সারাদিন কাটুক অসংখ্য সুন্নাতে

 

১) ঘুম থেকে উঠে হাত দিয়ে মুখের ঘুমের চিহ্ন মুছে ফেলা। (বুখারী :১৮৩)
২) ঘুম থেকে জাগ্রত হয়ে দোআ পড়া। (বুখারী:৬৩১২)
৩) মিসওয়াক করা। (বুখারী :২৪৫)
৪) ঘুম হতে উঠে নাকে ৩ বার পানি দেয়া। (কারণ শয়তান রাতে নাকের ভেতর ঘুমিয়ে থাকে) (মুসলিম:২৩৮)
৫) দু হাত কবজি পর্যন্ত ধোয়া। (মুসলিম :২৭৮)
৬) বাম পা দিয়ে টয়লেটে প্রবেশ করা ও দোআ পড়া।(বুখারী :৬৩২২)
৭) ডান পা দিয়ে টয়লেট হতে বের হওয়া ও দোআ পড়া। (আবু দাউদ :৩০)
৮) অজুর সুন্নাহগুলো পালন করা- -বিসমিল্লাহ বলা
         -ডান দিক হতে অজু শুরু করা -কুলি করা
         -নাকে ৩ বার পানি দেয়া
         -২ হাত কব্জি পর্যন্ত ধোয়া -প্রত্যেকবার অজুর আগে মিসওয়াক করা -ঘন দাঁড়ি খিলাল করা
         -মাথা মাসেহ করা
         -দুহাত ও দুপায়ের আঙুলগুলো খিলাল করা -অজু শেষে দোআ পড়া।
৯) প্রত্যেক ভালো কাজ ডান দিক হতে শুরু করা, যেমন-চুল আচড়ানো, জুতা পরা, পোষাক পরা।
১০) খাওয়ার শুরু ও শেষে দোআ পড়া।
১১) বাড়ি থেকে বের হওয়া ও ঢোকার সময় দোআ পড়া।
১২) বিসমিল্লাহ বলে ডান পা দিয়ে বাড়িতে প্রবেশ করা, সালাম দেয়া।
১৩) বাম পা দিয়ে মসজিদ থেকে বের হওয়া, ডান পা দিয়ে প্রবেশ করা, দোআ পড়া।
১৪) খাওয়ার সময় পড়ে যাওয়া খাবার উঠিয়ে পরিষ্কার করে খাওয়া।
১৫) প্লেট, আঙুল চেটে পরিষ্কার করে খাওয়া।
১৬) বসে পানি পান করা।
১৭) ৩ ঢোকে পানি পান করা।
১৮) পানিতে নিঃশ্বাস না ফেলা।
১৯) পোশাক ডান দিক হতে পরা।
২০) পোশাক বাম দিক হতে খোলা।
২১) Hello, Hi, bye না বলে সালাম দেয়া।
২২) মুচকি হাঁসা।
২৩) ওপরে ওঠার সময় ” আল্লাহু আকবার “বলা।
২৪) নিচে নামার সময় “সুবহানাল্লাহ্ “বলা।
২৫) চাশত, ইশরাক,তাহাজ্জুদ এর নামাজ পড়া।
২৬) সাক্ষাতের শুরু ও শেষে সালাম দেয়া, মুসাফাহ করা।
২৭) সাক্ষাতে ভালো কথা বলা, হাসিমুখে কথা বলা।
২৮) সবসময় নেক কাজের নিয়াত করা।
২৯) সরবাবস্থায় জিকির করা। (বাসে, রিকশায়, শুয়ে বসে জিকির করা)।
৩০) দুশ্চিন্তার সময়,” লা হাওলা ওয়ালা কুওয়্যাতা ইল্লা বিল্লাহ পড়া। “
৩১) কাজ শেষে ” আলহামদুলিল্লাহ্‌ “বলা।
৩২) খারাপ অবস্থায় ” ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন ” বলা।
৩৩) হাঁচি দেয়ার পর, “আলহামদুলিল্লাহ্ ” বলা।
৩৪) হাই আসলে যথাসম্ভব মুখে হাত দিয়ে থামানোর চেষ্টা করা।
৩৫) দুঃখজনক অবস্থায়, ” আলহামদুলিল্লাহ্‌ আলা কুল্লি হাল ” বলা।
৩৬) সুন্দর কিছু দেখলে, ” মা শা আল্লাহ্ ” বলা।
৩৭) আশ্চর্যজনক কিছু দেখলে, ” সুবহান আল্লাহ ” বলা।
৩৮) ভুল কথা / কাজ হয়ে গেলে, ” আস্তাগফিরুল্লাহ্ ” বলা।
৩৯) দুপুরে খাওয়ার পর একটু শুয়ে বিশ্রাম নেয়া ।
৪০) খারাপ কিছু দেখলে, ” নাউজুবিল্লাহ্ ” বলা।
৪১) কেউ উপকার করলে, “জাযাকাল্লাহু খইর “বলা।
৪২) জাযাকাল্লাহু খইর এর উত্তরে, ” বারাকাল্লাহু ফি/ ওয়া ইয়্যাকি “বলা।
৪৩) ভবিষতে কিছু করতে চাইলে,” ইংশা আল্লাহ ” বলা।
৪৪)  কোনো অজানা বিষয়ে, “ওয়াল্লাহু আ ‘লাম ” বলা