যুবকদের মধ্যে ঈমান উজ্জীবিত করার দায়িত্ব পালন করে না পিতা মাতা

 

 

যুবকদের মধ্যে ঈমান উজ্জীবিত করার কোনো দায়িত্ব পিতামাতা পালন করেনা। চার পাঁচ বছর পর্যন্ত খুব আদর করেছে। সাত আট বছরে স্কুলে ছেড়ে দিয়েছে। বারো তেরো বছরে আর কোনো খুজই নেয় না।

“আমার ছেলে পড়ে ”

কে বন্ধু? মসজিদে যায় কিনা? নামাজ পড়ে কিনা? কোনো খোঁজই নেয় না।
যখন ১৫,১৬,১৭,১৮ বছর বয়স হয়,
বাবাও জানে মাও জানে ❝আমার ছেলের অমুক মেয়ের সাথে Affair আছে❞

-কি যেন বলে?
-রিলেশন আছে।

শোনেন না এগুলো? বাবা মা জানেনা?
মেয়ের বাবাও জানে, ছেলের বাবাও জানে
মেয়ের মাও জানে, ছেলের মাও জানে।

যে, “এই বয়সে তো একটু কিছু হবেই। ”
এটাই তো কথা!

আচ্ছা, এই যে ছেলেমেয়ে রিলেশন করে, এটা ফরজ? না ওয়াজিব? না সুন্নত? না মুস্তাহাব?
-এটা কি?
-হারাম!

এই হারাম কাজ যদি কেউ মেনে নেয়, আওলাদ হারাম করে,
আর বলে, No problem. It’s okay.
বড় হলে সেরে যাবে, তার কি ঈমান থাকে?

শরীয়তের পরিভাষায় তাকে বলা হয় ❝দাইয়্যুস❞
-কি বলা হয়?
– দাইয়্যুস

এ হলো পিতামাতার অবস্থা।
কিন্তু প্রব্লেম অন্য জায়গায়,
ঐ যে যুবক যুবতী, ওদের ভিতরে ঈমান আছে।
ওর মা শেখাইনি, বাবা শেখাইনি, ভাই শেখাইনি, বোন শেখাইনি, স্কুলে ঈমান শেখানো হয়না, প্রতিষ্ঠানে নেই, সমাজে নেই, টিভিতে নেই..

তারপরেও ফিতরাতি, ন্যাচারাল ঈমান ওর ভিতরে নড়ে।

তাইতো, এই যে ছেলেমেয়ে রিলেশন অবৈধ হলে গুনাহ হবে, কিন্তু মন টানে, সম্পর্ক হয়ে গেছে, একে অপরের কাছে আসতে চায়।
আবার পাপের ভয়ে বলেঃ হুজুর, মোবাইলে প্রেম করলে কি গুনাহ হবে?

– হ্যা বাবা গুনাহ হবে।
-কি করবো?

ওরা তখন ঈমানের তাড়নায় কাজী অফিসে গিয়ে বিয়ে করে।

এতকাল হারাম করেছিলো বাপ মায়ের কোনো আপত্তি ছিলো না।
-বিয়ে করার পরও হারাম? ঠিক না?
-না হালাল?
-হালাল

এইবার বাপ মা আকাশ পাতাল ভেঙে ফেলে দেবে।
যে ❝ হারাম করছিলি, করছিলি।❞
❝তুই হালাল কাজটা (বিয়ে) কেন করলি❞

