اعوذ بالله من الشيطان الرجيم
بسم الله الرحمن الرحيم

لَقَدْ جَاءَكُمْ رَسُولٌ مِّنْ أَنفُسِكُمْ عَزِيزٌ عَلَيْهِ مَا عَنِتُّمْ حَرِيصٌ عَلَيْكُم بِالْمُؤْمِنِينَ رَءُوفٌ رَّحِيمٌ

 فَإِن تَوَلَّوْا فَقُلْ حَسْبِيَ اللَّهُ لَا إِلَٰهَ إِلَّا هُوَ ۖ عَلَيْهِ تَوَكَّلْتُ ۖ وَهُوَ رَبُّ الْعَرْشِ الْعَظِيمِ

(সূরা তাওবা, আয়াত ১২৮, ১২৯)

مَّا كَانَ مُحَمَّدٌ أَبَا أَحَدٍ مِّن رِّجَالِكُمْ وَلَٰكِن رَّسُولَ اللَّهِ وَخَاتَمَ النَّبِيِّينَ ۗ وَكَانَ اللَّهُ بِكُلِّ شَيْءٍ عَلِيمًا

إِنَّ اللَّهَ وَمَلَائِكَتَهُ يُصَلُّونَ عَلَى النَّبِيِّ ۚ يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا صَلُّوا عَلَيْهِ وَسَلِّمُوا تَسْلِيمًا 

( সূরা আহযাব, আয়াত ৫৬)

তারপরঃ

اللهم صل على محمد. كما صليت على ابراهيم وعلى ال ابراهيم. انك حميد مجيد. اللهم بارك على محمد. وعلى ال محمد. كما باركت على ابراهيم وعلى ال ابراهيم. انك حميد مجيد

او

اللهم صل على سيدنا مولانا محمد. وعلى ال سيدنا مولانا محمد

কুল কা’য়িনাত সবাই বলেন, আজকে মোদের ঈদের দিন। এ জমিনে তাশরীফ আনলেন রহমাতুল্লিল আলামীন।

গাছে চিনলো মাছে চিনলো, চিনলো বনের হরিণে, উম্মত হইয়া চিনলাম নারে, দুঃখ রইলো মনেতে।

“তাওয়াল্লুদ”

نحمد و نصلي علي رسوله الكريم و اله واصحابه اجمعين

ولما تم من حمله صلي الله عليه وسلم ستة اشهر الاقوال المروية، توفي بلمدينة الشريفة  ابوه عبد الله، وكان قد اجتاز باخواله بني عدي من الطاءفة النجارية، ومكث فيهم شهرا سقيما يعانون سقمه و شكواه ، ولما تم من حمله صلي الله عليه و سلم علي الراجح تسعة اشهر قمرية ، وان للزمان ان ينجلي عنه صداه ، حضرت امه في نسوة من الحظيرة القدسية ، واخذها المخاض ، فولدته النبية صلي الله عليه و سلم نورا يتلا لاسناه

মিলাদ শরীফ সম্পর্কে হাদিসে কিভাবে এসেছে ?

উত্তরঃ প্রসিদ্ধ হাদিসে বর্নিত হাযরাত উম্মুল মুমিনিন আয়েশা সিদ্দিকা (রাঃ) বর্ননা করেছেন যে রসুল পাক এবং আবু বকর সিদ্দিক আমার নিকট নিজ নিজ মিলাদ শরীফের বর্ননা করেছেন (ইমাম বায়হাকী এই বর্ননাটিকেকে হাসান বলেছেন) — আল যামুল কাবীর লিত তাবরানি ১ম খন্ড ৫৮ পৃ, মযমাঊল যাওয়াঈদ ৯ম খন্ড ৬৩ পৃঃ হুযুর পাক (সঃ) নিজের মিলাদ বর্ননা করে বলেন অবশ্যই আমি আল্লাহর নিকট খাতিমুল নব্বীইন নির্বাচিত হয়েছি ঐ সময় যে সময় খাতিমুল নব্বীইন নির্বাচিত হয়েছি ওই সময় যে সময় আদাম মাটি ও পানিতে মিশ্রিত অবস্থায় ছিলেন। আমি তোমাদেরকে আবারো প্রাথমিক অবস্থার খবর দিচ্ছি, আমি হচ্ছি হাযরাত আদাম (আঃ) এর দুয়া ও হযরত ঈসা (আঃ) এর খুশির বার্তা, আমার মাতার স্বপ্ন যা তিনি আমার জন্মের সময় দেখেছিলেন যে উনার মধ্য হতে একটি নূর নিগর্ত হয়েছে যার দ্বারা শাম দেশের বহু মহল রওশন হয়ে গেছে । যেসকল কিতাবে উপরের হাদিসটি বর্নিত হয়েছেঃ মিশকাতুল মাসাবিহ ৫১৩ পৃঃ, তারিখে মাদিনা ও দামাশক ইবনে আশাকির ১ম খণ্ড ১৬৮ পৃ, কানযুল উম্মাল ১১খন্ড ১৭৩ পৃঃ, মুসনাদে ইমাম আহমদ ৪ খন্ড ১৬১ পৃ, আল মুজমাল ক্বাদির ১৮ খন্ড ২৫৩ পৃঃ, মুসনাদ আফযার হাদিস নং ২৩৬৫, তাফসির দুররে মানসুর ১ম খন্ড ৩৩৪ পৃঃ, মাওয়ারেদুল জাম্মান ১ খন্ড ৫১২ পৃঃ, সহীহ ইবনে হাব্বান ৯ম খন্ড ১০৬ পৃঃ, আল মুস্তাদ্রাক লিল হাকিম ৩য় খণ্ড ২৭ পৃঃ , আল বেদায়া অয়ান নেহায়া ২য় খণ্ড ৩২১ পৃঃ, মাযমাউল যাওয়ায়েদ ৮ম খন্ড ৪০৯ পৃ প্রভৃতি হযরত মুতাল্লিব বনর্না করেছেন যে, হযরত আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু রসুল বারগাহে কিছু প্রশ্ন নিয়ে হাযির হলেন, প্রশ্ন করার পূর্বেই হুযুর মেম্বারের মধ্যে আরোহন করে বলেন- আমি কে তোমরা জানো কি ? সাহাবীগন বললেন, আপনি আল্লাহর রাসূল । আপনার প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক । তখন রাসুলুল্লাহ (সঃ) বললেন, আমি হচ্ছি আব্দুল্লাহর পুত্র এবং আব্দুল মুত্তালিবের পৌত্র মুহাম্মাদ (সঃ); আল্লাহ তা’আলা সৃষ্টিকুল সৃষ্টি করে আমাকে সর্বোত্তম সৃষ্টির অন্তর্ভূক্ত করেছেন । অতঃপর সৃষ্টিকুলকে দুটি দলে বিভক্ত করে আমাকে উত্তম দলে রেখেছেন । অতঃপর অনেক গোত্র সৃষ্টি করে আমাকে উত্তম গোত্রে সৃষ্টি করেছেন । অতঃপর আল্লাহ তা’আলা অনেক পরিবার সৃষ্টি করে আমাকে সর্বোত্তম পরিবারের অন্তর্ভুক্ত করে এবং স্বত্বাগতভাবেও সম্মানিত করেছেন । — জামে তীরমিযী ২য় খন্ড ২০১ পৃঃ, মুসনাদে ইমাম আহমদ ১ম খন্ড ৯ পৃঃ, দালায়েলুল নবুওত বায়হাকী ১ম খন্ড ১৬৯ পৃ, কানযুল উম্মাল ২য় খন্ড ১৭৫ পৃঃ


কিয়ামে আমরা কেন দাঁড়াই?


