পালনকর্তার সাথে কাউকে শরীক করব না।
‘It gives guidance to the Right, and we have believed therein: we shall not join (in worship) any (gods) with our Lord.
(3
وَأَنَّهُ تَعَالَى جَدُّ رَبِّنَا مَا اتَّخَذَ صَاحِبَةً وَلَا وَلَدًا
 
এবং আরও বিশ্বাস করি যে, আমাদের পালনকর্তার মহান মর্যাদা সবার উর্ধ্বে। তিনি কোন পত্নী গ্রহণ করেননি এবং তাঁর কোন সন্তান নেই।
‘And Exalted is the Majesty of our Lord: He has taken neither a wife nor a son.
(4
وَأَنَّهُ كَانَ يَقُولُ سَفِيهُنَا عَلَى اللَّهِ شَطَطًا
 
আমাদের মধ্যে নির্বোধেরা আল্লাহ তা’আলা সম্পর্কে বাড়াবাড়ির কথাবার্তা বলত।
‘There were some foolish ones among us, who used to utter extravagant lies against Allah.
(5
وَأَنَّا ظَنَنَّا أَن لَّن تَقُولَ الْإِنسُ وَالْجِنُّ عَلَى اللَّهِ كَذِبًا
 
অথচ আমরা মনে করতাম, মানুষ ও জিন কখনও আল্লাহ তা’আলা সম্পর্কে মিথ্যা বলতে পারে না।
‘But we do think that no man or spirit should say aught that untrue against Allah.
(6
وَأَنَّهُ كَانَ رِجَالٌ مِّنَ الْإِنسِ يَعُوذُونَ بِرِجَالٍ مِّنَ الْجِنِّ فَزَادُوهُمْ رَهَقًا
 
অনেক মানুষ অনেক জিনের আশ্রয় নিত, ফলে তারা জিনদের আত্নম্ভরিতা বাড়িয়ে দিত।
‘True, there were persons among mankind who took shelter with persons among the Jinns, but they increased them in folly.
(7
وَأَنَّهُمْ ظَنُّوا كَمَا ظَنَنتُمْ أَن لَّن يَبْعَثَ اللَّهُ أَحَدًا
 
তারা ধারণা করত, যেমন তোমরা মানবেরা ধারণা কর যে, মৃত্যুর পর আল্লাহ তা’আলা কখনও কাউকে পুনরুত্থিত করবেন না।
‘And they (came to) think as ye thought, that Allah would not raise up any one (to Judgment).
(8
وَأَنَّا لَمَسْنَا السَّمَاء فَوَجَدْنَاهَا مُلِئَتْ حَرَسًا شَدِيدًا وَشُهُبًا
 
আমরা আকাশ পর্যবেক্ষণ করছি, অতঃপর দেখতে পেয়েছি যে, কঠোর প্রহরী ও উল্কাপিন্ড দ্বারা আকাশ পরিপূর্ণ।
‘And we pried into the secrets of heaven; but we found it filled with stern guards and flaming fires.
(9
وَأَنَّا كُنَّا نَقْعُدُ مِنْهَا مَقَاعِدَ لِلسَّمْعِ فَمَن يَسْتَمِعِ الْآنَ يَجِدْ لَهُ شِهَابًا رَّصَدًا
 
আমরা আকাশের বিভিন্ন ঘাঁটিতে সংবাদ শ্রবণার্থে বসতাম। এখন কেউ সংবাদ শুনতে চাইলে সে জলন্ত উল্কাপিন্ড ওঁৎ পেতে থাকতে দেখে।
‘We used, indeed, to sit there in (hidden) stations, to (steal) a hearing; but any who listen now will find a flaming fire watching him in ambush.

১৪। সুরা ইখলাস

১৫। সুরা ফালাক

১৬। সুরা নাস — তবে চাইলে সবগুলো আয়াতও পড়তে পারেন, সমস্যা নেই। আয়াতগুলো একসাথে পিডিএফ করে আমি আপলোড করে দিচ্ছি। ই-বুকের শেষে গত পর্বের দু’আগুলোও রয়েছে – লিংকঃ https://ruqyahbd.org/pdf — . পুরুষ হলে মাথায় হাত রেখে পড়বেন, গাইরে মাহরাম মহিলা হলে এমনিই জোর আওয়াজে পড়বেন। গাইরে মাহরামকে স্পর্শ করা হারাম। সম্পূর্ণ জিনে ধরা রুগীর ক্ষেত্রে সাধারণত শুয়ে থাকে, তখন রুগীর দুই হাত বুকের ওপর চেপে ধরে, অথবা মাথা চেপে ধরে কোরআন পড়তে পারেন। আর বেশ ছটফট করলে অন্য কাউকে ধরতে বলুন, আর একপার্শে বসে তিলাওয়াত করুন। . মোটকথা, রুগীকে ধরে রেখে আয়াতগুলো তিলাওয়াত করবেন, তাহলে ইফেক্ট বেশি হবে। নাহলে অন্তত রুগীর কাছে বসে জোর আওয়াজে পড়বেন। এই রুকইয়ার প্রভাবে হয়তো শরীর থেকে জ্বিন চলে যাবে, অথবা শরীরে লুকিয়ে থাকলে কথা বলে উঠবে। যদি কোনও অঙ্গে লুকিয়ে থাকে, তখনও এটা সহ্য করতে পারবে না, জেগে উঠবে। তবে তিলাওয়াত করার সময় আপনি নিয়াত করবেন “যেন শরীর থেকে জ্বিন চলে যায়”। কেননা, রাসূল সা. বলেছেন-

শত্রুর সাথে সাক্ষাতের আশা করো না। (বুখারী) এজন্য জ্বিন বিদায় হওয়ার নিয়াত রাখবেন। . যাহোক, এগুলো পড়ার পর রুগীর মাঝে কিছু লক্ষণ খেয়াল করুন,

১. হাত দিয়ে চোখ মুখ ঢাকতে চেষ্টা করছে কিনা।

২. অথবা যদি খুব জোরে কেঁপে ওঠে।

৩. অথবা যদি চিৎকার দিয়ে ওঠে।

৪. কিংবা যদি ওর নাম ঠিকানা বলতে শুরু করে !! এসব দেখলে বুঝবেন, জ্বিন আছে ভেতরে। কথা বলবে কিছুক্ষণের ভেতরেই। আপনি ভীত হবেন না, মনে মনে আল্লাহর কাছে দু’আ করুন।

 

Islami Dawah Center Cover photo

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টারকে সচল রাখতে সাহায্য করুন!

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টার ১টি অলাভজনক দাওয়াহ প্রতিষ্ঠান, এই প্রতিষ্ঠানের ইসলামিক ব্লগটি বর্তমানে ২০,০০০+ মানুষ প্রতিমাসে পড়ে, দিন দিন আরো অনেক বেশি বেড়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

বর্তমানে মাদরাসা এবং ব্লগ প্রজেক্টের বিভিন্ন খাতে (ওয়েবসাইট হোস্টিং, CDN,কনটেন্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং, ব্লগ পোস্টিং, ডিজাইন এবং মার্কেটিং) মাসে গড়ে ৫০,০০০+ টাকা খরচ হয়, যা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সেকারনে, এই বিশাল ধর্মীয় কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে সর্বপ্রথম আল্লাহর কাছে আপনাদের দোয়া এবং আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন, এমন কিছু ভাই ও বোন ( ৩১৩ জন ) দরকার, যারা আইডিসিকে নির্দিষ্ট অংকের সাহায্য করবেন, তাহলে এই পথ চলা অনেক সহজ হয়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

যারা এককালিন, মাসিক অথবা বাৎসরিক সাহায্য করবেন, তারা আইডিসির মুল টিমের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবেন, ইংশাআল্লাহ।

আইডিসির ঠিকানাঃ খঃ ৬৫/৫, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা -১২১২, মোবাইলঃ +88 01609 820 094, +88 01716 988 953 ( নগদ/বিকাশ পার্সোনাল )

ইমেলঃ info@islamidawahcenter.com, info@idcmadrasah.com, ওয়েব: www.islamidawahcenter.com, www.idcmadrasah.com সার্বিক তত্ত্বাবধানেঃ হাঃ মুফতি মাহবুব ওসমানী ( এম. এ. ইন ইংলিশ, ফার্স্ট ক্লাস )

 

 

এরপর জ্বিনকে বেসিক কিছু প্রশ্ন করুন

১. নাম কি? ধর্ম কি?

২. কেন এর ওপর আসর করেছ?

৩. তোমার সাথে এখানে কি আর কেউ আছে?

৪. কোনও যাদুকরের জন্য কাজ করো নাকি?

৫. শরীরের কোন অঙ্গে ঢুঁকে ছিলে? এসব কথা শুনে মোটামুটি বুঝতে পারবেন অবস্থা, এরপর আপনার জন্য সবচেয়ে ভালো হবে বুঝিয়ে সমঝিয়ে শরীর থেকে বিদায় করা। .

জ্বিন যদি মুসলমান হয়: তাহলে তাকে তারগিব-তারহিব এর মাধ্যমে বুঝাতে চেষ্টা করুন। মানে আখিরাতের আযাবের কথা বলে সতর্ক করুন, জান্নাতের পুরষ্কার মনে করিয়ে দিন। যে কোনও মুসলমানকে কষ্ট দিতে আল্লাহ নিষেধ করেছেন। (সুরা আহযাব ৫৮) কাউকে অহেতুক কষ্ট দেয়া উচিত না। চলে গেলে আল্লাহ প্রতিদান দিবেন। আচ্ছা আসর করার কারণ বুঝে উপদেশ দিতে পারেন। যেমন, যদি বিশেষ কোনও উদ্দেশ্যে আসর করে। (যেমন: পরি আসর করেছে পছন্দ করে তাই) এরকম ক্ষেত্রে বুঝাতে চেষ্টা করুন যে, এটা জায়েজ হচ্ছে না। ইসলাম এটার অনুমতি দেয় না। যদি কোনও কারণ ছাড়া হুদাই আসর করে, তাহলে বুঝান যে এটা উচিত হচ্ছেনা। এতো তোমাকে কক্ষনো কষ্ট দেয়নি, তোমার কোনও ক্ষতি করেনি, তুমি কেন একে কষ্ট দিবে। হ্যানত্যান বুঝাইয়া যাওয়ার জন্য রাজি করান। যদি ভুলে কিছু করার জন্য (যেমন, জ্বিনের গায়ে গরম পানি ফেলেছে, প্রসাব করেছে) এরকম কিছু হলে বুঝান। সে তোমাকে দেখতে পায়নি, অনিচ্ছাকৃত ভাবে করেছে এটা। দেখতে পেলে কখনই এমন করতো না। তোমার উচিত হবে একে ছেড়ে দেয়া। যাহোক, চলে যাওয়ার ব্যাপারে রাজি হলে, নিচের কথাগুলো ওয়াদা করান- “আমি আল্লাহর নাম শপথ করছি, এখন এই শরীর থেকে চলে যাবো। আর কখনো আসবো না। পরবর্তীতে আর কোনও মুসলমানের ওপর আসর করবো না। এই ওয়াদা ভঙ্গ করলে আমার ওপর আল্লাহর লানত। আমি যা বললাম এব্যাপারে আল্লাহ সাক্ষী।” এরপর জিজ্ঞেস করুন কোন দিক দিয়ে বের হবে, সে বলতে পারে চোখ, পেট, বুক অথবা মাথার দিক দিয়ে বের হবে, কিন্তু আপনি তাঁকে মুখ, নাক, কান, হাত অথবা পা দিয়ে বের হতে বলুন। জ্বিন চলে যাওয়ার পর, আবার রুগীর ওপর রুকইয়ার আয়াতগুলো পড়ে যাচাই করুন, আসলেই গেছে কি না। কারণ, জ্বিনেরা খুব বেশি মিথ্যা বলে। .

জ্বিন যদি অমুসলিম হয়.. জ্বিন অমুসলিম হলে, প্রথমে তাকে ইসলামের সৌন্দর্য বর্ণনা করুন, ইসলাম গ্রহণ করার প্রস্তাব রাখুন।জেনে রাখা ভালো, অধিকাংশ ক্ষেত্রে জ্বিনেরা সহজেই ইসলাম গ্রহণ করে নেয়। যদি কোনোভাবে ইসলাম কবুল করাতে পারেন, তাহলে আল্লাহ আপনাকেনাকে অনেক প্রতিদান দিবে। যদি ইসলাম কবুল করে, তাহলে আলহামদুলিল্লাহ! এরপর ভালোভাবে বুঝান যে, রুগীর কষ্ট হচ্ছে, কোনও ব্যক্তিকে অন্যায়ভাবে কষ্ট দেয়া উচিত না। উপরের পয়েন্টটাই ফলো করুন। আর আল্লাহ না করুক, ইসলাম গ্রহণে অস্বীকৃতি জানালে বাধ্য করা যাবে না। তাঁকে ভবিষ্যতে এব্যাপারে আরো ভেবে দেখতে পরামর্শ দিবেন। এরপর শরীর থেকে চলে যেতে আদেশ করুন, বলুন রুগীর কষ্ট হচ্ছে। এটা ঠিক না। চলে গেলে তো আলহামদুলিল্লাহ্‌! ওয়াদা নিয়ে ছেড়ে দিন। .