-আপনারা হাসছেন?
বড় আফসোস লাগে ভাইয়েরা, বড় আফসোস লাগে।

আমার এক সন্তানই বলেন আর ছোটভাই বলেন, বুয়েটের ছাত্র, ইঞ্জিনিয়ার, খুব ব্রিলিয়ান্ট ছাত্র।
বাবা মা দ্বীনদার।
ওকে হিফযখানায় দিয়েছিলো ও হাফিযও হয়েছিলো।
এরপরে আলিম পাশ করে বুয়েটে গেছে।
দাড়ি আছে। আমার সাথে “প্রশ্ন উত্তর ” শিক্ষার একটা সম্পর্ক আছে।
আমাকে বলছে স্যার – এইবার ফোর্থ ইয়ার শেষ করে যাবো।
স্যার এতদিন পাপের ভয় হতো।
খুব চেষ্টা করেছি নিজেকে পাপ থেকে রক্ষা করার।
এখন পাপ ঘটে যাচ্ছে। কিন্তু বাড়িতে যদি বিয়ের কথা বলি, মনে হয় আসমান ভেঙে পড়েছে।
বুয়েটে থেকে অনার্স পাশ করেছে, ইঞ্জিনিয়ার হয়েছে, এখন বিয়ে কেন?
আরও দশ বছর যাক, তুই আরো ডিগ্রি কর, পিএইচডি কর, প্রতিষ্ঠিত হ।
এরপরে ৩৫/৪০ এ বিয়েশাদি করবি।
যখন আর বিয়ের কোনো দরকার থাকবে না।
-তাহলে এখন কি হবে?
-এখন যেনা করবি।

তো এই হলো দ্বীনদার সমাজের অবস্থা।
আপনার ছেলে, আপনার মেয়ে বিয়ে করতে চাইলে আপনার কষ্ট লাগে।
আর ওরা অবৈধ রিলেশন করে তাতে আপনার কষ্ট লাগে না।
আপনি ইহুদি খ্রিস্টানদের ষোলো আনাই আধিপত্য মেনে নিয়েছেন।
আপনি হয়তো নামায পড়ছেন, রোজা রাখছেন, আপনি শবে বরাত করছেন, আপনি হুজুরদের ওয়াজ শুনছেন, মনে করছেন, “মাশা আল্লাহ আমি কতবড় মুসলমান ”
কিন্তু সন্তানের প্রতি দায়িত্বের এই অবহেলায় আপনাকে আল্লাহর কাছে পাকড়াও হতে হবে।

ডক্টর খন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর (রাহিমাহুল্লাহ)
শ্রুতিলিখনঃ মোহাম্মদ আলী

 

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন!

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে  জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

 

Islami Dawah Center Cover photo

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টারকে সচল রাখতে সাহায্য করুন!

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টার ১টি অলাভজনক দাওয়াহ প্রতিষ্ঠান, এই প্রতিষ্ঠানের ইসলামিক ব্লগটি বর্তমানে ২০,০০০+ মানুষ প্রতিমাসে পড়ে, দিন দিন আরো অনেক বেশি বেড়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

বর্তমানে মাদরাসা এবং ব্লগ প্রজেক্টের বিভিন্ন খাতে (ওয়েবসাইট হোস্টিং, CDN,কনটেন্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং, ব্লগ পোস্টিং, ডিজাইন এবং মার্কেটিং) মাসে গড়ে ৫০,০০০+ টাকা খরচ হয়, যা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সেকারনে, এই বিশাল ধর্মীয় কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে সর্বপ্রথম আল্লাহর কাছে আপনাদের দোয়া এবং আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন, এমন কিছু ভাই ও বোন ( ৩১৩ জন ) দরকার, যারা আইডিসিকে নির্দিষ্ট অংকের সাহায্য করবেন, তাহলে এই পথ চলা অনেক সহজ হয়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

যারা এককালিন, মাসিক অথবা বাৎসরিক সাহায্য করবেন, তারা আইডিসির মুল টিমের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবেন, ইংশাআল্লাহ।

আইডিসির ঠিকানাঃ খঃ ৬৫/৫, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা -১২১২, মোবাইলঃ +88 01609 820 094, +88 01716 988 953 ( নগদ/বিকাশ পার্সোনাল )

ইমেলঃ info@islamidawahcenter.com, info@idcmadrasah.com, ওয়েব: www.islamidawahcenter.com, www.idcmadrasah.com সার্বিক তত্ত্বাবধানেঃ হাঃ মুফতি মাহবুব ওসমানী ( এম. এ. ইন ইংলিশ )