এ কথা সর্বজন বিদিত যে, মিলাদ শরীফের কিয়ামের মধ্যে মু’মিন মুসলমানগণ নবীজিকে সালাম প্রদান করেন। সালাম দেয়ার আদব কি? আসুন আমরা নবীজির হাদীস শরীফে দৃষ্টিপাত করি, যেমন বর্ণিত হয়েছে যে,
عَنْ اَبِىْ هُرَيْرَةَ رَضِىَ اللهُ عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يُسَلِّمُ الرَّاكِبُ عَلى المَاشِىِّ وَالْمَاشِىُ عَلى الْقَاعِدِ وَالْقَلِيْلُ عَلى الْكَثِيْرِ [متفق عليه ومشكاة المصابيح ـ صفحه ـ ৭৯৩] অর্থাৎ হযরত আবু হুরায়রা রাদ্বিয়াল্লাহু তা‘আলা আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু তা‘আলা আলায়হি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আরোহী ব্যক্তি পদব্রজে চলাচলকারীকে, পদব্রজে চলাচলকারী বসা ব্যক্তিকে এবং কম সংখ্যক লোক অধিক সংখ্যক লোককে সালাম প্রদান করবে। [বোখারী, মুসলিম ও মিশকাত শরীফ, পৃ. ৩৯৭] উক্ত হাদীসের اشارة النص দ্বারা বুঝা যায় যে, কোন মুসলমানকে সালাম দেয়ার আদব হলো দাঁড়িয়ে সালাম দেয়া। যেহেতু অন্য হাদীসে এসেছে- يُسَلِّمُ الْقَائِمُ عَلَى الْقَاعِدِ অর্থাৎ দাঁড়ানো ব্যক্তি সালাম প্রদান করবে বসা ব্যক্তিকে। এটা নবীজি উম্মতকে শিক্ষা প্রদান করেছেন।
উক্ত দুই হাদীসের মর্মে বুঝা যায় যে, কোন মু’মিন মুসলমানকে বসে সালাম দেয়া বেয়াদবী। সুতরাং যে নবী আমাদেরকে উক্ত আদব শিক্ষা দিলেন তাঁকে বসে সালাম দেয়া কি আদবের মধ্যে গণ্য হবে? নাকি বেয়াদবী?


না’রায়ে তাকবীর! আল্লাহু আকবার! না’রায়ে রিসালাত! ইয়া রসূলাল্লাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! সমগ্র সৃষ্টি জগতে সর্বোচ্চ আনন্দের ফোয়ারা নিয়ে ১৪০০ বছর আগে জমিনে তাশরীফ এনেছিলেন পবিত্র ১২ ই রবিউল আউয়াল শরীফে। 

সেই খুশির ধারা আজো বহমান তাই এই সুমহান ১২ ই রবিউল আউয়াল শরীফ হচ্ছে সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ। এই সুমহান দিন ঈদ পালন করেন স্বয়ং মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আ’লামীন নিজেই। ঈদ পালন করেন সকল ফিরিশতা আলাইহিমুস সালাম উনারা। সৃষ্টি জগতের সকল সৃষ্টি আজ আনন্দে আত্মহারা।সৃষ্টি জগৎ সেজেছে আজ নতুন সাজে, স্বগতম জানাতে পবিত্র এই দিনকে। রহমতের সকল দরজা আজও উন্মুক্ত। নিয়ামতের খাজিনা আজও অবারিত ধারায় প্রবাহমান। সুবহানাল্লাহ্ !!

ঈদে বিলাদতে সাইয়্যিদুল আম্বীয়ায়ি ওয়াল মুরসালীন ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। আজও আমরা গুনাহগার উম্মতরা অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে খুশি প্রকাশ করি করবো করে যাবো। ছলাত সালামে মুখোরিত হবে আমাদের দুনিয়া। হাবীবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সুমহান দীদার প্রার্থী হবো। একটু নেকদৃষ্টি সন্তুষ্টির কামনায় দু হাত পেতে রইবো………।

এই পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উপলক্ষে আপনাদের সকলের খেদমতে এক বিশেষ হাদীয়া পেশ করছি। সেটা হচ্ছে সর্বশ্রেষ্ঠ নিয়ামত পবিত্র মীলাদ শরীফ। সম্পূর্ণ মীলাদ শরীফ এর নিয়ম বাংলায় উচ্চারণ সহ দেয়া হলো। সকলেই সর্বদা পাঠ করার চেষ্টা করবেন, এবং এর উসীলায় দোয়া করবেন। এই মিলাদ শরিফ পাঠের পরে সকল দোয়া কবুল হবে, কেউ নিয়ামত প্রাপ্তি থেকে মাহরূম হবে না ইনশাআল্লাহ্‌ !

পবিত্র মীলাদ শরীফ পাঠ করার তরতীব বা নিয়মঃ

প্রথমে

اعوذ بالله من الشيطان الرجيم

بسم الله الرحمن الرحيم

يَا أَيُّهَا النَّاسُ قَدْ جَاءَتْكُم مَّوْعِظَةٌ مِّن رَّبِّكُمْ وَشِفَاءٌ لِّمَا فِي الصُّدُورِ وَهُدًى وَرَحْمَةٌ لِّلْمُؤْمِنِينَ قُلْ بِفَضْلِ اللَّهِ وَبِرَحْمَتِهِ فَبِذَٰلِكَ فَلْيَفْرَحُوا هُوَ خَيْرٌ مِّمَّا يَجْمَعُونَ

বাংলা উচ্চারণঃ ইয়া আইয়্যুহান্না-ছুকাদ জা-আতকুম মাও’ইজাতুম মির রাব্বিকুম ওয়া শিফাউল লিমাফিস সুদূরি ওয়া হুদাওঁ ওয়া রাহমাতুল্লিল মু’মিনিন। কূল বি ফাদলিল্লা-হি ওয়া বি রাহমাতিহী ফাবিযা-লিকা ফালইয়াফরাহূ হুওয়া খাইরূম মিম্মা ইয়াজমা’ঊন।

لَقَدْ جَاءَكُمْ رَسُولٌ مِّنْ أَنفُسِكُمْ عَزِيزٌ عَلَيْهِ مَا عَنِتُّمْ حَرِيصٌ عَلَيْكُم بِالْمُؤْمِنِينَ رَءُوفٌ رَّحِيمٌ

 فَإِن تَوَلَّوْا فَقُلْ حَسْبِيَ اللَّهُ لَا إِلَٰهَ إِلَّا هُوَ ۖ عَلَيْهِ تَوَكَّلْتُ ۖ وَهُوَ رَبُّ الْعَرْشِ الْعَظِيمِ

বাংলা উচ্চারণঃ আউযু বিল্লাহিমিনাশ শায়তানির রযীম। বিসমিল্লাহির রাহমানির রহীমঃ লাকাদ জা’আকুম রসূলুম মিন আনফুসিকুম আযীযুন আলাইহি মা আনিত্তুম হারীছুন আলাইকুম বিল মু’মিনিনা রউফুর রহীম। ফাইন তাওয়াল্লাও ফাক্বুল হাসবি আল্লাহু লা’ ইলাহা ইল্লাহু। আলাইহি তাওয়াককালতু , ওহুয়া রব্বুল আরশীল আযীম। (সূরা তাওবা শরিফ, আয়াত শরীফ ১২৮, ১২৯)

مَّا كَانَ مُحَمَّدٌ أَبَا أَحَدٍ مِّن رِّجَالِكُمْ وَلَٰكِن رَّسُولَ اللَّهِ وَخَاتَمَ النَّبِيِّينَ ۗ وَكَانَ اللَّهُ بِكُلِّ شَيْءٍ عَلِيمًا

বাংলা উচ্চারণঃ মা কানা মুহম্মাদুন আবা আহাদীম মির রীজালিকুম ওলাকির রসূল্লাল্লাহি ওয়া খতামান নাব্যিয়িন। ওয়া কা’নাল্লাহু বিকুল্লি শাইয়্যিন আলীমা। (সূরা আহযাব শরিফ আয়াত শরিফ ৪০)

إِنَّ اللَّهَ وَمَلَائِكَتَهُ يُصَلُّونَ عَلَى النَّبِيِّ ۚ يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا صَلُّوا عَلَيْهِ وَسَلِّمُوا تَسْلِيمًا

বাংলা উচ্চারণঃ ইন্নাল্লাহা ওয়া মালা’ইকাতাহু ইয়ুছল্লুনা আলান নাবিয়্যি। ইয়া’ আইয়্যুহাল্লাযীনা আমানু ছল্লু আলাইহি ওয়া সাল্লীমু তাসলীমা। ( সূরা আহযাব শরিফঃ আয়াত শরিফ ৫৬)

(এরপর মুহব্বতের সাথে নিম্নোক্ত দরূদ শরীফ পাঠ করুন এবং দরূদ শরীফের সাথে মিলিয়ে ক্বাছীদা শরীফ পাঠ করুন)