আপোষে না যেতে চাইলে.. কবি বলেন “..আপোষে না গেলে জোর করিয়া!!!” অতএব, ভালোয় ভালো কথা না শুনলে জোর করে তাড়াতে হবে। তবে এখানে লক্ষণীয় হচ্ছে, এব্যাপারে পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকলে মারতে যাবেন না। বিশেষতঃ রুগী বাচ্চা হলে চেষ্টা করবেন যেন ভালোয় ভালো বিদায় করাতে। অনেক জ্বিন আছে, মারার আগেই বের হয়ে যায়, মারা শেষে আবার আসে! অর্থাৎ মাইর পুরোটা রুগীর গায়ে লাগে। এজন্য এব্যাপারে সাবধান! তো আপনি প্রথমে তাঁকে সতর্ক করুন, যে চলে যাও নয়তো তোমাকে কোরআন আয়াত দিয়ে শাস্তি দেয়া হবে, আর আখিরাতেও তুমি জাহান্নামে যাবে। .

যদি না শোনে এবার থার্ড ডিগ্রীতে চলুন- আয়াতুল কুরসি, সুরা ইয়াসিন, সফফাত, দুখান, সুরা জ্বিন, হাশরের শেষ ৩ আয়াত, সুরা হুমাযাহ, সুরা আ’লা এসব এবং এরকম আরো যেসব আয়াতে জাহান্নাম, শয়তান অথবা অন্যান্য আযাবের কথা আছে এসব পড়ুন, আর ফু দিন। পড়ার সময় মাথায় হাত রেখে পড়লে বেশি ভালো। এসব আয়াতের কারণে জ্বিন কষ্ট পাবে, এবং চলে যাবে, ইনশাআল্লাহ! বিরল কিছু ক্ষেত্রে জ্বিন জেতে চায়না, সেক্ষেত্রে

উপরের আয়াতগুলো পড়ে আঘাত করা যেতে পারে, তবে পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকলে এদিকে যাওয়া ঠিক হবে না। খেয়াল রাখবেন, মানুষকে অন্যায়ভাবে কষ্ট দেয়া যেমন হারাম, জ্বিনকে অহেতুক কষ্ট দেয়া হত্যা করাও সমান পাপ। অতএব, কোন প্রকার জুলুম যেন না হয় সতর্ক থাকবেন, নয়তো পরে আপনি বিপদে পড়লে কিছু করার থাকবে না। – যাহোক, সংক্ষেপে এই হচ্ছে জ্বিন তাড়ানোর পদ্ধতি। মূল কথা হচ্ছে, আপনি উত্তেজিত না হয়ে, যদি ভালোয় ভালো রাজি করতে পারেন, ইসলাহি কথা বলে, সতর্ক করে, কিংবা পাম-পট্টি দিয়ে.. তাহলে আশা করা যায় ব্যাপারটা খুব সহজেই সমাধা করতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আরো কিছু সিচুয়েশন ক্রিয়েট হতে পারে। সামনের পর্বে এবিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ অনেকগুলো পয়েন্ট বলা হবে, সাথে কিছু এক্সাম্পল দেয়া হবে। ইনশাআল্লাহ! সেগুলো অবশ্যই খেয়াল রাখবেন।  

 

জ্বিনের স্পর্শ (৭) ট্রিটমেন্টসহ গুরুত্বপূর্ণ কিছু পয়েন্টঃ

 

—- আগের পর্বে আমরা জ্বিন আক্রান্ত রুগীর চিকিৎসার শরিয়ত সম্মত পদ্ধতি বর্ণনা করেছি, আজ যাদু-বানের বেসিক ট্রিটমেন্টসহ গুরুত্বপূর্ণ কিছু পয়েন্ট আলোচনা করা হবে। . জ্বিন তাড়ানোর সময় আপনি যেসব পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে পারেন… আমরা এখানে সম্ভাব্য কিছু অবস্থার আলোচনা করবো, বাদবাকি আল্লাহর নুসরত চেয়ে আপনার উপস্থিত বুদ্ধি দ্বারা সমাধান করতে হবে। . ১. জ্বিন তাড়ানোর জন্য প্রথমে রুকইয়াহ করার পর যদি রুগীর মাথা ঘুরায় দম বন্ধ হয়ে আসে, ঝটকা দিয়ে কেঁপে ওঠে কিন্তু.. কোনো জ্বিন কথা না বলে তাহলে তিনবার রুকইয়াহ করে দেখুন। তারপর চিকিৎসার পরে সেসব পরামর্শ দিতে হয় সেসব দিন, এবং সাথে প্রতিদিন সুরা বাকারা, সুরা ইয়াসিন, দুখান, জ্বিন তিলাওয়াত করতে বা শুনতে বলুন.. অন্তত একমাস। এরপর ফলাফল জানাতে বলুন। . ২. রুকইয়াহ করার পর কখনো অনেক চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করতে পারে। এক্ষেত্রে ভয় পাওয়া যাবে না, আপনি শান্ত থাকুন। এবং “সুরা নিসা ৭৬নং আয়াত

(76 الَّذِينَ آمَنُواْ يُقَاتِلُونَ فِي سَبِيلِ اللّهِ وَالَّذِينَ كَفَرُواْ يُقَاتِلُونَ فِي سَبِيلِ الطَّاغُوتِ فَقَاتِلُواْ أَوْلِيَاء الشَّيْطَانِ إِنَّ كَيْدَ الشَّيْطَانِ كَانَ ضَعِيفًا
 
যারা ঈমানদার তারা যে, জেহাদ করে আল্লাহর রাহেই। পক্ষান্তরে যারা কাফের তারা লড়াই করে শয়তানের পক্ষে সুতরাং তোমরা জেহাদ করতে থাক শয়তানের পক্ষালম্বনকারীদের বিরুদ্ধে, (দেখবে) শয়তানের চক্রান্ত একান্তই দুর্বল।
Those who believe fight in the cause of Allah, and those who reject Faith Fight in the cause of Evil: So fight ye against the friends of Satan: feeble indeed is the cunning of Satan.

সুরা আহযাবের ৬৮ নং আয়াত পড়তে থাকুন, আর ফুঁ দিতে থাকুন।” এতে সে আঘাত পাবে, আশা করা যায় থামবে…

68 رَبَّنَا آتِهِمْ ضِعْفَيْنِ مِنَ الْعَذَابِ وَالْعَنْهُمْ لَعْنًا كَبِيرًا
 
হে আমাদের পালনকর্তা! তাদেরকে দ্বিগুণ শাস্তি দিন এবং তাদেরকে মহা অভিসম্পাত করুন।
“Our Lord! Give them double Penalty and curse them with a very great Curse!”

৩. কখনো আপনি বেশ খারাপ আর ঘাড়ত্যাড়া জ্বিনের মুখোমুখি হতে পারেন। এক্ষেত্রে তাকে প্রথমে সাবধান করুন, হয় তুমি চলে যাও, নয়তো কোরআন এর আয়াত দিয়ে তোকে জ্বালিয়ে দিবো! তবুও কথা না শুনলে.. কিছু পানি নিন এবং সুরা ইয়াসিন, সুরা সফফাত, সুরা দুখান, সুরা জ্বিন পড়ে রুগীকে ফুঁ দিন.. সাথে পানিতেও ফুঁ দিন, এবং ওই পানি রুগিকে খাইয়ে দিন। বারবার আয়াতুল কুরসি পড়েও রুকইয়াহ করতে পারেন । এসবে জ্বিন খুব কষ্ট পায়! এরপর চলে যেতে নির্দেশ দিন.. বেশ কিছু ঘটনায় দেখা গেছে, জ্বিন যেতে চায়নি, এরপর সুরা আহযাব সহ্য করতে না পেরে মরে গেছে!! সুরা বাকারার ক্ষেত্রে অনেক আলেমের এমন অভিজ্ঞতা রয়েছে, বরং খারাপ জ্বিনের ক্ষেত্রে সুরা বাকারার রুকইয়া বেশি প্রসিদ্ধ। এজন্য প্রথমত: সুরা বাকারা সাজেস্টেড… .

৪. বাচ্চাদের রুকইয়ার ক্ষেত্রে সর্বদা তার স্বাচ্ছন্দের দিকে খেয়াল রাখবেন। প্রয়োজনে রুকইয়ার আগে তার সাথে কিছু সময় দিন, যেন সে আপনাকে স্বাভাবিকভাবে নিতে পারে। . Warning: রুকইয়ার সময় কখনওই বাচ্চাদের প্রহার করবেন না। . দ্রষ্টব্য: ইবনে তাইমিয়া রহ. সহ অনেকে অত্যাচারী জ্বিনকে হত্যা জায়েজ ফাতওয়া দিয়েছেন, আপনি আলেম হলে বদরুদ্দিন শিবলী হানাফী রহ. এর আকাম আল মারজান ফি গারাইবিল জান বইটিতে বিস্তারিত দেখতে পারেন। .

৫. কখনো কখনো জ্বিন আপনাকে রাগাতে চেষ্টা করবে, গালিগালাজ করবে.. তখন আপনাকে সবর করতে হবে, রাগান্বিত হওয়া যাবে না। কখনো হয়তো পাম দিবে, ‘আপনি অনেক ভালো মানুষ, বিরাট বুজুর্গ! আপনার কথা মেনে চলে যাচ্ছি.. ব্লা ব্লা” এসব শুনে ফুলার দরকার নাই! বরং বলুন আমি আল্লাহর সাধারণ একজন বান্দা, তুই আল্লাহর বিধান মেনে এখান থেকে ভাগ! .

৬. আপনি যদি জ্বিনকে জিজ্ঞেস না করে তাঁর ধর্ম জানতে চান, তবে রুগীর ওপর এই দুই আয়াত পড়ুন- সুরা মায়েদা ৭২,

(72 لَقَدْ كَفَرَ الَّذِينَ قَالُواْ إِنَّ اللّهَ هُوَ الْمَسِيحُ ابْنُ مَرْيَمَ وَقَالَ الْمَسِيحُ يَا بَنِي إِسْرَائِيلَ اعْبُدُواْ اللّهَ رَبِّي وَرَبَّكُمْ إِنَّهُ مَن يُشْرِكْ بِاللّهِ فَقَدْ حَرَّمَ اللّهُ عَلَيهِ الْجَنَّةَ وَمَأْوَاهُ النَّارُ وَمَا لِلظَّالِمِينَ مِنْ أَنصَارٍ
 
তারা কাফের, যারা বলে যে, মরিময়-তনয় মসীহ-ই আল্লাহ; অথচ মসীহ বলেন, হে বণী-ইসরাঈল, তোমরা আল্লাহর এবাদত কর, যিনি আমার পালন কর্তা এবং তোমাদেরও পালনকর্তা। নিশ্চয় যে ব্যক্তি আল্লাহর সাথে অংশীদার স্থির করে, আল্লাহ তার জন্যে জান্নাত হারাম করে দেন। এবং তার বাসস্থান হয় জাহান্নাম। অত্যাচারীদের কোন সাহায্যকারী নেই।
 
They do blaspheme who say: “(Allah) is Christ the son of Mary.” But said Christ: “O Children of Israel! worship Allah, my Lord, and your Lord.” Whoever joins other gods with Allah,- Allah will forbid him the garden, and the Fire will be his abode. There will for the wrong-doers be no one to help.

সুরা তাওবাহ ৩০

وَقَالَتِ الْيَهُودُ عُزَيْرٌ ابْنُ اللّهِ وَقَالَتْ النَّصَارَى الْمَسِيحُ ابْنُ اللّهِ ذَلِكَ قَوْلُهُم بِأَفْوَاهِهِمْ يُضَاهِؤُونَ قَوْلَ الَّذِينَ كَفَرُواْ مِن قَبْلُ قَاتَلَهُمُ اللّهُ أَنَّى يُؤْفَكُونَ
 
ইহুদীরা বলে ওযাইর আল্লাহর পুত্র এবং নাসারারা বলে ‘মসীহ আল্লাহর পুত্র’। এ হচ্ছে তাদের মুখের কথা। এরা পূর্ববর্তী কাফেরদের মত কথা বলে। আল্লাহ এদের ধ্বংস করুন, এরা কোন উল্টা পথে চলে যাচ্ছে।
 
The Jews call ‘Uzair a son of Allah, and the Christians call Christ the son of Allah. That is a saying from their mouth; (in this) they but imitate what the unbelievers of old used to say. Allah.s curse be on them: how they are deluded away from the Truth!

