অনিয়মিত পিরিয়ড / Irregular-Menstruation

Irregular-Menstruation

অনিয়মিত পিরিয়ড / Irregular-Menstruation

আজকাল এই সমস্যাটা নিয়ে অনেক আপু গ্রুপে পোস্ট দিচ্ছেন, ইনবক্স করছেন। বেশিরভাগ আপুই বেশ চিন্তিত এই সমস্যা নিয়ে । অনেক আপুর ধারনা যে শুধু তিনিই হয়তো এই ধরনের সমস্যা ফেস করছেন। কিন্তু আপুদের বলবো ভয়ের কিছু নেই। কারণ প্রায় প্রতিটা মেয়েই তার জীবনের কোন না সময় এই ধরনের সমস্যায় ভুগে থাকেন। তাই এইটা নিয়ে দুশ্চিন্তা করার কিছু নেই। যদি কোন আপুর এ ধরনের সমস্যা দেখা যায় তাহলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের শরণাপন্ন হবেন। আর এর পেছনে মেডিকেল প্রবলেম যেমন-পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রম,থাইরোয়েড প্রবলেম বা অন্য কোন কারণ আছে কিনা নিশ্চিত হয়ে ডাক্তারের পরামর্শ মোতাবেক চিকিৎসা নিবেন। আর যদি এ ধরনের কোন সমস্যা না থাকে তাহলে নিজেদের খাদ্যাভ্যাস, জীবনযাপন পদ্ধতির দিকে নজর দিবেন। কারণ হঠাৎ করে ওজন হ্রাস বৃদ্ধি, জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল গ্রহণের ফলেও এ ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই উদ্বিগ্ন না হয়ে সমস্যার পেছনের কারণ আগে চিহ্নিত করুন। আর সে মোতাবেক চিকিৎসা নিন।
আর যদি এ ধরনের কোন কারণ খুঁজে না পান বা সমস্যা বা পেছনের কারণ আপনার কাছে অস্বাভাবিক মনে হয় তাহলে কিছু প্রশ্নের উত্তর দিন_____
১। আপনার কি বেশিরভাগ সময়ই মাথা ব্যাথা করে??
২। ঘুম ঠিকমত হয়না?? বোবায় ধরে বা বাজে স্বপ্ন দেখেন??
৩। একা থাকতে ভালোবাসেন বা বিষন্ন থাকেন?
৪। নামাজ কালামে মন নেই??
৫। বেশিরভাগ সময়ই মেজাজ খিটখিটে থাকে??
৬। শরীরের বিভিন্ন স্থানে ব্যাথা করে? বিশেষতঃ ব্যাকপেইন আছে, কিংবা লজ্জাস্থানে ব্যথা করে?
উপরিউক্ত প্রশ্নগুলোর উত্তর যদি হ্যাঁ হয় তাহলে আপনার প্যারানরমাল সমস্যা(খারাপ বাতাস বা জ্বীনের নজর) থাকার সম্ভাবনা আছে(সঠিকটা আল্লাহ রব্বুল আ’লামীনই ভালো জানেন)। তবে এক্ষেত্রে ঘাবড়ানোর কিছু নেই। বেশিরভাগ আপুই বলেন অমুক কবিরাজ বলেছে কু-নজর লাগছে,এই হইছে ,অই হইছে বলে তাবিজ,গাছ-গাছড়া,ঝাড়ফুঁক করেন। কিন্তু কোন সমাধানই মিলেনি।এখন হতাশ হয়ে পড়েছেন। আপুদের বলবো ফকির কবিরাজের পেছনে না ছুটে কুর’আন-সুন্নাহ মোতাবেক চিকিৎসা করেন রব্বুল আ’লামিন চান তো কিছুদিনের মধ্যেই শিফা লাভ করবেন ইনশাআল্লাহ।
আমি নিজেও এই ধরনের সমস্যা ফেস করেছি। বিশেষ করে কয়েকবছর যাবত ইস্তেহাযার সমস্যা ফেস করেছি। আর এই ব্যাপারে বিশেষ কোন জ্ঞান না থাকায় সমস্যার সমাধান মিলেনি। রব্বুল আ’লামীনের কাছে চাইতে পারিনি তাই হয়তো। যদিওবা আমি ইস্তেহাযার জন্য রুকিয়া করেছিলাম না । জ্বীনের সমস্যার জন্য করেছিলাম। তারপরেও আল্লাহ রব্বুল আ’লামীনের ইচ্ছায় এই সমস্যা অনেকাংশে কমে এসেছিলো আলহামদুলিল্লাহ। এরপর পুরোপুরি সমাধানের জন্য সাত দিনের ডিটক্স করেছিলাম।এবং এরপর আর সমস্যা হয়নি আলহামদুলিল্লাহ। যেহেতু সবকিছু মেইন্টেইন করে ঠিকঠাকমত রুকিয়া করা হয়ে উঠে না । তাই জন্য সাতদিনের ডিটক্স প্রোগ্রাম করাটাই আমি প্রেফার করি।
ডিটক্স সম্পর্কে …
এরপর শারীরিক কিছু সমস্যার জন্য কয়েকমাস ধরে পিরিওড অনিয়মিত ছিল। অনেকধরনের চিকিৎসা করেও ফায়দা পাইনি তেমন। পরে হিজামা করেছিলাম মাস তিনেক আগে। আর এই তিন মাস যাবত আমার পিরিওড রেগুলার আছে আলহামদুলিল্লাহ।অবশ্য শুধু আমি না অনেক আপুই ফল পেয়েছেন আলহামদুলিল্লাহ। গতকালও এক আপু বললেন হিজামা করানোর পরে তার পিরিয়ড সংক্রান্ত সমস্যার সমাধান হয়েছে আল্লাহ তালার ইচ্ছায়।যেহেতু হিজামা একটি গুরুত্বপূর্ণ সুন্নাহ। এবং রাসূল সাঃ বলেছেন, হিজামা তে রয়েছে সমস্ত রোগের শিফা। (সহীহ বুখারী)
তাই আল্লাহ্‌ তা’আলার উপর ভরসা করে চিকিৎসা নিলে ভালো ফল পাবেন, ইনশাআল্লাহ্……
আর হ্যাঁ আমাদের এইটা মাথায় রাখতে হবে দুঃখ দুর্দশা দূর, অসুখ থেকে শিফা দানের মালিক একমাত্র তিনিই। তাই তাঁর উপর তাওয়াককুল করতে হবে এবং তাঁর কাছে সাহায্য চাইতে হবে।
আল্লাহ্‌ রব্বুল আ’লামীন আমাদের সকল প্রকার খারাবি থেকে হেফাজত করুন এবং সকলকে সুস্থ্যতা দান করুন।(আমীন)