اللهم صل علي سيدنا مولنا رسول الله

وعلي ال سيدنا مولنا حبيب الله

বাংলা উচ্চারণঃ আল্লাহুম্মা ছল্লীআলা’ সাইয়্যিদিনা মাওলানা রাসুলাল্লাহ। ওয়াআ’লা আলি সাইয়্যিদিনা মাওলানা হাবিবিল্লাহ।

ক্বুল কা’য়িনাত সবাই বলেন, আজকে মোদের ঈদের দিন। এ জমিনে তাশরীফ আনলেন রহমাতুল্লিল আলামীন।

আল্লাহুম্মা ছল্লীআলা’ সাইয়্যিদিনা মাওলানা রাসুলাল্লাহ। ওয়াআ’লা আলি সাইয়্যিদিনা মাওলানা হাবিবিল্লাহ।

গাছে চিনলো মাছে চিনলো চিনলো বনের হরিণে উম্মত হইয়া চিনলাম নারে দুঃখ রইলো মনেতে।

আল্লাহুম্মা ছল্লীআলা’ সাইয়্যিদিনা মাওলানা রাসুলাল্লাহ। ওয়াআ’লা আলি সাইয়্যিদিনা মাওলানা হাবিবিল্লাহ।

অতঃপর যিনি মীলাদ শরীফ পাঠ করবেন তিনি নিম্নোক্ত “তাওয়াল্লুদ শরীফ” পাঠ করবেন-

اعوذ بالله من الشيطان الرجيم

بسم الله الرحمن الرحيم

نحمد و نصلي و نسلم علي رسوله الكريم و اله واصحابه اجمعين

بسم الله الرحمن الرحيم

ولما تم من حمله صلي الله عليه وسلم ستة اشهر الاقوال المروية، توفي بلمدينة الشريفة  ابوه عبد الله، وكان قد اجتاز باخواله بني عدي من الطاءفة النجارية، ومكث فيهم شهرا سقيما يعانون سقمه و شكواه ، ولما تم من حمله صلي الله عليه و سلم علي الراجح تسعة اشهر قمرية ، وان للزمان ان ينجلي عنه صداه ، حضرت امه في نسوة من الحظيرة القدسية ، واخذها المخاض ، فولدته النبية صلي الله عليه و سلم نورا يتلا لاسناه

বাংলা উচ্চারনঃ আউযু বিল্লা হিমিনাশ শায়তানির রযীম। বিসমিল্লাহির রাহমানির রহীমঃ নাহমাদুহূ ওয়া নুছল্লী ওয়া নাসাল্লিমু আলা রসূলিহিল কারীম ওয়া আলা আলিহী ওয়া আছহাবিহী আজমাঈন।

বিসমিল্লাহির রহমানির রহীমঃ ওয়া লাম্মা তাম্মা মিন হামলিহী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামা সিত্তাতু আশহূরিন আলা মাশহুরিল আক্বওয়ালিল মারবিয়্যাহ। তুউফফিয়া বিল মাদীনাতিল মুনাওয়ারাতিশ শরীফাতি হাদ্বারাত যাবিহুল্লাহিল মুকাররম আবুহু ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। ওয়া কানা কাদিজতাযা বি আখওয়ালিহী বানী আদিয়্যিম মিনাত ত্বয়িফাতিন নাজ্জারিয়্যাহ। ওয়া মাকাছা ফীহিম শাহরাং সাক্বীমাইঁ ইউয়ানূনা সুক্বমাহূ ওয়া শাকওয়াহ।

ওয়া লাম্মা তাম্মা মিন হামলিহী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আলার রাজিহি তিসয়াতু আশহূরিং ক্বামারিয়্যাহ। ওয়া আনা লিয যামানি আইঁ ইয়াংজালিয়া আনহু ছদাহ। হাদ্বারাত সাইয়্যিদাতা নিসায়িল আলামীনা উম্মাহূ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামা লাইলাতা মাওলিদিহী হাদ্বারাত উম্মুল বাশারি আলাইহাস সালাম ওয়া হাদ্বারাত উম্মু যাবীহিল্লাহিল উলা ওয়াছ ছানিয়াতু আলাইহাস সালাম ওয়া হাদ্বারাত রব্বাতু কালীমিল্লাহি আলাইহাস সালাম ওয়া হাদ্বরাত উম্মু রূহিল্লাহি আলাইহাস সালাম ফী নিসওয়াতিম মিনাল হাযীরাতিল কুদসিয়্যাহ। ওয়া আখাযাহাল মাখাদ্ব ফাওয়ালাদাতহু সাইয়্যিদাল মুরসালীন ইমামাল মুরসালীন খাতামান নাবিয়্যিন ওয়ান নূরাল মুজাসসাম হাবীবাল্লহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নূরাইঁ ইয়াতালা’লা উসিনাহ।

(তারপর সকলেই ক্বিয়াম শরীফ করবেন বা দাঁড়িয়ে মুহব্বতের সাথে নিম্নোক্ত ভাবে সালাম পেশ করবেন এবং প্রতিবার সালমের সাথে একটি করে ক্বাছীদা শরীফ পড়বেন)

صلي الله علي رسول الله – صلي الله عليه و سلم – صلي الله علي حبيب الله – صلي الله عليه و سلم

বাংলা উচ্চারণঃ

ছল্লাল্লাহু আলা রাসুলাল্লা, ছল্লাল্লা হু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ছল্লাল্লা হু আলা হাবিবাল্লাহ  ছল্লাল্লা হু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ।

আস সালামু আলাইকুম ইয়া রাসুলাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া হাবিবাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া নাবিয়াল্লাহ সালাওয়া তুল্লা আলাইকুম।

মদিনার সবুজ মিনারে দেকে নিন আপনার কিনারে চুমিবো মুবারক ক্বদম এই আশা গোলামের অন্তরে,

আস সালামু আলাইকুম ইয়া রাসুলাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া হাবিবাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া নাবিয়াল্লাহ সালাওয়া তুল্লা আলাইকুম।

দিদার হো রওজেকি তামান্না, দিলমে হো ইয়েহি তারানা, হো ক্যায়সে মদিনা যানা, ব্যকুল হ্যায় দিলে দিওয়ানা,

আস সালামু আলাইকুম ইয়া রাসুলাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া হাবিবাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া নাবিয়াল্লাহ সালাওয়া তুল্লা আলাইকুম।

আরশো কা ক্বাবা মদিনা, পরশো কা ক্বাবা মদিনা , ক্বাবাতুল ক্বাবা মদিনা, জান্নাত কা নকশা মদিনা,

আস সালামু আলাইকুম ইয়া রাসুলাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া হাবিবাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া নাবিয়াল্লাহ সালাওয়া তুল্লা আলাইকুম।

গিরনে ওয়া-লোকো সামালো , মরণে ওয়ালোকো বাঁচালো , ক্বায়েদ ছে হামকো ছুড়ালো , আপনি দামান মে ছুপালো,

আস সালামু আলাইকুম ইয়া রাসুলাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া হাবিবাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া নাবিয়াল্লাহ সালাওয়া তুল্লা আলাইকুম।

সায়্যিদে ইয়া রাসুলুল্লাহ ইয়া হাবিবুল্লাহ,

আপনি তো শাহে মাদিনা, গোলাম যে আপনার দিওয়ানা, দিদারে রওজা পাকে আপনার , নিয়ে যান শোনার মদিনা

আস সালামু আলাইকুম ইয়া রাসুলাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া হাবিবাল্লাহ আস সালামু আলাইকুম ইয়া নাবিয়াল্লাহ সালাওয়া তুল্লা আলাইকুম।

ইয়া রব্বি ছল্লি ওয়া সাল্লিম দায়িমান আবাদান আবাদা॥ খায়রি খালক্বি কুল্লিহিম, ভেজ আয় রব মেরে দরূদ আওর সালাম বর গুযীদা নবী পর আপনি মুদাম।

বালাগাল উলা বিকামালিহি + কাশাফাদদুজা বিজামালিহি। হাসুনাত জামিইউ খিছলীহি + ছল্লু আলাইহি ওয়া আলিহি।

সাল্লিমু ইয়া ক্বাওমুবাল ছল্লু আ’লা ছদরীল আমীন। মুছত্বফা মা জা’য়িল্লা রহমাতাল্লিল আ’লামীন।

আত্বিরিল্লাহুম্মা ক্বাবরাহুল কারীম + বিআরফী শাযয্যিয়্যাম ছলাতিউ ওয়া তাসলীম। আল্লাহুমা ছল্লি ওয়া সাল্লীম ওয়া বারিক আলাইহি।

( অতঃপর ছওয়াব রেসানী করে দোয়া মুনাজাত করতে হবে )

 

 

Islami Dawah Center Cover photo

 

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টারকে সচল রাখতে সাহায্য করুন!