. ৭. কখনো জ্বিন চলে যেতে রাজি হয়, কিন্তু বের হতে পারে না। এক্ষেত্রে আপনার উচিত হবে তাকে সহায়তা করা। আপনি তখন তার কানে আযান দিন, এরপর সুরা ইয়াসিন পুরোটা পড়ুন, তারপর আবার আযান দিন… ইনশাআল্লাহ সে চলে যাবে। .

৮. কখনো জ্বিন কিছু শর্ত দেয়, এই করতে হবে সেই করতে হবে.. তাহলে চলে যাবো.. এক্ষেত্রে যদি সেটা ইসলাম সমর্থিত হয় যেমনঃ নামাজ-কালাম পড়তে হবে, পর্দা করতে হবে… এরকম কিছু হলে বলুন, আল্লাহর বিধান হিসেবে মানতে রাজি আছি। কিন্তু শরিয়ত পরিপন্থী কিছু হলে, কোনো পাপ কাজ হলে মানবেন না… বরং তাকে শাস্তি দিন এসব বলার জন্য। .

৯. মাঝে মাঝে জিনের কাছে ওয়াদা নেয়ার সময় পালিয়ে যায়। মানে যখন চলে যাবার জন্য ওয়াদাবদ্ধ হবে ঠিক তখনই পালায়, এমন হলে অনেকবার সূরাহ আর-রাহমানের ৩৩ থেকে ৩৬ এই চার আয়াত বারবার পড়ুন। সুরা আর-রহমান ৩৩-৩৬

يَا مَعْشَرَ الْجِنِّ وَالْإِنسِ إِنِ اسْتَطَعْتُمْ أَن تَنفُذُوا مِنْ أَقْطَارِ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ فَانفُذُوا لَا تَنفُذُونَ إِلَّا بِسُلْطَانٍ ( 33 ) আল-ওয়াকিয়াহ - Ayaa 33
হে জিন ও মানবকূল, নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলের প্রান্ত অতিক্রম করা যদি তোমাদের সাধ্যে কুলায়, তবে অতিক্রম কর। কিন্তু ছাড়পত্র ব্যতীত তোমরা তা অতিক্রম করতে পারবে না।
فَبِأَيِّ آلَاءِ رَبِّكُمَا تُكَذِّبَانِ ( 34 ) আল-ওয়াকিয়াহ - Ayaa 34
অতএব, তোমরা উভয়ে তোমাদের পালনকর্তার কোন কোন অবদানকে অস্বীকার করবে?
يُرْسَلُ عَلَيْكُمَا شُوَاظٌ مِّن نَّارٍ وَنُحَاسٌ فَلَا تَنتَصِرَانِ ( 35 ) আল-ওয়াকিয়াহ - Ayaa 35
ছাড়া হবে তোমাদের প্রতি অগ্নিস্ফুলিঙ্গ ও ধুম্রকুঞ্জ তখন তোমরা সেসব প্রতিহত করতে পারবে না।
فَبِأَيِّ آلَاءِ رَبِّكُمَا تُكَذِّبَانِ ( 36 ) আল-ওয়াকিয়াহ - Ayaa 36
অতএব, তোমরা উভয়ে তোমাদের পালনকর্তার কোন কোন অবদানকে অস্বীকার করবে?

. ১০. অনেক সময় জিন বুঝাবে সে ভিকটিমকে ছেড়ে চলে গেছে। অথচ সে এখনো ওই শরীরের মধ্যে আছে। এমনকি যখন কথা বলবে তখন ভিকটিমের মত করেই কথা বলবে। এই অবস্থায় কিভাবে বুঝবেন যে চলে গেছে না আছে? এমতাবস্থায় আপনি যদি রুগীর মাথায় হাত রাখেন তাহলে অস্বাভাবিক কাঁপুনি বুঝতে পারবেন, এছাড়াও যেসব যায়গায় হাত দিয়ে ডাক্তাররা পালস রেট চেক করে যেমন: হাত, শাহরগ ব্লা ব্লা… এসব যায়গায় হাত রাখলেও অস্বাভাবিক পাল্সরেট বুঝতে পারবেন, তখন আবার রুকইয়াহ করলে দেখবেন কথা বলতে শুরু করেছে। .

১১. জ্বিনের রুকইয়াহ করার সময় যদি রুগী কোনো কারণ ছাড়াই কাঁদতে লাগে, তাকে কাঁদা থামাতে বলুন। সে যদি এরকম বলে ‘আমি কন্ট্রোল করতে পারছি না.. এমনিতেই কান্না পাচ্ছে…’ তাহলে সম্ভবত তাঁকে যাদু করা হয়েছে। এবার “সুরা আ’রাফ ১১৭-১২২,

১১৭. وَأَوْحَيْنَا إِلَى مُوسَى أَنْ أَلْقِ عَصَاكَ فَإِذَا هِيَ تَلْقَفُ مَا يَأْفِكُونَ
 
তারপর আমি ওহীযোগে মূসাকে বললাম, এবার নিক্ষেপ কর তোমার লাঠিখানা। অতএব সঙ্গে সঙ্গে তাদের মিথ্যা যাদু কর্মগুলোকে তা গিলতে লাগল।
১১৮. فَوَقَعَ الْحَقُّ وَبَطَلَ مَا كَانُواْ يَعْمَلُونَ
 
সুতরাং এভাবে প্রকাশ হয়ে গেল সত্য বিষয় এবং মিথ্যা প্রতিপন্ন হয়ে গেল যা কিছু তারা করেছিল।
১১৯. فَغُلِبُواْ هُنَالِكَ وَانقَلَبُواْ صَاغِرِينَ
 
সুতরাং তারা সেখানেই পরাজিত হয়ে গেল এবং অতীব লাঞ্ছিত হল।
১২০. وَأُلْقِيَ السَّحَرَةُ سَاجِدِينَ
 
আর যাদুকররা সিজদায় লুটিয়ে পড়ল।
১২১. قَالُواْ آمَنَّا بِرِبِّ الْعَالَمِينَ
 
তারা বলতে লাগলো, ‘আমরা ঈমান আনলাম বিশ্বজাহানের রবের প্রতি’।
১২২. رَبِّ مُوسَى وَهَارُونَ
 
যিনি মূসা ও হারুণেরও রব।

ইউনুস ৮১-৮২,

৮১.
فَلَمَّا أَلْقَواْ قَالَ مُوسَى مَا جِئْتُم بِهِ السِّحْرُ إِنَّ اللّهَ سَيُبْطِلُهُ إِنَّ اللّهَ لاَ يُصْلِحُ عَمَلَ الْمُفْسِدِينَ
 
অতঃপর যখন তারা নিক্ষেপ করল, মূসা বলল, যা কিছু তোমরা এনেছ তা সবই যাদু, আল্লাহ এখনই তা ব্যর্থ করে দেবেন। ফাসাদ সৃষ্টিকরীদের কাজকে আল্লাহ‌ সার্থক হতে দেন না।
৮২.
وَيُحِقُّ اللّهُ الْحَقَّ بِكَلِمَاتِهِ وَلَوْ كَرِهَ الْمُجْرِمُونَ
 
আল্লাহ সত্যকে সত্যে পরিণত করেন স্বীয় বাণীর মাধ্যমে, যদিও পাপীদের তা মনঃপুত নয়।

সুরা ত্বহা ৬৯”

৬৯.
وَأَلْقِ مَا فِي يَمِينِكَ تَلْقَفْ مَا صَنَعُوا إِنَّمَا صَنَعُوا كَيْدُ سَاحِرٍ وَلَا يُفْلِحُ السَّاحِرُ حَيْثُ أَتَى
 
তোমার ডান হাতে যা আছে তুমি তা নিক্ষেপ কর। তারা যা কিছু করেছে এটা তা সব গ্রাস করে ফেলবে। তারা যা করেছে তা তো কেবল যাদুকরের কলাকৌশল। যাদুকর যে রূপ ধরেই আসুক না কেন, সফল হবে না।

এই আয়াতগুলো পড়ে ফু দিন, কয়েকবার করতে পারেন। এরপর যদি দেখেন কান্না বাড়ছে, কিংবা শরীরের কোথাও ব্যথা অনুভব করছে তাহলে বুঝতে হবে সত্যিই যাদু করেছে কেউ। এমতাবস্থায় যাদুর জন্য রুকইয়াহ করতে হবে।

 

জিন মারার বা পুড়িয়ে ফেলার নিয়ম

 

কারো উপর জ্বিনের আছর হলে তার কানে ৭বার আজান দিবে,তারপর তার কানে সুরা ফাতিহা,সুরা নাস,সুরা ফালাক, আয়াতুল কুরসি,সুরা তরেক,সুরা হাশরের শেষ ৩আয়াত,সুরা সাফফাত ১বার ও সুরা জ্বিন ৭বার পাঠ করে ফু দিলে মানুষ যেমন আগুন থেকে পালিয়ে যায় জ্বিনও তেমনি পালিয়ে যাবে নয়তো পুড়ে যাবে।  

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন!

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে  জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

  [তৃতীয় ধাপ: চিকিৎসা পরবর্তী পরামর্শ] চিকিৎসা শেষে আক্রান্ত ব্যক্তিকে কিছু বিষয় খেয়াল রাখতে বলবেন-

১. সবসময় জামাতে নামাজ পড়া

২. গানবাজনা, মুভি ইত্যাদি থেকে বেচে থাকা

৩. ওযু করে এবং আয়াতুল কুরসি পড়ে ঘুমাতে যাওয়া,

৪. কদিন পরপর বাসায় সুরা বাকারা তিলাওয়াত করা, বা অন্য কাউকে দিয়ে করানো। সম্ভব হলে সপ্তাহে একবার।

৫. সকালে সুরা ইয়াসিন, এবং রাতে সুরা মুলক পড়া।

৬. “লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহ্দাহু লা-শারীকালাহ, লাহুল মুলকু ওয়ালাহুল হ্‌ামদ, ওয়াহুওয়া ‘আলা কুল্লি শাইয়িন ক্বদীর” ফজরের পর ১০০বার পড়া। (আরবি কমেন্টে)

৭. রাতে একা একা না ঘুমানো।

৮. এছাড়াও চতুর্থ পর্বে জ্বিনের ক্ষতি থেকে বাচতে যেসব কথা বলা হয়েছে সেগুলো শিখিয়ে দিন। . বিশেষ দ্রষ্টব্য: জ্বিনের সমস্যাগুলোর ক্ষেত্রে জ্বিন না তাড়িয়ে শুধু রুকইয়া শুনলে, হয়তো প্রথমে সমস্যা কিছু কমবে… কিন্তু সাধারণত পুরোপুরি ভালো হয় না। অনেকের ক্ষেত্রে সমস্যা আরও বাড়ে। এজন্য জ্বিনের রুকইয়ায় সেলফ রুকইয়া করতে নিরুৎসাহিত করা হয়। তাই জ্বিনের সমস্যার ক্ষেত্রে প্রথমে সরাসরি রুকইয়াহ করা উচিত, পরে অবস্থা বিবেচনা করে রুকইয়াহ শোনা যেতে পারে।   .