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসার (রুকইয়াহ) হাদিয়া।

  • ঢাকার মধ্যে রুকইয়ার হাদিয়া প্রতি রোগী প্রথমবার ৫০০০ টাকা, ২য়/তয় বার ৪০০০ টাকা, আর ঢাকার বাহিরে হলে প্রথমবার ১০,০০০ টাকা, ২য়/৩য়  বার  ৮০০০ টাকা ।
  • বি. দ্রঃ খুব বেশি দূরত্ব, অসুস্থতা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং বড় বেশি কঠিন রোগীর ক্ষেত্রে হাদিয়া আলোচনা সাপেক্ষে কম বেশি হতে পারে।
  • এই ইসলামিক চিকিৎসা পদ্ধতি দিয়ে আমাদের একমাত্র লক্ষ্য হচ্ছে, কোরআন হাদিসের চিকিৎসা সমাজে কায়েম করানো, আল্লাহ্‌ আমাদের সবাইকে দীন-ইসলামের খাদেম হিসাবে কবুল করুন, আমীন, সুম্মা আমীন।

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে বিস্তারিত জানতে  এই লিংক দুটি ( লিংক০১ ও লিংক০২ ) ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

 

Islami Dawah Center Cover photo

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টারকে সচল রাখতে সাহায্য করুন!

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টার ১টি অলাভজনক দাওয়াহ প্রতিষ্ঠান, এই প্রতিষ্ঠানের ইসলামিক ব্লগটি বর্তমানে ২০,০০০+ মানুষ প্রতিমাসে পড়ে, দিন দিন আরো অনেক বেশি বেড়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

বর্তমানে মাদরাসা এবং ব্লগ প্রজেক্টের বিভিন্ন খাতে (ওয়েবসাইট হোস্টিং, CDN,কনটেন্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং, ব্লগ পোস্টিং, ডিজাইন এবং মার্কেটিং) মাসে গড়ে ৫০,০০০+ টাকা খরচ হয়, যা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সেকারনে, এই বিশাল ধর্মীয় কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে সর্বপ্রথম আল্লাহর কাছে আপনাদের দোয়া এবং আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন, এমন কিছু ভাই ও বোন ( ৩১৩ জন ) দরকার, যারা আইডিসিকে নির্দিষ্ট অংকের সাহায্য করবেন, তাহলে এই পথ চলা অনেক সহজ হয়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

যারা এককালিন, মাসিক অথবা বাৎসরিক সাহায্য করবেন, তারা আইডিসির মুল টিমের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবেন, ইংশাআল্লাহ।

আইডিসির ঠিকানাঃ খঃ ৬৫/৫, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা -১২১২, মোবাইলঃ +88 01609 820 094, +88 01716 988 953 ( নগদ/বিকাশ পার্সোনাল )

ইমেলঃ info@islamidawahcenter.com, info@idcmadrasah.com, ওয়েব: www.islamidawahcenter.com, www.idcmadrasah.com সার্বিক তত্ত্বাবধানেঃ হাঃ মুফতি মাহবুব ওসমানী ( এম. এ. ইন ইংলিশ, ফার্স্ট ক্লাস )