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টার ১টি অলাভজনক দাওয়াহ প্রতিষ্ঠান, এই প্রতিষ্ঠানের ইসলামিক ব্লগটি বর্তমানে ২০,০০০+ মানুষ প্রতিমাসে পড়ে, দিন দিন আরো অনেক বেশি বেড়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

বর্তমানে মাদরাসা এবং ব্লগ প্রজেক্টের বিভিন্ন খাতে (ওয়েবসাইট হোস্টিং, CDN,কনটেন্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং, ব্লগ পোস্টিং, ডিজাইন এবং মার্কেটিং) মাসে গড়ে ৫০,০০০+ টাকা খরচ হয়, যা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সেকারনে, এই বিশাল ধর্মীয় কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে সর্বপ্রথম আল্লাহর কাছে আপনাদের দোয়া এবং আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন, এমন কিছু ভাই ও বোন ( ৩১৩ জন ) দরকার, যারা আইডিসিকে নির্দিষ্ট অংকের সাহায্য করবেন, তাহলে এই পথ চলা অনেক সহজ হয়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

যারা এককালিন, মাসিক অথবা বাৎসরিক সাহায্য করবেন, তারা আইডিসির মুল টিমের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবেন, ইংশাআল্লাহ।

আইডিসির ঠিকানাঃ খঃ ৬৫/৫, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা -১২১২, মোবাইলঃ +88 01609 820 094, +88 01716 988 953 ( নগদ/বিকাশ পার্সোনাল )

ইমেলঃ info@islamidawahcenter.com, info@idcmadrasah.com, ওয়েব: www.islamidawahcenter.com, www.idcmadrasah.com সার্বিক তত্ত্বাবধানেঃ হাঃ মুফতি মাহবুব ওসমানী ( এম. এ. ইন ইংলিশ, অল ফার্স্ট ক্লাস )

 

ছওয়াব রেসানী করার নিয়ম:-

 

১) ইস্তিগফার শরীফ তিনবার

( আসতাগফিরুল্লাহা রব্বি মিন কুল্লি জাম্বিউঁ ওয়াতুবু ইলাইহি ……)

২) আউযুবিল্লাহ শরীফ ও বিসমিল্লাহ শরীফ সহ সূরা ফাতিহা শরীফ একবার।

৩) বিসমিল্লাহ শরীফ সহ সূরা ইখলাছ (কুল হুয়াল্লাহ শরীফ) তিনবার।

৪) দরূদ শরীফ পাঁচ বার

দরূদ শরীফ – আল্লাহুম্মা ছল্লী আলা সাইয়্যিদিনা নাবিয়্যিনা হাবীবিনা শাফিয়্যিনা মাওলানা ওয়াসিলাতি ইলাইকা আলিহি ওয়া সাল্লিম। “

অতপর হাত উঠিয়ে অত্যন্ত মুহব্বতের সাথে দৃঢ় চিত্তে হাবীবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার উসীলা দিয়ে দোয়া করতে হবে। এবং দোয়ার শুরুতে, মাঝে এবং শেষে অবশ্যই দরূদ শরীফ পাঠ করতে হবে।

আমাদের অন্তরের সকল নেক দোয়া নেক আরজী কবুল করে নিন !!

আমীন ! আমীন ! আমীন !

পরিশেষে এই বিশেষ একটি ক্বওল শরীফই সকল মুসলমানের জন্য যথেষ্ট, হযরত আলি কাররামাল্লাহু ওয়জহাহু আলাইহিস সালাম বলেন-

مَنْ عَظَّمَ مَوْ لِدِ النَّبِى صَلّى اللهُ عَلَيْهِ وَ سَلَّمَ وَكَانَ سَبَبَا لِقرا ته لا يَخرج مِنَ الدُّنْيَا اِلا َّبِالاِ يْمَانِ وَيَدْخُلُ الجَنَّهَ بِغَيْرِ حِسَاب

অর্থাৎ- “যে ব্যক্তি মীলাদুন্নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনাকে সম্মান করবে হবে সে ঈমানের সাথে মৃত্যুবরণ করবে এবং বিনা হিসাবে জান্নাতে প্রবেশ করবে”।

দলীল-

√ আন নেয়মাতুল কুবরা আলাল আলাম, পৃষ্ঠা নং-৮।

না’রায়ে তাকবীর ! আল্লাহু আকবার ! না’রায়ে রিসালাত ! ইয়া রসূল্লাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম !! সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মুবারক হো ! ঈদে আযম মুবারক হো ! ঈদে আকবার মুবারক হো !

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ পোষ্ট টা পড়ে যদি ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট বক্স এ আপনার মতামত জানাবেন আর আপনার বন্ধু বান্দব দের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন্না, আসসালামু আলাইকুম, ফি আমানিল্লাহ !!! আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে সঠিক বুজ দান করুন।

মিলাদ শরীফের কিছু কাসিদা

১। নবীজি তোমারই জন্য, জীবনে হয়েছি ধন্য, মোদেরে করে নাও গন্য, হইযেন হিযবুল্লাহর সৈন্য।
২। আমরাতো নগন্য গোলাম, পড়েছি পবিত্র কালাম, নবীজির দুরুদ ও সালাম, মদিনায় পাঠাইয়া দিলাম।
৩। মদিনার অলি-গলিতে, মন চায় ছুটিয়া যাইতে, রওজায়ে আতহার চুমিতে, দরুদ ও সালাম ভেজিতে।
৪। হে নবী আপনি কি দেখা দিবেন না, হে নবী আপনি কি মদিনা নিবেন না, মনে তো মানেনা মানা, যেতে চায় সোনার মদিনা।

৫।  জিবরিলে ডাকে বারে বার, খুলে দাও আসমানের দুয়ার, এসেছেন নবীদের সরদার, করিতে মাওলার…ও দিদার।

৬। নবীজির পিতা আবদুল্লাহ, নবীজির মাতা আমিনা, নবীজির দুধমা হালিমা, নবীজির রওজা মদিনা।

৭। নবীজি নূরের-ই খনি, সেই নূরে জগত নূরানী, পরকালের খেয়া তরুণী, ভুলনা মোরা ভুলিনি।

৮। বার-ই রবিউল আউয়ালে, সোমবারে অতি সকালে, ধরায় আসিলেন নূরের-ই ছেলে, আমিনা মায়ের-ই কোলে।

৯। আশেকদের মনের বেদনা, বুঝাই-লে কেহ বোঝেনা, শুনাইলে কেহ শোনেনা, শোনেন যে শাহে মাদিনা।

১০। নবীদের সম্রাট সাজিয়া, আসিলেন ধরায় নামিয়া, উম্মাতকে এতিম বানাইয়া, ঘুমাইলেন সোনার মাদিনা।

১১। নবীজি আসিয়া ধরায়, থাকিতেন হেরার-ই গুহায়, কাঁদিতেন উম্মতের মায়ায়, এখন-ও কাঁদেন মাদিনায়।

১২। নবীগো আপনার-ই জন্য, হয়েছি মোরা যে ধন্য, মোদের-কে… করে লন গন্য, হই যেন হিযবুল্লাহর সৈন্য।

১৩। নবী-গো তুমিযে নুরেতে পয়দা, সেই নুরে তামাম জাহান পয়দা, তুমি যে কাবার-ও কাবা, আশিকদের গলার-ও মালা।

১৪। মদিনার পানে চাহিয়া, কাঁদি-যে গজল গাহিয়া, দেখা দাও পর্দা উঠাইয়া, দেখিবো নয়ন ভরিয়া।

১৫। নবীগো তুমিযে ঘুমাওনা রাতে, দেখা দাও আশিকদের সাথে, ডেকে লও তোমার রওজাতে, দরুদ ও সালাম ভেজিতে।