১২. যাদুর বেসিক রুকইয়াহ- যাদু বিষয়ে বিস্তারিত সামনে আলোচনা করা হবে, তবে কমন চিকিৎসা হিসেবে বলা যায়- এক বোতল পানি নিয়ে “সুরা আ’রাফ ১১৭-১২২, ইউনুস ৮১-৮২, সুরা ত্বহা ৬৯” আয়াতগুলো পড়ে ফুঁ দিন। ১ সপ্তাহ সকাল-বিকাল এই পানি খেতে হবে, পাশাপাশি গোসলের পানিতে মিশিয়ে গোসল করতে হবে। আর ১মাস প্রতিদিন কমপক্ষে ১-২ঘন্টা রুকইয়া শুনতে হবে। এরমধ্যে বেশি বেশি অর্থাৎ প্রায় অর্ধেক সময় যেন তিনকুল এর রুকইয়া শুনে। (অডিও লিংক কমেন্টে) রুকইয়ার পানি শেষ হয়ে গেলে শুদ্ধভাবে কোরআন পড়তে পারে এরকম কেউ আয়াতগুলো পড়ে আবার নতুন পানিতে ফুঁ দিলেই হবে, এক্ষেত্রে পরহেজগার কেউ হলে আরো ভালো। . খেয়াল রাখার বিষয় হচ্ছে, রুকইয়া করার সময় প্রথম প্রথম কিছুদিন সমস্যা বাড়তে পারে, এতে ঘাবড়ে গিয়ে বন্ধ করে দেয়া যাবেনা। পরে আস্তে আস্তে কমে আসবে। উপরের পদ্ধতিটা ধৈর্য ধরে ফলো করুন, পাশাপাশি সকাল সন্ধার অন্যান্য সুন্নাত আমলগুলোও করতে থাকুন। আল্লাহ চায়তো, সিহরের সমস্যাগুলো একদম ভালো হয়ে যাবে।

 

জ্বিনের স্পর্শ (৮/শেষ) —–

 

[ক] প্রথম এবং দ্বিতীয় পর্বে জ্বিন আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা প্রসঙ্গে অনেকগুলো ঘটনা বলা হয়েছে। তার মাঝে ছিলো রাসুল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ঘটনা, সাহাবা এবং অন্যান্য সালাফের ঘটনা। আগেও বলেছি জ্বিন সিরিজ পুরোটাই পুস্তকি জ্ঞান আর গবেষণা(!) দিয়ে লেখা, এব্যাপারে আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা নেই। তো এক্ষেত্রে যে বইয়ের সর্বাধিক সহায়তা নিয়েছি, তা হচ্ছে ‘ওয়াক্বায়াতুল ইনসান, মিনাল জ্বিন্নি ওয়াশ শাইত্বন’ মিসরের শাইখ ওয়াহিদ বিন আব্দুস সালামের লেখা। তো, এই বইটির দ্বিতীয় অধ্যায়ে শায়খ নিজের কিছু অভিজ্ঞতা লিপিবদ্ধ করেছেন, আপনাদের জন্য সেগুলোর ভাবার্থ অনুবাদ করা হলো… (লক্ষণীয়, ঘটনাগুলোতে ‘আমি’ বলতে শায়খ ওয়াহিদ উদ্দেশ্য, অনুবাদক আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ নয়) .

[খ] ঘটনা-১: এক মহিলাকে জ্বিন ধরেছিলো, আমি তার ওপর কিছু আয়াতে রুকইয়া তিলাওয়া করলাম। তখন জ্বিন কথা বলে উঠলো। নাম জিজ্ঞেস করার পর বললাম.. – এই মহিলাকে কেন ধরেছ? — সে বাথরুমে আমার ওপর পড়েছিলো! – আল্লাহর জন্য একে ছেড়ে দাও.. — না যাবো না – তাহলে কোরআন শোনো। তখন আমি সুরা সাফফাতের প্রথম থেকে পড়লাম, সে কষ্ট পেয়ে কাঁদতে লাগলো। এবং বললো আমি চলে যাবো… আমি বললাম – তাহলে এখনি চলে যাও.. — নাহ! যাবোনা! এবার আমি সুরা জ্বিন শুরু থেকে পড়তে লাগলাম, সে বললো – থামুন থামুন! আমি চলে যাচ্ছি। এরপর সে আসসালামু আলাইকুম বলে চলে গেলো। .

ঘটনা-২: একজন মহিলা অসুস্থ ছিলো, তাকে আমার কাছে আনলে তার ওপর রুকইয়া করি, সুরা ফাতিহা শেষ হতেই জ্বিন কথা বলে ওঠে। – তোমার নাম কি? — মুহাম্মদ – তার মানে তুমি মুসলমান? — হ্যা – তোমার সাথে আর কেউ আছে? — হ্যা, আরেক আছে.. – তাকে আসতে বলো। এরপর মহিলার মুখ দিয়ে অন্য জ্বিন কথা বলে উঠলো.. – তোমার নাম কি? — সুবহি – মুসলমান? — না, আমি খৃষ্টান! – বয়স কত তোমার? — ১৮ – কোনো যাদুকর এর কাজ করো? — হ্যা! দাসুক এলাকার একজনের কাজ করি এরপর আমি তাকে ইসলাম গ্রহণ করতে অনুরোধ করলাম, সে কবুল করলো.. – এটা (কালিমা) কি তুমি শুধু মুখ দিয়ে বললা? নাকি অন্তর থেকেও? — অন্তর থেকে বলেছি। সে কাঁদতে লাগলো আর বললো, আমিতো অনেক জনকে কষ্ট দিয়েছি, এরপরেও কি আল্লাহ আমাকে মাফ করবে? – হ্যা! তুমি বিশুদ্ধভাবে তাওবা করো, আল্লাহ সব গুনাহ মাফ করে দিবে… — কিন্তু আমিতো অযু করতে জানিনা, নামায পড়তে পারিনা.. – কোনো মুসলিম জ্বিনের সাথে পরিচয় নেই তোমার? — না, আমি তো আগে চার্চে যাতায়াত করতাম। কোনো মুসলিমকে চিনিনা। – তুমি আমাদের মসজিদে নামাজের সময় আসবে, তাহলে মুসলিম জ্বিনদের পাবে, তাদের কাছে তুমি ইসলাম সম্পর্কে জানতে পারবে। সে আমার মমতামত গ্রহণ করলো… এরপর বললাম – এখান থেকে গিয়ে কি আবার যাদুকরের কাজ করবে? — না, যাদু তো ইসলামে হারাম। আমি আর ওসব করবো না। এরপর তার কাছে ওয়াদা নিলাম, এবং দুজনে আল্লাহর কাছে দুয়া করলাম যেন ইসলামের ওপর অটল থাকতে পারে। তারপর সে চলে গেলো। এবং প্রথম জ্বিন আসলো আবার… জিজ্ঞেস করলাম – যা হলো এখানে, দেখেছো? — হ্যা! দেখেছি, সে ইসলাম গ্রহণ করেছে দেখে ভালো লাগলো। এরপর আমি তাকে চলে যেতে বললাম, এবং ওয়াদা নিলাম। এরপর সে চলে।গেলো। সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর জন্য .

[গ] তৃতীয় ঘটনা: এক মহিলার হাতে প্রচণ্ড ব্যাথা ছিলো, ডাক্তার কোনো সমস্যা খুঁজে পায়নি। আমার কাছে আসলে আমি রুকইয়ার আয়াতগুলো পড়লাম, সে তখন হাতে অবশ ফিল করতে লাগলো। আমি তাকে কিছু সাজেশন দিলাম (গত পর্বের শুরুতে বলা হয়েছে) এবং দুই সপ্তাহ পর আবার দেখা করতে বললাম। ওই মহিলা দুই সপ্তাহ পর এলে আমি আবার রুকইয়াহ করলাম। এবার একটা পরী কথা বলে উঠলো! নাম যাইনাব বিন আব্দুল উজুদ.. জিজ্ঞেস করলাম – তুমি মুসলমান? — হ্যা.. – রুকইয়াহ করলে মুসলাম জ্বিনের ওপরেও প্রভাব হয়? — হ্যা! – কোন কোন সুরা পড়লে জ্বিনের কষ্ট পায়? — সুরা ইয়াসিন, সফফাত, দুখান, সুরা জ্বিন – আর সুরা বাকারা? — হ্যা, সুরা বাকার পড়লেও কষ্ট হয়, এটা জ্বালিয়ে দেয়! – প্রথমবার এই মহিলা আমার কাছ থেকে যাওয়ার পর কি হয়েছিল? — আপনার পরামর্শ গুলো যখন মেনে চলছিল আমি খুব দুর্বল হয়ে পড়েছিলাম। বিশেষত, সে কোরআন পড়লে আমার খুব কষ্ট হতো। আর বিসমিল্লাহ বলে খানা শুরু করার কারনে আমি তার সাথে খেতেও পারছিলাম না। খানার মাঝে বিসমিল্লাহ বললেও যা খেয়েছি সব বমি হয়ে যেত! – আচ্ছা! শয়তান আর জ্বিনের মাঝে পার্থক্য কি? — শয়তানরাও জ্বিন, তবে ওরা কাফের এবং খুব অবাধ্য…. – এখন একে এছেড়ে চলে যাও.. কোন দিক দিয়ে বের হবে? — মুখ দিয়ে। এরপর সে আসসালামু আলাইকুম! বলে চলে যায়… .

[ঘ] ঘটনা ৪: একজন অল্প বয়সি মেয়েকে জ্বিন ধরেছিলো, জ্বিন মাঝেমাঝে ওর মুখ দিয়ে কথা বলছিলো। আমি ওর বাসায় আসলাম এবং ছবি ইত্যাদি সরিয়ে ফেলতে বললাম, এবং মেয়েকে হিজাব পরাতে বললা। এরপর রুকইয়া পড়তে যাব, তার আগেই মহিলা জ্বিন (পরী) কথা বলে উঠলো। তখন আমি সুরা দুখানের কিছুটা পড়লাম। এরপর পর্যায়ক্রমে জিজ্ঞেস করলাম নাম কি? ধর্ম কি সাথে কেউ আছে? — নাম নাজওয়া, আমি মুসলমান, সাথে আমার আম্মু আছে, উনার নাম ফাতিমা! – উনাকে আসতে বলো। এরপর ওই পরীর মা কথা বললো, তার বয়স ছিল ৪০বছর.. আমি তাকে আল্লাহর আযাবের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে চলে যেতে বললাম। এবং জিজ্ঞেস করলাম এর আগে কারো ওপর আসর করেছেন? — হ্যা! আরো ৪জনের ওপর! আমি উনাকে বুঝালাম, কেন মানুষকে কষ্ট দেয়া পাপ। এরপর তাওবাহ করে নফল নামাজ পড়ার নিয়ম শিখিয়ে দিলাম। এরপর সে ওয়াদা করে চলে গেলো। এরপর ‘নাজওয়া’ কথা বলে উঠলো.. জিজ্ঞেস করলাম – তোমার বয়স কত? — ২০ বছর – বিয়ে করেছো? — না, আমি নিয়াত করছি বিয়ে করবো না। ইবাদত – বন্দেগী করে জীবন পার করে দিব! – ইসলাম এটা সমর্থন করেনা, তুমি একে ছেড়ে চলে যাও এবং পরহেজগার এজন জ্বিন খুজে বিয়ে করে নিও। সে আমার পরামর্শ মেনে নিলো, এবং ওয়াদা করে চলে গেলো। .

[ঙ] এরপর কয়েকটা ঘটনা সংক্ষেপে বলি..

১. একজন লোকের সাথে একটা মেয়ে জিন ঝামেলা করতো, তার ছেলে গিয়ে শাইখকে এটা জানায়। শাইখ বাসায় এসে লোকটির সাথে কথা বলেন, এবং উযু করে আসতে বলেন। এরপর তাকে রুকইয়া করলে মেয়ে জ্বিন কথা বলে ওঠে। উদ্ভট এক নাম বলে “স্টেথিরিয়স” বা এরকম কিছু.. ধর্মের কথা বললে চুপ থাকে, পরে বলে- ‘আমি আসলে ধর্ম সম্পর্কে তেমন কিছু জানিনা। আমরা জ্বিনের বিশেষ এক জাতি, যারা পানিতে থাকে। আমি লোহিত সাগরে থাকতাম..’ কেন আসর করেছে জিজ্ঞেস করলে এরকম বলে- “লোকটা বয়স যখন ২০বছর ছিলো তখন অন্য একজনকে ধরেছিলাম, এই লোক তখন না জেনে অহেতুক মুর্খের মত আমাকে পিটিয়েছে! এজন্য তখনই আমি তার ওপর আসর করি, তবে পরে তাকে আমার পছন্দ হইছে!” আমি রাতে তার সাথে থাকি…. ব্লা ব্লা ব্লা………! (১৮+ ওয়ার্নিং!) পরে ওকে ইসলাম গ্রহণ করে বললে ইসলাম গ্রহণ করে, এবং অনেক কাহিনীর পর বিদায় হয়। .