১৬। কানে শুনিলাম সোনার মদিনা, দেখিবার নসিব হলোনা, নিয়ে যান রওজা মাদিনা, আশিকদের মনে মানেনা।
১৭। মা-বাবাকে কবরে রাখিয়া, কাঁদিযে মিলাদ পড়িয়া, মিলাদের উছিলাতে, মা-বাবাকে নিয়েন জান্নাতে।

১৮। মোরা-যে রুহানী আওলাদ, করি-যে কাসিদা মিলাদ, পেতে চাই আপনার মোলাকাত, হাশরে করবেন শাফায়াত।

১৯। আমাদের মরণ ও কালে, নবী আপনাকে কাছে-তে পেলে, থাকবেনা মরণ যন্ত্রনা, এই টুকু-ই আমার কামনা।

২০। আপনার-ই উছিলা দিয়া, কাঁদিলেন আদম ও হাওয়া, মাবুদের হইলো দয়া, কবুল-ও করিলেন দোয়া।

২১। হে নবী মদিনায় নেবেন নি, নিলে-যে কেনই বা নেন না, কোন পথে হবো রওয়ানা, বলে দেন শাহে মদিনা।

২২। হে নবী মদিনা হইতে, সব কিছুই পারেন দেখিতে, মোদের লাশ কবরে রাখিলে, নিয়েন গো আপনার নিজ কোলে।

২৩। হে নবী এই মাহে রমজানে, সালাম পাঠাই ঐ মদিনার পানে, দেখা দেন রাতের নিরালে, মিনোতি আপনার চরনে। .

২৪। আপনার-ই হাতের ইশারায়, চন্দ্র-যে দ্বিখন্ডিত হয়, আপনার-ই মুখের-ই লালায়, কাঁটা হাত জোড়া লেগে যায়।

২৫। আপনার-ই চেহারার নূরে, মা আয়শা সূচ পেলেন খুজে, আপনার-ই ঘামের-ই সাথে, ঝড়ছে নূর ঝড়ছে অঝোড়ে।
২৬। আপনি-যে নূরের-ই রবি, নিখিলের ধ্যানেরই ছবি, আপনি না এলে দুনিয়ায়, আধারে ডুবিতো সবই। .

২৭। মিলাদে হৃদয়ে শান্তি পাই, এই উছিলায় আপনার দিদার চাই মনে চায় রওজায় ছুটে যাই, ওগো চরনে দিয়েন মোদের ঠাই। .

২৮। হে নবী সালাম লন আমার, হে রাসূল সালাম লন সবার, ইয়া হাবিব সালাম লন এই(জলছার)বাংলার, আমরাতো সবাই গুনাহগার। .

২৯। তোমারি নূরের আলোকে, জাগরন এলো ভূলোকে, গাহিয়া উঠিল বুলবুল হাসিলো কুসুম ফুলোকে। .

৩০। আশেকের চোখের-ই পানি, ঝড়িছে দিবা রজনী, তুমি যে নূরের-ই রবি তোমারই প্রেমে পাগল যে সব-ই। .

৩১। আরবের মরু প্রান্তরে, পাঠাইলেন প্রভূ আপনারে, আবদুল্লাহর জীর্ণ কুটিরে, আমেনা মায়ের-ই উদরে। .

৩২। তোমাকে দেখিবার আশায়, কত লোক গেল মদিনায়, সদা মন থাকে ব্যাকুল হয় ,কবে যে যাব মদিনায়।

৩৩। উহুদের ময়দানে যিন, দান্দান-ও শহিদ ও করি, বানাইলেন ইসলামের তরী সেই তরী নিবেন পার করি।

৩৪। যদি হইতাম মদিনা বাসি, সর্বদায় রওজায়ে আসি, মিটাইতাম মনের পিপাসা, দূর হত সকল দুর্দশা।

৩৫। মোদের এই মিলাদ ও দোয়ায়, যতটি হরফ হয় গোনায়, ততোধিক সালাম ও তোমায়, পাঠাইলাম সোনার মাদিনায়।

৩৬। তুমি যে রহমাতে ওয়ালা , যে দেখিলো তোমার চেহারা ,তার কপাল কতই যে ভালা, পেলো যে জান্নাতের মালা।

৩৭। হে নবী আপনিযে মোদের কান্ডারি, নেই কেহ মোদের দরদী, হাশরে উম্মত ও বলি, কোলেতে নিয়ে-ন ও তুলি।
৩৮। উম্মতের নাজাত লাগিয়া, জারে-জার হতেন কাঁদিয়া, কত যে রইলেন না খাইয়া, উদরে পাথর বাধিয়া।

৩৯। সৃজিলেন প্রভু আপনার নূর, সেই নূরে আধার হলো দূর, জীন-ইনসান ফেরেশতারাজি, দূরুদ ও পড়ে আপনার-ই।

৪০। আপনি যে মোদের কান্ডারি, নেই কেহ মোদের দরদী, হাশরে উম্মাত ও বলি, কোলেতে নিয়েন ও তুলি।

৪১। উড়িল আল্লাহর বাণী, পোহালো দুঃখ রজনী, করিল জগৎ নূরানী আমেনার নয়ন ও মণি।

৪২। উড়িল দোয়া-যে খলিল, হইলো যে তাওরাত ও বাতিল, মানসূখ ও ঈসার-ই ইঞ্জিল, হইলো কোরআন ও নাযিল।

৪৩। মদিনায় তাওফিক নাই যাওয়ার, সালাম ও পাঠাই বারে বার, আমরা যে উম্মাত গুনাহগার, হাশরে করে নিবেন পার।

৪৪। সবুজ ও মিনারের দিকে, উম্মাত যে তাকিয়ে থাকে, তাদের-ই মনের বাসনা, নিয়ে যান সোনার মাদিনা।

৪৫। আপনার-ই নামের উছিলায়, নবী নূহ-র-ই কিস্তি বেচে যায়, আপনার-ই মুখের-ই লালায়, কাঁটা হাত জোড়া লেগে যায়।

৪৬। নবীগো দেখিলে আপনায়, জাহান্নাম হারাম হয়ে যায়, মাওলার-ই দীদার নসিব হয়, জান্নাতের সন্ধান পাওয়া যায়।

৪৭। দিদারে রওজাকে তামান্না-, দিল মে হেঁয় এহি তারানা, হোঁ কেয়ছে মদীনা যানা-, বেকাল হাঁয় দিলে দিওয়ানা।

৪৮। ছাকি পিয়াজ বুজা দো-, শারাবে উলফত পেলাদো,, খালী হায় মেরা পায়মানা-, বেকাল হ্যায় দিলে দেওয়ানা।

৪৯। আপহি মাহবুবে ছুবহাঁ-, আপহি মামদুহে আ’জম,, আপহি নওশাহে আকরাম-, আপহি নূরে মুজাস্সাম।
৫০। কাশ হাছেল হো হুজুরী-, দুর হো যায়ে ইয়ে দুরী, দিল কি ইয়ে হাজুরত হো পুরী- দেখলো উহ শেকলে নুরী। ৫১। লায়ে যু ঈমান তুমপর-, কেওনা দে উহ যান তুমপর, মেহেরবান রহমান তুমপর- খালকে ছর কোরবান তুমপর। ৫২। আপহি ছুলতানে মদীনা- মাহবাতে অহিছ ছাকিনা, নুরছে মা’মুর ছিনা- মেশকোছে বেহতর পাছিনা। ৫৩। আরশ্-কা ক্বাবা মদীনা- পরশ-কা ক্বাবা মদীনা, ক্বাবা কা ক্বাবা মদীনা- জান্নাতুল মাওয়া মদীনা। ৫৪। সাইয়্যেদো ছারওয়ারে আলম- মুনেছো গামখারে আলম, মালেকো মুখতারে আলম- রওন্কে বাজারে আলম।

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন!

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে  জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

 

 

মিলাদ-কিয়াম প্রমাণে ভারতবর্ষের কয়েকজন আলেমের বক্তব্যের ভুল প্রয়োগ ও তার স্বরূপ

মাওলানা ইমদাদুল হক

একথা সর্বজন স্বীকৃত যে, মিলাদ-কিয়াম নবীজী, সাহাবা, তাবেয়ীন, তাবে তাবেয়ীনের কোনো আমল নয়; এটি অনেক পরের সৃষ্টি। একথা খোদ যারা মিলাদ-কিয়াম করে তারাও মানে। মিলাদ-কিয়ামের যারা প্রবক্তা তারা এর সমর্থনে কিছু আলেম-উলামার বক্তব্য পেশ করে থাকেন। ভারতবর্ষের বড় বড় কিছু আলেম-উলামার বক্তব্যও তারা তুলে ধরে থাকেন। বাস্তবে এসব দিয়ে দলীল পেশ করা সঠিক নয়। কেননা কোথাও মূল বক্তব্য না পড়ে শুধু কারো তরজমার উপর নির্ভর করা হয়েছে, কোথাও বক্তব্যের অর্থ সঠিক হয়নি, কোথাও আংশিক বক্তব্য উল্লেখ করা হয়েছে।

নিম্নে ভারতবর্ষের কয়েকজনের বক্তব্য নিয়ে পর্যালোচনা পেশ করা হল এবং ভুল চিহ্নিত করে দেওয়া হল।

এক : শায়েখ আব্দুল হক মুহাদ্দিসে দেহলবী রাহ. (মৃত্যু : ১০৫২ হি.)

শায়েখ আব্দুল হক দেহলবী রাহ. ‘আখবারুল আখইয়ার’ নামে ছুফিয়ায়ে কেরামের একটি জীবনীগ্রন্থ লেখেন। এ জীবনীর শেষে একটি দীর্ঘ মুনাজাত লিখে কিতাবটি সমাপ্ত করেন। এ কিতাবটি ফার্সি ভাষায়। এর উর্দূ অনুবাদ হয়েছে। উক্ত অনুবাদের ৬২৪ নং পৃষ্ঠায় আছে যে, তিনি মুনাজাতে বলেন-

اے الله ميرا كوئی عمل ایسا نہیں ہے جسےآپکے دربار میں پیش کرنے کے لائق سمجھوں ،  میرے تمام اعمال میں فساد نیت موجود رہتی ہے  البتہ مجھ حقیر فقیر کا ایک عمل صرف تیری ذات پاک کی عنایت کی وجہ سے بہت شاندار ہے  اور وہ یہ ہے کہ مجلس میلادکے موقع پر میںکھڑے ہو کر سلام پڑھتا ہوں اور نہایت ہی عاجزی و انکساری محبت وخلوص کے  ساتھ تیرے حبیب پاک صلی اللہ علیہ و سلم پر درود و سلام بھیجتا رہا ہوں۔

اے اللہ وہ کونسا مقام ہے جہاں میلاد مبارک سے  زیادہ تیری خیر وبرکت کا نزول ہوتا ہے؟ اسلئے اے ارحم الراحمین مجھے پکا یقین ہے کہ میرا  یہ عمل کبھی بیکار نہ جائیگا بلکہ یقینا تیری بارگاہ میں قبول ہوگا اور جو کوئی درود وسلام پڑھے اور اسکے ذریعہ دعاکرے وہ کبھی مسترد نہیں ہوسكتى  ۔

অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আমার এমন কোনো আমল নেই, যা আপনার দরবারে পেশ করার উপযুক্ত মনে করি, আমার সব আমলেই মন্দ নিয়ত থাকে। তবে আমার মত নগণ্যের একটি আমল আপনার তাওফীকে অনেক মহান, তা হল আমি মীলাদের মজলিসে দাঁড়িয়ে সালাম পড়ি এবং খুব কাতর হয়ে অত্যন্ত মহব্বত ও ইখলাসের সাথে আপনার হাবীবের উপর দরূদ-সালাম পাঠ করি। হে আল্লাহ! কোন্ জায়গা আছে, যেখানে মিলাদ মোবারক থেকে বেশি আপনার খায়র ও বরকত নাযিল হয়? এজন্য আমার নিশ্চিত বিশ্বাস আমার এ আমল কখনো নিষ্ফল হবে না, বরং আপনার দরবারে অবশ্যই কবুল হবে, আর যে কেউ দরূদ-সালাম পড়ে এবং তার ওসীলায় দুআ করে তার দুআ কখনো ফিরিয়ে দেওয়া হয় না।’

এ হল উর্দূ অন্বুাদ ও তার বাংলা অনুবাদ। উর্দূ অনুবাদে স্পষ্টভাবে এসেছে যে, তিনি মিলাদ মাহফিলে কিয়াম করতেন এবং দাঁড়িয়ে সালাম পাঠ করতেন। আর মিলাদের মজলিশ থেকে উত্তম কোন জায়গা তার নিকট নেই, এ আমলটিই তার  শ্রেষ্ঠ আমল।

এ অনুবাদ হল মাওলানা সুবহান মাহমুদ ও মাওলানা মোহাম্মদ ফাযিল সাহেবের, এ অনুবাদটি ভারত, পাকিস্তান থেকে ছাপা হয়।

কিন্তু আমরা যখন মূল কিতাব দেখি সেখানে মিলাদ শব্দের অস্তিত্বও খুঁজে পাই না আর তা পাওয়ার কথাও না। কেননা তার বক্তব্যটি আরেক ক্ষেত্রের কিন্তু অনুবাদক নিয়ে গেছেন মিলাদের ক্ষেত্রে। শায়েখের বক্তব্য হল, শায়েখ যখন মদীনায় নবীজীর রওজায় যান এবং সেখানে দাঁড়িয়ে অন্যদের ন্যায় দরূদ-সালাম পাঠ করেন, সেটিই তার নিকট শ্রেষ্ঠ আমল। আর নবীজীর রওযা থেকে উত্তম কোন্ জায়গা আছে, যেখানে খায়র-বরকত অধিক নাযিল হয়। এবার আমরা শায়েখের হুবহু বক্তব্য পাঠ করি-  

خداونداہیچ عملے ندارم کہ شائستہ درگاہ تو بود ،ہمہ بعلت نقصان معلول وبمفسدات نیت مشمول جز یک عمل کہ ہر چند نسبت بایں جانب حقیر باشد ، ولیکن بذات پاک تو کہ بس عظیم و خطیر است  اگر چہ اعمال بندگان ہمہ نقصان وتقصیر موصوف است اما زبان ادب نیست تقصیر بآں عمل راضی نیست ، آں عمل کدام است ، قیام بندگان در حضرت حبیب تو باتحفۂ صلاۃ وسلام برآں حضرت صلی اللہ علیہ و آلہ وسلم بنعت تضرع وانکسار و عجز وافتقار، خداوندا! کدام موقف ومحل  باشد کہ افاضۂ خیر ونزول رحمت دروے زیادہ ازینجا باشد، خداوندا! یقین صادق است کہ ایں عمل مقبول درگاہ تو خواہد بود ورد وبطلان را بداں راہ  نہ۔ حاشا حاشا ومن جاء ہذا الباب لا یخشی الرد۔

‘হে আল্লাহ! আমার এমন কোনো আমল নেই, যা আপনার দরবারের উপযুক্ত। সব আমলই অসম্পূর্ণতা ও বদ নিয়তের দোষে দূষিত; শুধু একটি আমল ব্যতীত, যা আমি অধমের দিকে লক্ষ্য করলে একেবারে ক্ষুদ্র কিন্তু আপনার হিসেবে অনেক বড়। যদিও বান্দার সব আমলই দোষ-ত্রুটি ও অসম্পূর্ণতায় ভরপুর। একদিকে আমার নিকট আদবপূর্ণ ভাষা নেই অপরদিকে এ মহিমান্বিত আমল ত্রুটিযুক্ত হওয়াও বাঞ্ছনীয় নয়। অর্থাৎ আপনার হাবীবের দরবারে দাঁড়িয়ে অত্যন্ত অনুনয়-বিনয় এবং আদব ও মিনতির সাথে সালাত ও সালামের তোহফা পেশ করা।  

কিন্তু হে আল্লাহ! কোন্ জায়গা আছে, যেখানে এ জায়গার তুলনায় অধিক রহমত ও কল্যাণ নাযিল হয়?