২. এই ঘটনা শায়খের পরিচিত এক হাইস্কুল টিচার বর্ণনা করেছেন, শায়খ উনার ভাষায় নিজ বইয়ে এনেছেন। ১ মে ১৯৮৬ তে শায়খের একটা প্রোগ্রাম ছিলো, সেখানে উনি রুকইয়াহ বিষয়ে কিছু লেকচার দেন। প্রোগ্রাম শেষে রাত্রে বেলা ৭-৮জন একসাথে বাড়ি ফিরছিলাম। যাওয়ার পথে একটা ছেলেকে বাসার বেলকনীতে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখি। ওকে আমাদের দেখে ছেলেটা কেমন যেন ভয়ে চমকে ওঠে। বেলকনি থেকে লাফ অন্যদিকে লাফ দিতে চায়.. কিন্তু সাথের একভাই গিয়ে ধরে ফেলে। পরে দেখে তাকে জিন ধরেছে। (এরপর অনেক লম্বা কাহিনী করে ওই ৭-৮জন মিলে জ্বিন ছাড়াইছে, ওদের কথার মধ্যেমধ্যে কিছু অংশ…) – তুমি শাইখ ওয়াহিদকে ঘৃণা করো কেন? — আব্বু বলেছে উনি কোরআন দিয়ে জিনে চিকিৎসা করে, মানুষকেও শিখায়… এজন্য…! . – আজকে রুকইয়া নিয়ে লেকচারের সময় সেখানে কোনো জ্বিন উপস্থিত ছিল? — হ্যা! ১৫ জন ছিলো!!! . – তুমি তাহলে ইসলাম গ্রহণ করো… — আচ্ছা! আমাকে কালিমা পড়িয়ে দিন.. – অমুক অমুক দিন নিয়মিত আমাদের মসজিদে বিভিন্ন আলেমরা বয়ান করেন.. ইসলাম সম্পর্কে জানতে চাইলে তুমিও আসতে পারো… — আচ্ছা আসবো!! আমি জানতে চাই.. .

৩। এক মহিলা খুব অসুস্থ ছিলো, তার স্বামী অনেক ক্লিনিকে দৌড়াদৌড়ি করেও কোনো সুরাহা খুজে পায়নি। পরে আমার (শায়খ ওয়াহিদ আব্দুস সালাম এর) কাছে নিয়ে আসে, আমি রুকইয়াহ করি। এরপর বেশ ভারি এক কন্ঠ কথা বলে ওঠে। – নাম কি তোমার? — ইয়ুহান্না! – তুমি কি খ্রিষ্টান? — হ্যা! – এই মুসলিম মহিলাকে কেন ধরেছ? — এই মহিলার জন্য আমার ছেলে মুসলমান হয়েছে, তাই প্রতিশোধ নিতে এসেছি! – মুসলমান হয়েছে তো প্রতিশোধ নেয়ার কি আছে এখানে? — কারণ আমি খ্রিষ্টান জ্বিনদের চার্চের প্রিস্ট (পাদ্রী) আমার ছেলে ইসলামে কনভার্ট হয়েছে এটা আমার জন্য সহ্য করা কষ্টকর… এরপর শায়খ উনাকে ইসলাম সম্পর্কে বুঝায়, জ্বিনটা কোরআন শুনতে চায়। শায়খ সুরা মায়েদা ৮২-৮৫ আয়াত পড়ে শোনান, আয়াতগুলো আসলেই খৃষ্টানদের কনভিন্স করার মত…. কমপক্ষে দুটি আয়াতের অর্থ এখানে না বললে ঘটনার স্বাদ অপূর্ণই থেকে যাব.  

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন!

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে  জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

    (৮২) আপনি সব মানুষের চাইতে মুসলমানদের অধিক শত্রু ইহুদী ও মুশরেকদেরকে পাবেন এবং আপনি সবার চাইতে মুসলমানদের সাথে বন্ধুত্বে অধিক নিকটবর্তী তাদেরকে পাবেন, যারা নিজেদেরকে খ্রীষ্টান বলে। এর কারণ এই যে, খ্রীষ্টানদের মধ্যে আলেম রয়েছে, দরবেশ রয়েছে এবং তারা অহঙ্কার করে না।

(৮৩) আর তারা রসূলের প্রতি যা অবতীর্ণ হয়েছে, তা যখন শুনে, তখন আপনি তাদের চোখ অশ্রু সজল দেখতে পাবেন; এ কারণে যে, তারা সত্যকে চিনে নিয়েছে। তারা বলেঃ হে আমাদের প্রতিপালক, আমরা মুসলমান হয়ে গেলাম। অতএব, আমাদেরকেও মান্যকারীদের তালিকাভুক্ত করে নিন। —- শায়খের তিলাওয়াত শুনে জ্বিনটা কাঁদতে লাগে, এবং বলে কোরআন সত্য! আপনি সত্য বলছেন…. অনেক লম্বাচওড়া ঘটনা। শেষে ওই পাদ্রি জ্বিনটা নিজেও মুসলমান হয়ে যায়। আলহামদুলিল্লাহ্‌! এরপর ছেলেকে কাছে ডেকে নিয়ে চলে যায়। আল্লাহ রহমতে জ্বিন সিরিজ সমাপ্ত… (কিছুদিন পর আমার পরিক্ষা, এজন্য ব্ল্যাক ম্যাজিক সিরিজ এখনই শুরু করা সম্ভব হবে না.. আল্লাহ বাচিয়ে রাখলে মাস দেড়েক পর রুকইয়াহ সিরিজ আবার কন্টিনিউ হবে। ইনশাআল্লাহ!) আমার জন্য দু’আ করবেন… ওয়াসসালামু আলাইকুম!

 

রাত্রিতে জ্বিনের সমস্যা

 

[ক] আজকে আলোচনার বিষয়টি একটু অস্বস্তিকর, তবে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। অনেক ভাই অথবা বোন সরাসরি জ্বিনের সমস্যা অথবা জ্বিন দিয়ে করা যাদুতে আক্রান্ত হওয়ার পর রাতে ফিজিক্যালি অথবা সেক্সুয়ালি অত্যাচারিত হন। এই বিষয়গুলো তারা লজ্জায় কাউকে বলতেও পারেন না, আর কিভাবে এই যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পাবেন তাও জানেন না। তাদের জন্যই আজকের প্রবন্ধটি। মূল লেখা উস্তাদ মুহাম্মাদ তিম হাম্বলের। আমরা অনুবাদের পর বেশকিছু অংশ সংযোজন বিয়োজন করেছি। অনুবাদ করেছেন আহমাদ রবিন ভাই।

[খ] এই ধরনের মহিলা রোগী তুলনামূলক বেশি হলেও পুরুষদের মাঝেও একবারে কম নয়। বেশিরভাগ রোগীই রাতে ঘুমের মাঝে অত্যাচারিত হন, কেউ কেউ আবার বিছানায় গা ছোঁয়ানোর পরেই আক্রান্ত হন। যাদের সমস্যা কম, তারা ঘুমের সময় অনুভব করেন, তার পাশে অথবা তাদের স্বামীস্ত্রীর মাঝে কেউ শুয়ে আছে, কখনও মনে হয় তাকে স্পর্শ করছে। আর কারও কারও অবস্থা এমন যে, স্বপ্নে অনেক ধস্তাধস্তি করেন, এক পর্যায়ে শক্তি হারিয়ে ফেলেন এবং চারপাশ অন্ধকার হয়ে যায়। সাধারণ স্বপ্ন থেকে এর অভিজ্ঞতা ভিন্ন। যেমনটা বোবায় ধরা বা অন্যান্য দুঃস্বপ্নের পর ঘুম ভাঙ্গলে অন্যদের হয়ে থাকে, সেসবের চেয়ে সাধারণত এর অনুভূতি প্রখর হয়। কাউকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করলে, রেপ করলে যেমন ব্যথা-যন্ত্রণা অনুভূত হয় রোগীরা এই সময় অনেকটা এমন যন্ত্রণা অনুভব করেন। এমনকি সকালে ঘুম থেকে উঠেও নিজেকে মাতালের মত লাগে, বিভিন্ন অঙ্গে ব্যথা হয়ে থাকে, যেমনটা বাস্তবে কোন মানুষ তাদের নির্যাতন করলে লাগত।

[গ] অন্যান্য জটিল সমস্যা আক্রান্ত রোগীদের চেয়ে এই ধরনের রোগীরা বেশি যন্ত্রণার, বেশি পীড়ার শিকার হন। যৌন নির্যাতনের ফলে শারীরিক সমস্যার পাশাপাশি তারা মানসিকভাবেও ভেঙে পড়েন। কাজেই পরিবারের কেউ যদি এমন অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয় তাহলে তাকে রুকইয়াহর পাশাপাশি মানসিক সাপোর্ট দেয়া খুবই জরুরি। রোগীর পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের জন্য কিছু বিষয় এখানেই পরিষ্কার করা উচিৎ বলে মনে করি, প্রথমত: স্বপ্ন বা ঘুমের মাঝে এরকম হওয়ার মানেই এই না যে, ছেলে বা মেয়েটি সত্যিই কারও সাথে যৌনক্রিয়া করেছে। সত্যিই শারীরিকভাবে রেপ হওয়ার আর এই স্প্রিচ্যুয়াল এটাকের মাঝে বহুত পার্থক্য আছে। সুতরাং তাঁর ব্যাপারে নেতিবাচক ধারণা করা মোটেও উচিৎ না। আপনার দেয়া সামান্য সাপোর্ট যেমন তার এই সমস্যা থেকে মুক্তির ওসীলা হতে পারে, তেমনি আপনার মিথ্যা তিরস্কারের জন্য সে জীবনের আশাও ছেড়ে দিতে পারে। তাই সহযোগী হোন, প্রতিপক্ষ হবেন না। দ্বিতীয়ত: ঠিকমত রুকইয়াহ করলে আল্লাহর অনুগ্রহে খুব দ্রুত এই সমস্যা থেকে মুক্ত হওয়া যায়, তাই দেরি না করে জলদি ব্যবস্থা নিন আর অবশ্যই দোয়া করতে থাকুন।

[ঘ] যাদের স্বপ্নে শুধু এমন অভিজ্ঞতা হয় কিন্তু শারীরিকভাবে অন্যকোন সমস্যা অনুভব করেন না তারাও ইনশাআল্লাহ এই পোস্ট থেকে সমানভাবে উপকৃত হবেন:

১। প্রথমেই ঘর থেকে সকল ধরনের আল্লাহর অবাধ্যতার সরঞ্জাম সরিয়ে ফেলুন। যেমন: টেলিভিশন, রেডিও, টেপরেকর্ডার, ছবি, পুতুল, মূর্তি (এই ধরনের সকল শোপিস) । যদি আপনার পক্ষে বাসার সব কিছু ঠিক করা সম্ভব না হয় তাহলে কর্তব্য হল, অন্তত নিজের ব্যক্তিগত ঘরকে এসব থেকে পবিত্র করুন।

২। সালাত ও দোয়াতে কোনরকম অবহেলা করবেন না। বিশেষত: প্রতিদিন সকাল-সন্ধ্যা ও ঘুমের আগের মাসনুন আমলগুলো অবশ্যই করবেন। মেয়েদের পিরিয়ডের সময়েও যেন এসব আমল বাদ না যায়। নামাজ পড়া না লাগলেও নামাজের সময় হলে সেই ওয়াক্তের যিকর-আযকারগুলো কয়েক মিনিট সময় নিয়ে আদায় করে ফেলবেন।

৩। যখন এই ধরনের ঘটনা গুলো ঘটার সম্ভাবনা থাকে যেমন রাতে ঘুমানোর আগে, রাতে হুট করে ঘুমে ভেঙ্গে গেলে অথবা শয়তান যখন আক্রমণ করবে তখন শত্রুর উপর জয়ী হবার জন্য যেসব দোয়া আছে সেগুলো বার বার পড়া। কিছু দোয়া এখানে পাবেন http://duas.com/search.php?search=&categories[]=87 যে কয়টা পারেন একদম ভালভাবে মুখস্থ করে নিন। আমি রুকইয়াহ করার মাঝে দুয়ার সময় এরকম একটা দুয়া পড়ি, যা মুসলিম শরিফে আছে। আর আমি শাইখ খালিদ হিবশির রুকইয়াহ থেকে শিখেছি- “اللَّهُمَّ مُنْزِلَ الْكِتَابِ ، سَرِيعَ الْحِسَابِ ، مُجْرِيَ السَّحَابِ ، هَازِمَ الأَحْزَابِ ، اهْزِمْهُمْ وَزَلْزِلْهُمْ”

৪। ঘুমানোর আগে সম্ভব হলে রুকইয়াহর গোসল করে নিন। উপকারী হবে ইনশাআল্লাহ। সম্ভব না হলে অন্তত ওযু করে নিন, এক্ষেত্রে ওযুর পানিতে কিছু আয়াত পড়ে ফু দিয়ে নিলে আরও ভাল, যেমন আয়াতুল কুরসি এবং তিনকুল পড়তে পারেন।

৫। রুকইয়ার আয়াতগুলো পড়ে অলিভ ওয়েলে ফু দিয়ে রাতে ঘুমের আগে সারা গায়ে মালিশ করুন। (৭দিনের ডিটক্স রুকইয়ার মত)