হে আল্লাহ আমার সত্যিই বিশ্বাস যে, এ আমল আপনার দরবারে কবুল হবে এবং তা ফিরিয়ে দেওয়া হবে না।’

আমাদের নিকট আখবারুল আখইয়ারের প্রাচীন দুইটি ছাপা আছে, একটি হল মাওলানা আহমদ আলী সাহারানপুরীর মাতবাআয়ে আহমদী থেকে ১২১৭ হিজরী সনের ছাপা, তাতে উক্ত বক্তব্যটি ৩৬৫-৩৬৬ পৃষ্ঠায়, আরেকটি হল মাতবাআয়ে মুহাম্মদ দিল্লী থেকে ছাপা, তা এখানে স্পষ্ট এসেছে যে (در حضرت حبیب تو) আপনার হাবীবের দরবারে উপস্থিতিতে অর্থাৎ ‘মদীনায় নবীজীর রওযায়’। আর এমন কোন্ জায়গা আছে, যেখানে এ জায়গা থেকে অধিক খায়র ও রহমত নাযিল হয়? কেননা মদীনাতে যেহেতু স্বয়ং নবীজী বিদ্যমান তাই সেখানে খায়র ও বরকত বেশি নাযিল হয়। আর প্রচলিত মিলাদ মাহফিলে (তাদের কথা অনুযায়ী) যদি খায়র ও বরকত নাযিল হয়ও, তাহলেও তো তার থেকে অধিক রহমত নাযিল হয় এমন জায়গা আছে, আর তা হল যে স্বয়ং নবীজী শুয়ে আছেন।

শায়েখ দেহলবী রাহ.-এর পুরো বক্তব্যে একবারও মিলাদ শব্দটি ব্যবহৃত হয়নি। কিন্তু উর্দূ তরজমায় দুই-দুই বার শব্দটি ব্যবহার করা হয়েছে এবং সেখান থেকে বাংলা অনুবাদেও তা লুফেফ নেওয়া হয়েছে। তো যাই হোক শায়েখ দেহলবী রাহ.-এর বক্তব্য হল নবীজীর রওযায় দাঁড়িয়ে সালাত-সালাম পাঠ করা সম্পর্কে, মিলাদ মাহফিলের কিয়ামে সালাত-সালাম পাঠ সম্পর্কে নয়।

আখবারুল আখইয়ারের আরেকটি তরজমা আছে, যা আনওয়ারে ছুফিয়া নামে লাহোর থেকে ছেপেছে, তাতে উক্ত বক্তব্যের তরজমা সঠিকভাবে এসেছে-

میرا کوئی عمل ایسا نہیں جو تیری درگاہ کے لائق ہو۔ سب علت نقصان وفساد نیت سے پر ہیں ، بجز ایک  عمل کے کہ ہر چند میری نسبت سے حقیر ہے لیکن تری ذات پاک کی قسم کہ بہت عظیم و خطیر ہے ،اگر چہ بندوں کےسب اعمال نقصان وتقصیر کے ساتھ موصوف ہیں مگر خاکم بدھن اس عمل کے ساتھ تقصیر پسندیدہ نہیں ، وہ کیا عمل ہے ، یعنی ترے حبیب (صلی اللہ علیہ وسلم) کے حضور میں بندوں کا قیام آنحضرت صلی اللہ علیہ پر بنعت تضرع وانکسار وعجزوفروتنی تحفۂ صلاۃ وسلام کے ساتھ ، خداوندا! وہ کونسا موقف ومحل ہوگا جہاں افاضۂ خیرونزول رحمت اس سےزیادہ ہوتا ہے؟ خداوندا! مجھ کویقین صادق ہے کہ یہ عمل تیری درگاہ میں مقبول ہوگا اور ہرگز باطل نہ ہوگا۔ حاشاحاشا ومن جاء ھذا الباب لایخشی الرد۔

আনওয়ারে সুফিয়া পৃ : ৫৭৬

দুই : ফুয়ূযুল হারামাইনে শাহ ওলিউল্লাহ রাহ.-এর বক্তব্য

১১৪৩-৪৪ হিজরীতে শাহ ওয়ালীউল্লাহ রাহ. হজ্বে গমন করেন। এ হজ্বে তিনি অনেক ইলহাম, দিলের নূরানী হালাত ইত্যাদি অর্জন করেন। এসব কিছু নিয়ে তিনি একটি গ্রন্থ রচনা করেন। নাম দেন ফুয়ূযুল হারামাইন।

এ কিতাবের ৮০নং পৃষ্ঠার বরাতে শাহ ওলিউল্লাহ রাহ.-এর একটি বক্তব্য পেশ করা হয়, তাতে নাকি তিনি লিখেছেন, তিনি মক্কা শরীফে এক মিলাদ মাহফিলে উপস্থিত হয়েছেন এবং তাতে অনেক নূর ও বরকত প্রত্যক্ষ করেছেন।

আসলে এক হল ‘মীলাদুননবী’ (যা জনসাধারণের মাঝে প্রসিদ্ধ) আরেকটি হল ‘মাওলিদুন্নাবী’, যার অর্থ নবীজীর জন্মের স্থান অর্থাৎ নবীজী যে ঘরে জন্মগ্রহণ করেছেন। মক্কাতে এখনো সে স্থান সংরক্ষিত আছে, যেখানে নবীজী জন্মগ্রহণ করেছিলেন। মাওলিদুন্নাবী নামে তা প্রসিদ্ধ। হাজ্বী সাহেবান অন্যান্য স্মৃতিময় স্থানসমূহের ন্যায় এ ঘরও দেখতে যান। দেখতে গিয়ে স্বীয় আবেগে সেখানে কেউ কেউ দরূদ পড়েন, কেউ তিলাওয়াত, যিকির-আযকার করেন। শাহ ওলিউল্লাহ রাহ.-ও তার সেই সফরে নবীজীর জন্মস্থানে যান, সেখানে মানুষ দরূদ পাঠ করছিল এবং তাঁর জন্ম বৃত্তান্ত নিয়েও আলোচনা করছিল। শাহ ওলিউল্লাহ রাহ. এসব অবস্থা প্রত্যক্ষ করলেন এবং খুব আলোকময়তা অনুভব করলেন।

وكنت قبل ذلك بمكة المعظمة في مولد النبي صلى الله عليه وسلم في يوم ولادته والناس يصلون على النبي صلى الله عليه وسلم ويذكرون إرهاصاته التي ظهرت في ولادته ومشاهدته قبل بعثته، فرأيت أنوارا سطعت دفعة واحدة، لا أقول إني أدركتها ببصر الجسد، ولا أقول أدركتها ببصر الروح فقط، والله أعلم كيف كان الأمر بين هذا وذلك، فتأملت تلك الأنوار فوجدتها من قبل الملائكة الموكلين بأمثال هذه المشاهد وبأمثال هذه المجالس، ورأيت يخالط أنوار الملائكة أنوار الرحمة.

অর্থ : আমি একবার নবীজীর জন্মের তারিখে মক্কা মুয়াযযামায় ‘মাওলিদুন্নাবী’-নবীজীর জন্মস্থানে ছিলাম। দেখলাম উপস্থিত মানুষেরা দরূদ পাঠ করছে। নবীজীর জন্মের সময় ও তার পূর্বে যেসব অলৌকিক ঘটনাবলী ঘটেছিল সেসবের আলোচনা করছে, আমি সেখানে অনেক নূর প্রত্যক্ষ করলাম, যেগুলো একইসাথে ঝলমল করে উঠেছিল। আমি বলি না যে, তা আমি চর্মচক্ষে দেখেছি এবং এও বলি না যে, আমি তা আত্মার দৃষ্টিতে প্রত্যক্ষ করেছি, আল্লাহই ভালো জানেন, যেমনই হোক আমি নূরগুলো নিয়ে ভাবতে লাগলাম তখন দেখলাম এ নূরগুলো সেসব ফেরেশতাদের পক্ষ হতে, যেসব ফেরেশতাদের এসব স্থান ও এসব মজলিশের জন্য নিযুক্ত করা হয়। আর দেখেছি যে, ফেরেশতাদের নূরের সাথে রহমতের নূরও মিশ্রিত হচ্ছে। -ফুয়ূযুল হারামাইন, পৃ. ৮০ (মাতবায়ে সাঈদী, করাচী থেকে প্রকাশিত)  

তো শাহ ছাহেব গিয়েছেন ‘মাওলিদুন্নাবী’ তথা নবীজীর জন্মস্থানে, প্রচলিত ‘মীলাদুন্নবীতে’ নয়।

ফকীহুননাফ্স মাওলানা রশীদ আহমদ গাঙ্গুহী রাহ.-এর নিকট ফুয়ূযুল হারামাইন-এর বক্তব্য সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয়। জবাবে তিনি বলেন-