৬। প্রতিদিন ঘুমের আগে অথবা অন্তত সন্ধ্যার পর কোন সময়ে “রুকইয়াহ যিনা” শুনুন। এটা অনেক উপকারী হবে ইনশাআল্লাহ। ডাউনলোড লিংকঃ http://ruqyahbd.org/download#zina

৭। তাহাজ্জুদের সালাতে দাঁড়িয়ে যান। শয়তান যখনই এমন করবে আপনার উচিত হবে সাথে সাথে নামাযের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করা। শয়তান কখনই চাইবে না আপনি সালাতের মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য লাভ করেন। রাতে ঘুম ভাঙলেই আল্লাহর কাছে নিজেকে সমর্পণ করবেন, তখন শয়তান আর আপনাকে ঘুমের মধ্যে বিরক্ত করতে চাইবে না। চাইবে যেন আপনি তাহাজ্জুদ আদায় করতে না পারেন, ঘুমিয়ে থাকেন।

৮। রাতে একা একা না ঘুমানো। অনেকের অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে, যদি সাথে কেউ থাকে তাহলে এই ধরনের ঘটনা কম ঘটে। এটা করা আবশ্যক না, তবে করলে ভাল। আর আপনি বিবাহিত না হলে যতদ্রুত সম্ভব বিয়ে করে ফেলা উচিৎ।

৯। সমস্যা জটিল হলে অভিজ্ঞ কারও সাহায্য নিন এবং নিয়মিত কোন রুকইয়ার রুটিন ফলো করুন। আপনি চাইলে আমাদের গ্রুপে পোস্ট দিতে পারেন, ইনশাআল্লাহ পরামর্শ পাবেন। আর আমভাবে পরামর্শ চাইলে বলব, উপরের বিষয়গুলো খেয়াল পাশাপাশি ৭দিনের ডিটক্স রুকইয়াহ করে এরপর আপডেট জানান। ডিটক্স সম্পর্কে জানতে দেখুন: https://facebook.com/thealmahmud/posts/1539586162797575 – মোটকথা হল, এই অদৃশ্য শত্রুর বিরুদ্ধে যতভাবে প্রতিরোধ গড়ে তোলা যায় সবগুলো পালন করা। ইনশাআল্লাহ শত্রু শীঘ্রই পরাজিত হবে। আল্লাহ কবুল করুন। সহজ করুন। আমিন.!

 

লাভার জিন বা প্রেমিক জিন

 

[ক] বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম, জিন আল্লাহর এক সৃষ্টি। কোরআনে তাদের সৃষ্টি সম্পর্কে অনেকগুলো আয়াত রয়েছে। আল্লাহ তায়ালা বলেন, – “তিনি জিনকে সৃষ্টি করেছেন ধোঁয়াবিহীন অগ্নিশিখা থেকে।” (সুরা আর-রাহমান ১৫) – “এর পূর্বে উত্তপ্ত আগুন থেকে জিনকে সৃষ্টি করেছি।” (সুরা হিজর ২৭) . আমাদের আজকের আলোচ্য বিষয় হলো, আশিক জিন বা প্রেমিক জিন। এই জিন আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে প্রবেশ করে কুৎসিত এবং আপত্তিকর উপায়ে তাকে ব্যবহার করে থাকে। এটা এক প্রকার জুলুম এবং এ থেকে নিস্তার পেতে শরীয়তসম্মত পদ্ধতিতে রুকইয়াহ করা উচিত। জিনের সমস্যাগুলোর মাঝে এই ধরনের সমস্যাগুলো সাধারণত তুলনামূলক জটিল এবং ঝামেলাপূর্ণ হয়। যদিও এটা নতুন কোন বিষয় না, তবুও অধিকাংশ মানুষে এব্যাপারে ভুল ধারণা রাখে। শায়খুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া রহ. বলেন, “জিন যৌন ইচ্ছা পূরণ করার জন্য, খারাপ ইচ্ছা অথবা ভালোবাসা থেকে মানুষকে দখল করার চেষ্টা করে। এটা ফাহেশা (অশ্লীল) এবং নিষিদ্ধ আচরণ, এমনকি যদি সেটা দুইজনের সম্মতিতে হয় তবুও। আর যদি জিন সম্পূর্ণ নিজের ইচ্ছায় এই কাজ করে তাহলে এটা জুলুম।” যারা এরকম করে তাদেরকে জানানো উচিত, মানুষ এবং জ্বিনদের জন্য আল্লাহ এবং রাসুল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আইন অনুযায়ী তাদের বিচার হবে। ইবনে তাইমিয়া রহ. বলেন, “আনন্দ হাসিলের অর্থ হচ্ছে, নিজের ইচ্ছামত কারো কাছ থেকে কোনকিছু নিয়ে নেয়া বা যেভাবে ইচ্ছা সেভাবে তাকে ব্যবহার করা। কিন্তু কোন জুলুমই শেষ অবধি শাস্তিবিহীন থাকবে না, তা ইহকালে হোক কিংবা পরকাল। যেমনটা আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, “সেদিন তিনি তাদের সবাইকে একত্রিত করবেন, বলবেন, হে জিন সম্প্রদায়, তোমরা তো অনেক মানুষকেই গোমরাহ করেছো, মানুষের মধ্যে থেকে তাদের বন্ধুরা বলবে, হে আমাদের মালিক, আমরা একে অপরের দ্বারা দুনিয়ার জীবনে লাভ করেছিলাম, আর এভাবেই আমরা চুড়ান্ত সময়ে এসে হাজির হয়েছি, যা তুমি আমাদের জন্য নির্দিষ্ট করে রেখেছিলে; তিনি (আল্লাহ তায়ালা) বলবেন, তোমাদের ঠিকানা হচ্ছে জাহান্নাম, সেখানে তোমরা চিরকাল থাকবে। অবশ্য আল্লাহ তায়ালা যা কিছু চাইবেন (তা আলাদা); তোমার মালিক অবশ্যই প্রজ্ঞাময়, সম্যক অবহিত।” (সুরা আনআম, ১২৮)” চরিত্র, শক্তি, চেহারাভেদে এ ধরনের জ্বিনরা অনেক রকমের হয়। মানুষ যেরকম একজন আরেকজনের প্রতি ভালোবাসা, কেয়ার করা ইত্যাদি নানাভাবে আবেগপ্রবণ হয়ে যায় সেরকমই কোন কোন জিন আক্রান্ত ব্যক্তির প্রতি বেশ কেয়ারিং হয়ে যায়। আবার কোন জিন বিভিন্ন শারীরিক এবং মানসিক সমস্যা সৃষ্টি করে ব্যক্তির দেহ ‘উপভোগ’ করা শুরু করে। এরকম জিন আক্রান্ত ব্যক্তির জীবনে অনেক জটিলতা তৈরি হয়। চারপাশের সবার সাথে তাদের সম্পর্ক খারাপ হতে থাকে। বিভিন্ন কারণে মানুষ এরকম জিন দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে, রুকইয়া ইনডেক্সের জিন সিরিজে জিন অধ্যায়ে আক্রান্ত হওয়ার কারণ নিয়ে আলোচনা আছে।

[খ] লাভার জীনের প্রকারভেদ

১। এক প্রকার আশিক জ্বিন হলো- যারা ব্যক্তির দেহকে ভালোবাসে এবং দেহের প্রতি মোহাবিষ্ট হয়ে পড়ে এবং এই দেহে তাদের সবরকম অধিকার আছে বলে মনে করে। আক্রান্ত ব্যক্তির দেহকে শুধুই একটা ভোগের বস্তু মনে করে। কেউ কেউ মনে করে আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে তাদের বিয়ে হয়ে গেছে। আক্রান্ত ব্যক্তি বিবাহিত হলে জিন তাদের বিবাহিত জীবনে অনেক জটিলতা তৈরি করে। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের মাঝে নানান জটিলতা সৃষ্টি করে শেষ অবধি তালাক পর্যন্ত নিয়ে যায়। আক্রান্ত ব্যক্তি অবিবাহিত হলে তার বিবাহ নিয়ে নানান জটিলতা তৈরি করে বিয়েকে প্রায় অসম্ভব করে তোলে।

২। আরেক প্রকার জিন ব্যক্তির দেহের কোন একটা নির্দিষ্ট অঙ্গের প্রতি মুগ্ধ হয়ে পড়ে। যেমন- চোখ, হাত, মুখ, চুল ইত্যাদি। এই ‘ভালোবাসার’ কারণেই সে আক্রান্ত ব্যক্তিকে নানান সমস্যা ফেলে দেয়। যেমন- নানান শারীরিক অসুস্থতা, বৈবাহিক জীবনে অশান্তি, অবিবাহিতদের বিয়েতে ঝামেলা। এই ক্ষেত্রে দেখা যায় তুচ্ছ কারণে অথবা কোন কারণ ছাড়াই বিয়ে হচ্ছেনা বা প্রস্তাব আসলেও পরে আর কোন যোগাযোগ নাই।

৩। এই প্রকারের আশিক জিন অনেক বেশি ক্ষতিকর এবং এরা ফাহশা বা অশ্লীল কাজে আক্রান্ত ব্যক্তিকে ব্যবহার করে। পার্ভার্ট / বিকৃত রুচির জিন বলতে পারেন। মানসিক এবং শারীরিকভাবে অনেক টর্চার করে, কখনো তাদের পরিচিত অথবা অপরিচিত মানুষের রূপে এসে ধর্ষণ করে। এটা স্বপ্নের মত অথবা জাগ্রত অবস্থায়ও হতে পারে। কখনো আক্রান্ত ব্যক্তির বন্ধু বা তার সাথে যে থাকে তাকেও পজেস করে আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে অনৈতিক সম্পর্কে জড়ানোতে উদ্বুদ্ধ করে। আক্রান্ত ব্যক্তিকে সমকামীতায় অথবা কোন প্রানীর সাথে শারীরিক সম্পর্কেও জড়াতে চায় অনেক সময়।

৪। আমাদের মধ্যে যেমন গরু ছাগলের মত জন্তু জানোয়ার আছে, জিনদের মধ্যেও তাদের নিজস্ব জন্তু জানোয়ার আছে। জিনদের মধ্যে কিছু জন্তু জানোয়ার অন্য প্রানীদের সাথে শারীরিক সম্পর্কে জড়াতে চায়। এই উদ্দেশ্যে তারা আক্রান্ত ব্যক্তিকে ব্যবহার করে বিভিন্ন জন্তু জানোয়ারের সাথে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে। এরকম সম্পর্ক আজকাল বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় দেখা যায়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আক্রান্ত ব্যক্তি বুঝতে পারেনা কেন তাদের মাথায় এরকম চিন্তা আসছে আর কেনইবা তারা এরকম জঘন্য কাজ করছে। এতে তাদের মধ্যে একধরনের হতাশা, উদ্বেগ, ঈমানের ঘাটতি তৈরি হয়। সবচেয়ে ভয়াবহ হল, এতে আক্রান্ত ব্যক্তি অনেক ক্ষেত্রে আত্মহত্যা করে বসে।

৫। এই প্রকারের জিন প্রতিরাতে আসে আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের জন্য। সে ব্যক্তির শরীরে বসবাস করেনা। আক্রান্ত ব্যক্তির দেহে তার ‘অধিকার’ আছে এরকম ধারণা থেকে নিজের ইচ্ছামত আসে এবং চলে যায়। এরকম রোগীর সংখ্যা বেশি, এর প্রতিকার নিয়ে “রাত্রিতে জিনের সমস্যা” প্রবন্ধে আলোচনা করা হয়েছে।

৬। কিছু জিন অনেক দিন পরপর আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে আসে এবং শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে। মাঝখানের এই সময়ে সে নিজেদের পৃথিবীতে ঘুরে বেড়ায় অথবা অন্য কোন মানুষের সাথে কুকর্মে লিপ্ত থাকে।

৭। অন্য কিছু আশিক জিন আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেনা কিন্তু ব্যক্তির প্রতি একধরনের আকর্ষণ অনুভব করে। মানুষের মধ্যে যেমন উত্ত্যক্তকারী থাকে তেমনি এই জিনও আক্রান্ত ব্যক্তিকে দূর থেকে দেখে দেখে উপভোগ করার চেষ্টা করে। এভাবে থাকতে থাকতে একসময় কখনো সিদ্ধান্ত নিয়ে ব্যক্তিকে পজেস করারও চেষ্টা করতে পারে।

৮। পেডোফাইল বা বাচ্চাদের প্রতি আকৃষ্ট জিন। এই জিন বাচ্চাদের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে তাদেরকে সঙ্গী হিসেবে গ্রহণ করে তার দেহে বসবাস শুরু করে। 