فیوض الحرمین میں حاضری مولد النبی میں کہ مکان ولادت آپ علیہ السلام کا ہے  لکھا ہے وہاں ہر روز زيارت کے واسطے لوگ جاتے ہیں  يوم ولادت ميں بھی لوگ جمع تھے اور صلاۃ و ذکر کرتے تھے،  نہ وہاں تداعی سے اہتمام طلب کے  تھے نہ کوئی مجلس تھی بلکہ وہاں لوگ خود بخود جمع ہوکر کوئی درود پڑھتا تھا  کوئی ذکر معجزات کرتا تھا  نہ کوئی شیرہنی نہ چراغ نہ کچھ اورنفس ذکر کو کوئی منع نہیں کرتا واللہ تعالی اعلم ۔

ফুয়ূযুল হরামাইনে নবীজীর জন্মস্থানে উপস্থিতির কথা উল্লেখিত হয়েছে, (মীলাদ মাহফিল নয়)। সেখানে দেখার জন্য প্রতিদিন মানুষ যায়, নবীজীর  জন্মের তারিখেও লোকেরা একত্রিত হয়েছে এবং যিকির ও দরূদ পাঠ করেছে। এ একত্রিত হওয়ার পেছনে কোনো আয়োজন ছিল না, কেউ কাউকে ডাকেওনি; বরং প্রত্যেকে  ব্যক্তিগতভাবে এসেছে এভাবে একত্রিত হয়ে গেছে। এরপর কেউ দরূদ পাঠ করেছে কেউবা জন্মকালীন মুজিযা নিয়ে আলোচনা করেছে, সেখানে না কোন শিরনি ছিল, না আলোকসজ্জা না অন্য কোনো কিছু। তো শুধু জন্ম বৃত্তান্ত আলোচনা কে নিষেধ করে?

ফাতাওয়া রশিদিয়া, পৃ. ২৩৬

তো একটি হল ‘মীলাদুন্নবী’ আরেকটি হল ‘মাওলিদুন্নাবী’। শাহ ছাহেব রাহ.-এর বক্তব্যে এসেছে দ্বিতীয়টি আর এটাকে মনে করা হচ্ছে ‘মীলাদুন্নবী’।

তিন : মুজাদ্দিদে আলফে সানী (মৃত্যু: ১০৩৪ হি.)

এ প্রসঙ্গে মুজাদ্দিদে আলফে সানীর মাকতুবাত থেকেও একটি বক্তব্য পেশ করা হয়। তাঁর নিকট তাঁর এক মুরিদ পত্র প্রেরণ করে। তাতে মিলাদ সম্পর্কেও জিজ্ঞাসা করা হয়, জবাবে মুজাদ্দিদ রাহ. লিখেন-

نفس قرآں خواندن بصوت حسن و درقصائد نعت ومنقبت خواندن چہ مضائقہ است ممنوع تحریف وتغییر حروف قرآن است والتزام رعایت مقامات نغمہ وتردید صوت بآں طریق الحان بالتصفیق مناسب آں کہ درشعر نیزغیر مباح است اگر برنہجے خوانند کہ تحریفے در کلمات قرآنی واقع نشود و در قصائد خواندن شرائط مذکورہ متحقق نگردد و آں راہم بغرض صحیح تجویز نمایند چہ مانع است؟

সুমিষ্ট স্বরে কুরআন পড়া এবং নবীজীর প্রশংসায় কবিতা পাঠে দোষের কী আছে? নিষিদ্ধ তো হল কুরআনের বিকৃতি, অক্ষর পরিবর্তন ইত্যাদি। আর সুরের পথ ধরে গানের ন্যায় ছন্দময় সুর তোলা ও সে অনুযায়ী তালি বাজানো, যা কবিতার মধ্যেও নাজায়েয। আর যদি কুরআনের অক্ষর ও শব্দ বিকৃত না হয় এবংনবীজীর প্রসংসায় কবিতা পাঠে উল্লেখিত বিষয় না থাকে। সাথে সাথে নিয়তও সহীহ হয় তাহলে তাতে নিষিদ্ধতার কী আছে?। -মাকতুবাত, দফতর ৩, মাকতুব নং ৭২

মুজাদ্দিদ রাহ.-এর উদ্দেশ্য হল, মিলাদে যদি সুন্দরভাবে কুরআন পাঠ হয় আর তাতে অন্যান্য শরয়ী সমস্যাবলী না থাকে তাহলে তা পাঠে অসুবিধা নেই।

যারা মুজাদ্দিদ রাহ.-এর বক্তব্যটি উদ্ধৃত করে থাকে তারা শুধু এতটুকুই উদ্ধৃত করে থাকে। অর্থাৎ তাঁর পূর্ণ বক্তব্য তুলে ধরে না। মুজাদ্দিদ রাহ. এটুকু বলার পর আরো যা বলেন, সেটিই হল বিবেচ্য বিষয়। তিনি এরপর বলেন,

مخدوما بخاطر فقیر میرسد ایں باب مطلق نکنند، بو الہوسان ممنوع نہ میکردند اگر اندک تجویز کردن بتجربہ بسیار خواہد شد قلیلہ یفضي الی کثیرہ قول مشھور ست۔

অধমের মন বলে, এ পথ যেন না খোলা হয়, তা না হলে পেট-পূজারীদের পথ বন্ধ হবে না, অভিজ্ঞতার আলোকে বলছি, যদি সামান্যও ছাড় দেওয়া হয় তাহলে অনেক বেশিতে পৌঁছে যাবে, ‘এর সামান্যও অনেক বেশির দিকে নিয়ে যাবে’। -প্রাগুক্ত

অর্থাৎ সুর তরঙ্গ, কুরআন বিকৃতি, ইত্যাদি থেকে মুক্ত হলেও এ ধরনের মিলাদের পথ খোলা যাবে না। কেননা এটুকু যদি খোলা হয় তাহলে  সেটি অনেক ফাসাদের দিকে নিয়ে যাবে।

তাহলে সারকথা দাঁড়াল, যেসব মিলাদকে শরীয়াবিরোধী বিষয় থেকে মুক্ত বলা হয় এবং বিদআতে হাসানা আখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করা হয় সেগুলোর ব্যাপারেও তিনি নিজ মুরীদদেরকে নিরুৎসাহিত করেছেন। তারিখ : ২৩-১২-১৪৩৯ হি.

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন!

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন!

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে  জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

 

 

Islami Dawah Center Cover photo

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টারকে সচল রাখতে সাহায্য করুন!

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টার ১টি অলাভজনক দাওয়াহ প্রতিষ্ঠান, এই প্রতিষ্ঠানের ইসলামিক ব্লগটি বর্তমানে ২০,০০০+ মানুষ প্রতিমাসে পড়ে, দিন দিন আরো অনেক বেশি বেড়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

বর্তমানে মাদরাসা এবং ব্লগ প্রজেক্টের বিভিন্ন খাতে (ওয়েবসাইট হোস্টিং, CDN,কনটেন্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং, ব্লগ পোস্টিং, ডিজাইন এবং মার্কেটিং) মাসে গড়ে ৫০,০০০+ টাকা খরচ হয়, যা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সেকারনে, এই বিশাল ধর্মীয় কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে সর্বপ্রথম আল্লাহর কাছে আপনাদের দোয়া এবং আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন, এমন কিছু ভাই ও বোন ( ৩১৩ জন ) দরকার, যারা আইডিসিকে নির্দিষ্ট অংকের সাহায্য করবেন, তাহলে এই পথ চলা অনেক সহজ হয়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

যারা এককালিন, মাসিক অথবা বাৎসরিক সাহায্য করবেন, তারা আইডিসির মুল টিমের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবেন, ইংশাআল্লাহ।

আইডিসির ঠিকানাঃ খঃ ৬৫/৫, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা -১২১২, মোবাইলঃ +88 01609 820 094, +88 01716 988 953 ( নগদ/বিকাশ পার্সোনাল )

ইমেলঃ info@islamidawahcenter.com, info@idcmadrasah.com, ওয়েব: www.islamidawahcenter.com, www.idcmadrasah.com সার্বিক তত্ত্বাবধানেঃ হাঃ মুফতি মাহবুব ওসমানী ( এম. এ. ইন ইংলিশ, অল ফার্স্ট ক্লাস )