উপরের যেকোন ক্ষেত্রে দেখা যেতে পারে জিন আক্রান্ত ব্যক্তির দেহে অনেকদিন ধরে বসবাস করে তাকে প্রভাবিত করে এমন অবস্থা তৈরি করেছে যে, জিন এবং মানুষের আচরণ আলাদা করা অনেকসময় কঠিন হয়ে যায়। মানুষের শরীরে থাকতে থাকতে এদের এমন একগুয়ে অবস্থা হয় অন্য কোথাও যেতে চায়না। নিজের জীবন দিয়ে হলেও আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে থাকতে চায়। কখনো আক্রান্ত ব্যক্তি মারা গেলে সে অন্য কোন ব্যক্তির উপর আসর করে। ভয়ানক বিষয় হল, অনেক মানুষকে এরা এমনভাবে প্রভাবিত করে যে, সে এই শয়তান জিনকে একপ্রকার ভালোবেসে ফেলে এবং তার থেকে পরিত্রাণও চায় না। মনে করে যে, থাকলেই ভাল আছি! কেউ একজন সাথে আছে! নাউযুবিল্লাহ। 

[গ] লাভার জিন আক্রান্ত ব্যক্তিদের যেসব লক্ষণ দেখা যায় –

১। উপরে যেসব লক্ষণ বলা আছে এর পাশাপাশি নানারকম উন্মত্ত আচরণ দেখা যায়। দুঃখে নিজের প্রতি বিতশ্রদ্ধ হয়ে যাওয়া এবং নিজেকে সমাজ থেকে আলাদা মনে হওয়া। একা একা থাকতে ভালোলাগা। কোলাহল এবং সামাজিক মেলামেশা অপছন্দ হওয়া। আর জিন আক্রান্ত হওয়ার যে লক্ষণগুলো পূর্বে জিন সিরিজে বলা হয়েছে, সেগুলোও খেয়ালে রাখা উচিত।

২। প্রকৃতপক্ষে সুন্দর বা আকর্ষণীয় হওয়ার পরেও বিপরীত লিঙ্গের কারো প্রতি কোন আকর্ষণ বা কোন অনুভুতি না হওয়া। পুরুষ অথবা মহিলাদের বিয়ের প্রস্তাব আসার পর প্রস্তাবদাতাকে শারীরিক অথবা চারিত্রিক দিক দিয়ে অযোগ্য মনে করা এবং শেষে প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়া।

৩। চর্মরোগ এবং অন্যান্য শারীরিক সমস্যা দেখা দেওয়া যা আক্রান্ত ব্যক্তির কষ্ট আরো বাড়িয়ে দেয়। এসবের মাধ্যমে জিন মনে করে যে ব্যক্তিটি তার ‘নিয়ন্ত্রণে’ আছে।

৪। সবচেয়ে মারাত্মক বিষয়টা হল আক্রান্ত ব্যক্তি নিজে বুঝতে পারছেন যে তাকে শারীরিকভাবে আক্রমন করা হচ্ছে অথবা ধর্ষন করা হচ্ছে অথচ কিছুই করতে পারছেন না। এটা আক্রান্ত ব্যক্তির উপর খুবই বাজে একটা প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে।

[ঘ] লাভার জিন চিহ্নিত করা শুরুতে জিনের সমস্যা আছে কি না, এটা বুঝতে জিন আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণগুলো মিলিয়ে নিতে হবে। জিন সিরিজে এর অনেকগুলো লক্ষণ আলোচনা করা হয়েছে। সাধারণত সবধরনের জিনের ক্ষেত্রেই এই লক্ষণগুলো দেখা যায়। তবে এই কেসে আরও যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে পারেন – .

১। জিন এবং তার প্রকৃতি চিহ্নিত করা গেলে আল্লাহ চায়তো আক্রান্ত ব্যক্তি এবং রাকীর জন্য রুকইয়াহ করা সহজ হবে। প্রথম বিষয় যা জানার চেষ্টা করতে হবে তা হলো- জিন কেন এখানে এসেছে। সাধারণত রুকইয়াহ করার সময় জিনের কাছে থেকেই স্বীকারোক্তি আদায় করা যায়। কিছুক্ষণ রুকইয়াহ করার পর জিজ্ঞেস করতে হবে কেন এসেছে? তবে বলার সাথে সাথে জিনের কথা বিশ্বাস করা যাবে না, কারণ তারা খুব বেশি মিথ্যা বলে।

২। আল্লাহ চাইলে আক্রান্ত ব্যক্তির স্বপ্নের মাধ্যমেও জিনকে চিহ্নিত করা সম্ভব। এইক্ষেত্রে আক্রান্ত ব্যক্তি নির্দিষ্ট সময় পরপর অথবা প্রায়ই একইরকম স্বপ্ন দেখে। তাই স্বপ্নের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করতে হবে। স্বপ্নে, ঘুমের মাঝে এবং ঘুম থেকে উঠে কেমন অনুভূতি হয় এটাও খোঁজ নিতে পারেন।

৩। হঠাৎ করে ব্যক্তির স্বভাব চরিত্রে পরিবর্তন আসে। হারাম কাজের দিকে বেশি ঝুঁকে যাওয়া তারমধ্যে অন্যতম। যেমন- জুয়া খেলা, মদপান, ধূমপান, যিনা বা অনৈতিক কাজের প্রতি তীব্র আকর্ষণ অনুভব করা ইত্যাদি। কখনো জন্তু জানোয়ারের সাথে আবার কখনো পেডোফাইল বা বাচ্চাদের প্রতি শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করা অথবা স্থাপনের আকর্ষণ অনুভব করা। ছেলেরা মেয়েদের মত সাজগোজ করা, তাদের মত পোশাক পরা, লিঙ্গ পরিবর্তনে আগ্রহী হওয়া। হঠাৎ করে চরিত্রে এরকম পরিবর্তন আসা (বিশেষ করে যৌন চাহিদা বা আগ্রহের দিকগুলোতে) লাভার জিন আক্রান্ত হওয়ার অন্যতম লক্ষণ।

৪। লাভার জিন সাধারনত বাচ্চাদের অপছন্দ করে। বিশেষ করে যেসব বাচ্চারা আক্রান্ত ব্যক্তির আত্মীয় অথবা পরিচিত। স্বামী স্ত্রীর স্বাভাবিক সম্পর্কে বাধা দেয়া, তাদের মধ্যে বিচ্ছেদ ঘটানো উস্কে দেয়া লাভার জীনের সাধারন বৈশিষ্ট্য। স্বামী স্ত্রীর বিচ্ছেদের মাধ্যমে আক্রান্ত ব্যক্তিকে নিজের করে পেতে চাওয়ার মানসিকতা থেকে শয়তানরা এই কাজটা করে। যাদের বিয়ে হয়নি তাদের বিয়েতে নানান জটিলতা তৈরি করে বাধা দেয়। কখনো লাভার জিন বিয়ের জটিলতা তৈরি না করে বিয়েটা স্বাভাবিকভাবে হতে দেয়। এটা তখন হয়, যখন দেখা যায় স্বামী স্ত্রীর স্বাভাবিক শারীরিক সম্পর্ক হওয়ার সম্ভবনা অনেক কম থাকে। যেমন- যদি এমন সম্ভাবনা থাকে যে, স্বামী দূরে কোথাও থাকবে এবং স্ত্রী বেশিরভাগ সময়েই একা থাকবে।

৫। গোত্রপ্রধান বা সর্দার জিন থাকতে পারে কখনো। এরা এমন যে, জিনদের মধ্যে তার নিজের একটা দল আছে যারা তার কথামত বিভিন্ন কাজ করে। এই জিন তার বাহিনীর সদস্যদের দিয়ে আক্রান্ত ব্যক্তি এবং চারপাশে একটা কঠিন পরিস্থিতি গড়ে তোলার চেষ্টা করে। এই নেতা জিন আক্রান্ত ব্যক্তিকে নিজেই বদনজর, হিংসা, যাদুর মাধ্যমে নানান প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে যাতে তার চিকিৎসা পদ্ধতিতে সার্বিকভাবে বাধা দেয়া যায়। ———————— জিন চিহ্নিত করার আগে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল আক্রান্ত ব্যক্তির স্বভাব চরিত্রের দিকে নজর দেয়া। সে বয়সন্ধিকালে আছে কিনা, পর্ন দেখে কিনা, শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের তীব্র ইচ্ছা আছে কিনা এই বিষয়গুলো দেখতে হবে। ছোটবেলায় যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছিল কিনা সেটাও দেখা দরকার (অনেক জিন এই সময়টাতে ব্যক্তির শরীরে প্রবেশ করে)। খতিয়ে দেখতে হবে যে এসব ব্যক্তির চরিত্রগত সমস্যা নাকি জিন আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ। যেভাবেই হোক, এগুলো বন্ধ করতে হবে প্রথমে। . কিছু লাভার জিন অনেক প্রটেক্টিভ বা ঈর্ষাপরায়ণ হয় (আক্রান্ত ব্যক্তিকে সকল প্রকার ঝামেলা থেকে তাকে বাঁচিয়ে দেয়ার যথাসাধ্য চেষ্টা করে)। এরা অনেক ক্ষেত্রেই রোগীকে তেমন কোন ক্ষতির চেষ্টা না করে চুপচাপ বসে থাকে।

আবার কিছু জিন আছে যারা ব্যক্তিকে সবদিক দিয়ে ক্ষতি করার চেষ্টা করে। নিচে এমন কিছু অবস্থা আলোচনা করা হল- .

১. ব্যক্তিকে হতাশ এবং একাকী করে দেয়ার মাধ্যমে নানান হারাম কাজে লিপ্ত করা।

২. স্লো পয়জনিং এর মত ব্যক্তিকে ধীরে ধীরে ঈমানহারা করতে থাকা। যেমন- মহিলাদের ক্ষেত্রে হঠাৎ হিজাব ছেড়ে দেয়া, পুরুষের ক্ষেত্রে দাঁড়ি শেভ করা ইত্যাদি।

৩. গাইরে মাহরাম (যাদের সাথে বিয়ের সম্পর্ক জায়েজ) পুরুষ ও মহিলাদের সাথে কথা বলার অভ্যাস তৈরি করার মাধ্যমে ধীরে ধীরে লজ্জাকে উঠিয়ে দেয়া। এভাবে শেষে আরো হারাম কাজের দিকে নিয়ে যাওয়া।

৪. জিনদের মধ্যে যারা যাদুকর তাদের সাহায্য নিয়ে আক্রান্ত ব্যক্তিকে যাদু করা এবং অবস্থা আরো জটিল করে তোলার চেষ্টা করা।

৫. পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে ব্যক্তির অবস্থা খারাপ করে দিয়ে তাকে নোংরা এবং অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে থাকতে অভ্যস্ত করে তোলা।

৬. আক্রান্ত ব্যক্তির এমন সব জটিল অসুখ হওয়া যা মেডিকেল সাইন্স ব্যখ্যা করতে পারেনা বা মেডিকেল সাইন্সে এর কোন সমাধান নেই। অথবা এমন সব অসুখ হওয়া যা ব্যক্তিকে ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে নিয়ে যায়। যেমন- ক্যান্সার।

৭. শারীরিকভাবে আক্রমণ করা। শরীরের বিভিন্ন জায়গাতে আঘাত করা যেমনঃ বিভিন্ন সময় হাতে-পায়ে আঘাতের চিহ্ন দেখতে পাওয়া, গোপনাঙ্গ ফুলে উঠা, লজ্জাস্থানের চারপাশে ব্যথা করা এবং অস্বস্তি হওয়া যা ওষুধে ভালো হয়না।

৮. নানান হারাম কাজে ব্যক্তিকে লিপ্ত করা এবং এগুলো ব্যক্তির স্বাভাবিক অভ্যাসে পরিণত করা। ৯. মহিলাদের ক্ষেত্রে, পুরুষের দিকে তাকাতে বাধা দেয়া। এটা সাধারণত উপরে বলা সর্দার জিন দ্বারা আক্রান্ত হলে হতে পারে। একইরকম সমস্যা পুরুষদের ক্ষেত্রেও হতে পারে।

১০. সারাদিন অথবা দিনের বেশিরভাগ সময়ে উত্তেজিত রাখা এবং লিঙ্গ থেকে যৌন উত্তেজক পদার্থ নির্গত হওয়া। এটা এত বেশি সমস্যা তৈরি করে যে শেষে মাস্টারবেশন বা হস্তমৈথুন অথবা যিনায় (অনৈতিক সম্পর্কে) গিয়ে শেষ হয়।

১১. নিজের কূরুচিপূর্ণ অথবা অশ্লীল ছবি অপরিচিত মানুষকে পাঠাতে উসকে দেয়া।

১২. বিবাহিত মহিলাদের স্বামীর সাথে শারীরিক সম্পর্কের সময় প্রশান্তি পেতে বাধা দেয়া বা এই সময়ে মহিলাদের একদম অনুভূতিহীন করে দেয়া। পুরুষের ক্ষেত্রে স্ত্রীকে প্রশান্তি দেয়া বা সন্তুষ্ট করা থেকে বিরত রাখা। কখনো শারীরিক সম্পর্কের সময় স্বামী বা স্ত্রীকে পুরোপুরি আসর করে নিজে কন্ট্রোল নিয়ে নেয়া।

১৩. এনাল সেক্স বা পায়ুকামে লিপ্ত করানো।

১৪. অপ্রয়োজনীয় শো অফ করে পুরুষ/মহিলাদের নিজের দিকে আকৃষ্ট করার চেষ্টা করা বা বদনজরে আক্রান্ত করা।

১৫. আক্রান্ত ব্যক্তিকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করা এবং মৃত্যুর পরে ব্যক্তিকে এক প্রজন্ম থেকে আরেক প্রজন্মে আক্রমণ করা। এই জিন আক্রান্ত ব্যক্তিকে মৃত্যুর আগে পর্যন্ত অথবা আল্লাহর ইচ্ছায় আরোগ্য হওয়া পর্যন্ত অশ্লীল কাজের দিকে নিয়ে যেতে চেষ্টা করে।

[ঙ] নোটঃ এই ধরনের জিন অত্যন্ত খারাপভাবে সমাজে অনৈতিক কাজ, পাপাচার বৃদ্ধির মাধ্যমে বিশৃংখলা তৈরির চেষ্টা করে। এরকম জিন দ্বারা আক্রান্ত ব্যক্তি চিহ্নিত করতে পারলে তার উচিত সমস্ত গুনাহের জন্য তাওবা করা, খালিস দিলে সবকিছুর জন্য মাফ চাওয়া এবং যাবতীয় খারাপ কাজ থেকে নিজেকে বিরত রাখার চেষ্টা করা এবং এজন্য আল্লাহর কাছে সবসময়ই সাহায্য চাওয়া। আক্রান্ত ব্যক্তি অবিবাহিত হলে তাদের উচিত বিয়ে করা অথবা রোজা রাখা। তাদের দৃষ্টি ও লজ্জাস্থানের হিফাজত করার সর্বাত্মক চেষ্টা করা। আক্রান্ত ব্যক্তি বিবাহিত হলে, স্বামী স্ত্রীর সম্পর্ক বৃদ্ধির চেষ্টা করা উচিত। নিজেদের মধ্যে পরষ্পর বোঝাপড়া, ভালোবাসা বৃদ্ধি করা এবং চিকিৎসার সকল বিষয়ে একে অন্যকে সাহায্য করা উচিত। স্ত্রী তার স্বামীর প্রতি আরো বেশি অনুগত হওয়া এবং আল্লাহর জন্য স্বামীকে সর্বাত্মক খুশি রাখার চেষ্টা করা উচিত। স্বামীর উচিত স্ত্রীর প্রতি আরো বেশি ভালোবাসা দেখানো, স্ত্রীকে বুঝার চেষ্টা করা, স্ত্রীর প্রতি আরো মনযোগী হওয়া এবং স্ত্রীকে খুশি রাখার সর্বাত্মক চেষ্টা করা। আক্রান্ত ব্যক্তি উপরে বলা হারাম কোন কাজে জড়িত থাকলে সেটা অবশ্যই ত্যাগ করা উচিত। বেশি বেশি তাওবা ইস্তেগফার করা এবং আল্লাহর নৈকট্য লাভের চেষ্টা করা। আরেকটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যে, এসব সমস্যা নিয়ে খুব বেশি চিন্তা ভাবনা না করা। সমস্যাকে বড় করে দেখে সেটা নিয়ে হতাশাগ্রস্থ বা আতংকিত হওয়া থেকে অবশ্যই বিরত থাকতে হবে। এটা মনে রাখতে হবে যে, সমস্যা যেহেতু হয়েছে তারমানে আল্লাহ চাইলে শিফাও হবে। আল্লাহর হাতেই রয়েছে যাবতীয় রোগের আরোগ্য। মনে প্রাণে এই বিশ্বাস রাখতে হবে যে, আল্লাহ চাইলেই সমস্যা ভালো হয়ে যাবে। মনে রাখতে হবে, কষ্টের পরেই আসে প্রশান্তি। আল্লাহ বলেন, “নিশ্চয় কষ্টের সাথে স্বস্তি রয়েছে। আর নিশ্চয় কষ্টের সাথে স্বস্তি রয়েছে।” সূরা ইনশিরাহ, ৫-৬ ————–

 

ট্রিটমেন্ট-

১। প্রতিনিয়ত আল্লাহর নৈকট্য লাভের চেষ্টা করা। প্রতিদিন কোরআন তিলাওয়াত করা, সাওয়াবের কাজ করা, রোজা রাখা, আল্লাহর জিকিরে নিজেকে ব্যস্ত রাখা এবং কথা বলার সময়ে জিহ্বাকে সংযত রাখা, প্রতিনিয়ত আল্লাহর সাহায্য চাওয়া এবং বেশি বেশি তাওবা ইস্তেগফার করা।

২। কদিন পরপরই সরাসরি রুকইয়াহ করানো। আর অভিজ্ঞ রাকীর নির্দেশনায় নিজে নিজে প্রতিদিন সেলফ রুকইয়াহ করা। নিয়মিত রুকইয়াতে দৃঢ় থাকা। রুকইয়ার আয়াত পড়া কালোজিরা তেল, অলিভ অয়েল, মধু, পানি ব্যবহার করা। ডিটক্স করা।

৩। রুকইয়াহ গোসল করা এবং রুকইয়াহ শোনা। এক্ষেত্রে সিহরের অডিও, আয়াতুল হারকের অডিও, রুকইয়া যিনার অডিও শোনা যেতে পারে। আর জিন সিরিজে আলোচিত রুকইয়াহ পরবর্তী নির্দেশনাগুলো খেয়াল রাখা।

৪। সুরা বাকারা, নূর, ইউসুফ তিলাওয়াত করা। তিলাওয়াত করতে না পারলে অডিও শোনা।

৫। সম্ভব হলে জীনের দূর্বলতা এবং তার অপছন্দের কাজগুলো খুঁজে বের করা এবং অপছন্দের কাজগুলো করা (শরিয়াহ বাধা না দিলে)।

৬। বাসা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা এবং রুকইয়াহর আয়াত পড়া পানি পুরো বাসায় ছিটিয়ে দেয়া বা স্প্রে করা। বাসায় নিয়মিত কোরআন তিলাওয়াত করা, কোরআন তিলাওয়াতের অডিও প্লে করা। হারাম কোনকিছু বাসায় যেন না থাকে সেদিকে খেয়াল করা। যেমন- যেকোন মূর্তি, ঝুলানো ছবি, বাসায় কুকুর রাখা, গান বাজনা হওয়া এবং টিভিতে অশ্লীল অনুষ্ঠান দেখা।

৭। কিছু নির্দিষ্ট সময় পরপর হিজামা করা। জমজমের পানি ও খেজুর খাওয়া।

৮। বিবাহিতদের জন্য ট্রিটমেন্টের মূল বিষয় হল স্বামী/স্ত্রীর ভূমিকা। একে অন্যের প্রতি রাগান্বিত না হওয়া, বেশি বেশি ভালোবাসা এবং একে অন্যকে কেয়ার করা, আনন্দে রাখার চেষ্টা করা। সর্বোপরি বাসায় ভালোবাসাময় একটা পরিবেশ সৃষ্টি করা এবং পরষ্পরের দূরত্ব যথাসম্ভব কমিয়ে আনা।

৯। পরিবারের বাচ্চাদের জড়িয়ে ধরা, চুমু খাওয়া, স্বামীর সাথে শারীরিক সম্পর্কে সময় বৃদ্ধির চেষ্টা করা এবং সেসময় পুর্ণ মনযোগ দেয়া, ক্লাইম্যাক্সে পৌঁছানো ইত্যাদি। এসব আচরণ শয়তান জিনরা অপছন্দ করে।

১০। শরীরের কোথায় জিন আছে সেটা খুঁজে বের করে রুকইয়ার আয়াত পড়ে সেখানে ফুঁ দেয়া যায়, পড়ার পরে সেখানে হালকাভাবে থুথু ছিটিয়ে দেয়া। রুকইয়ার তেল, পানি ইত্যাদিও আক্রান্ত স্থানে ব্যবহার করা যায়।

১১। যতই ভয় দেখাক, ঝামেলা করুক, বিভিন্ন কথাবার্তা বলে একজনের প্রতি আরেকজনকে বিষিয়ে তোলার চেষ্টা করুক, জিনকে কোন প্রকার পাত্তা না দেয়া। এসব জিনরা চায় আমরা তাদের গুরুত্ব দেই। তারা নিজেদেরকে গুরুত্বপূর্ণ ভাবতে ভালোবাসে, এজন্য বিভিন্ন মিথ্যা কিচ্ছা কাহিনী বর্ণনা করে।

১২। হতাশ না হওয়া। একা একা না থেকে সবসময়ই কোন না কোন কাজে ব্যস্ত থাকা। পারতপক্ষে একা না ঘুমানো।

১৩। কারো দিকে বেশি প্রশংসার দৃষ্টিতে না তাকানো। আয়না দেখার সময়ে অবশ্যই দোয়া পড়া। কাপড় বদলানোর আগে বিসমিল্লাহ বলা।

১৪। বেশি বেশি আয়না দেখার অভ্যাস থাকলে রুকইয়ার পানি আয়নাতে ছিটিয়ে দেয়া উচিত এবং আয়না সবসময় ঢেকে রাখা উচিত।

১৫। সবচেয়ে জরুরী বিষয়! দোয়া করা। দোয়া মুমিনের সবচেয়ে বড় অস্ত্র। দিনের অধিকাংশ সময়ে দোয়া করা। দোয়ার জন্য আলাদা সময় বের করে নেয়া। দুই হাত তুলে রবের নিকট দোয়া করা, যেন আল্লাহ এই সমস্যা পুরোপুরি ভালো করে দেন এবং তাদেরকে যেন আল্লাহর উপর ভরসা করে ধৈর্য্য ধরার তৌফিক দেন। ————————– পোস্টে উল্লেখিত জিন সিরিজ এবং ডিটক্স নিয়ে এখানে পাওয়া যাবে bit.ly/ruqyahindex রুকইয়াহ অডিও ruqyahbd.org/download

মূল লেখক – আবু নাদের (লন্ডনের একজন রাকী)। মূল লেখা থেকে সংজোযন ও বিয়োজন করে প্রকাশিত। লেখার সময় অনুবাদের গতানুগতিক নিয়ম অনুসৃত হয়নি, আলহামদুলিল্লাহ।

 

Written By: Abdullah Al Mahmud

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন!

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে  জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

 

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসার (রুকইয়াহ) হাদিয়া।

ঢাকার মধ্যে রুকইয়ার হাদিয়া প্রতি রোগী প্রথমবার ৫০০০ টাকা, ২য়/তয় বার ৪০০০ টাকা, আর ঢাকার বাহিরে হলে প্রথমবার ১০,০০০ টাকা, ২য়/৩য়  বার  ৮০০০ টাকা । বি. দ্রঃ খুব বেশি দূরত্ব, অসুস্থতা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং বড় বেশি কঠিন রোগীর ক্ষেত্রে হাদিয়া আলোচনা সাপেক্ষে কম বেশি হতে পারে। এই ইসলামিক চিকিৎসা পদ্ধতি দিয়ে আমাদের একমাত্র লক্ষ্য হচ্ছে, কোরআন হাদিসের চিকিৎসা সমাজে কায়েম করানো, আল্লাহ্‌ আমাদের সবাইকে দীন-ইসলামের খাদেম হিসাবে কবুল করুন, আমীন, সুম্মা আমীন।

Payment Method

Subscribe to get update abot islamc info  in your email box.


    Contact Us

    Ka/65/5, Shahjadpur, Gulshan, Dhaka.

    +88 01737 196 111 or +88 01716 988 953

    hi@islamidawahcenter.com

    www.islamidawahcenter.com


    ©2018-2021 Islami Dawah Center, All Rights Reserved

    has been added to the cart. View Cart