মদ কাকে বলে ও মদের বিস্তারিত আলোচনা

প্রশ্ন:- মদ অর্থ কি ?

উত্তর:- মদ অর্থ আওয়াজ কে টানিয়া পড়া।

প্রশ্ন:- মদ এর হরফ কয়টি ও কি কি?

উত্তর:-মদ এর হরফ ৩টি। যথা:-  واي

প্রশ্ন:-মদ কত প্রকার ও কি কি?

উত্তর:- মদ মোট ১০ প্রকার:- (১) মদ্দে তাবায়ী (২) মদ্দে মুত্তাসিল (৩) মদ্দে মুনফাসিল (৪) মদ্দে আরেজী (৫) মদ্দে লীন (৬) মদ্দে বদল

(৭) মদ্দে লাযিম কালমী মুসাক্কাল (৮) মদ্দে লাযিম কালমী মুখাফফাফ (৯) মদ্দে লাযিম হরফী মুসাক্কাল (১০) মদ্দে লাযিম হরফী মুখাফফাফ।

প্রশ্ন:- মদ্দে তাবায়ী কাকে বলে?

ওয়াও সাকিন ডানে পেশ, ইয়া সাকিন ডানে যের, আলিফ খালি ডানে যবর আসিলে এক আলিফ টানিয়া পড়িত হয়।

ইহাকে মদ্দে তাবায়ী বা মদ্দে আছলী বলে।

যথা:- نوحيها

প্রশ্ন:- মদ্দে মুত্তাসিল কাকে বলে?

উত্তর:- একই শব্দে মদের হরফের পর “হামযা” আসিলে চার আলিফ টানিয়া পড়িত হয়। ইহাকে মদ্দে মুত্তাসিল বলে।

যথা:- سوء- جاء

প্রশ্ন:- মদ্দে মুনফাসিল কাকে বলে?

উত্তর:- মদের হরফের পরে অন্য শব্দের প্রথমে ” হামযা” আসিলে ৩ বা ৪ আলিফ টানিয়া পড়িতে হয়। ইহাকে মদ্দে মুনফাসিল বলে।

যথা:- بما انزل-انا امنا

প্রশ্ন:- মদ্দে আরেজী কাকে বলে?

উত্তর:- মদের হরফের পরে ওয়াক্বফ করিলে এবং পরবর্তী হরফটি অস্থায়ী সাকিন হইলে ৩ আলিফ টানিয়া পড়িত হয়। ইহাকে মদ্দে আরেজী বলে।

যথা:- تعلمون – حساب

প্রশ্ন:- মদ্দে লীন কাকে বলে?

ওয়াও সাকিন অথবা ইয়া সাকিন এর পূর্বে যবর হইলে এবং পরবর্তী হরফে ওয়াক্বফ করিলে ১ আলিফ টানিয়া পড়িতে হয়। ইহাকে মদ্দে লীন বলে।

যথা:- خوف -سير

প্রশ্ন:- মদ্দে বদল কাকে বলে?

মদের হরফের পূর্বে “হামযা” আসিলে ১ আলিফ টানিয়া পড়িতে হয়।ইহাকে মদ্দে বদল বলে।

যথা:- امنوا – ايمانا – اوتي

প্রশ্ন:- মদ্দে লাযিম কাকে বলে?

উত্তর:- মদের হরফের পর আসলী সাকিন আসিলে যে মদ হয়,  ইহাকে মদ্দে লাযিম বলে।

যথা:- الءان – دابه

প্রশ্ন:- মদ্দে লাযিম কালমী মুসাক্কাল কাকে বলে?

উত্তর:- একই শব্দে মদের হরফের পরে তাশদীদ যুক্ত হরফ আসিলে ৪ আলিফ টানিয়া পড়িতে হয়। ইহাকে মদ্দে লাযিম কালমী মুসাক্কাল বলে।

 

Islami Dawah Center Cover photo

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টারকে সচল রাখতে সাহায্য করুন!

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টার ১টি অলাভজনক দাওয়াহ প্রতিষ্ঠান, এই প্রতিষ্ঠানের ইসলামিক ব্লগটি বর্তমানে ২০,০০০+ মানুষ প্রতিমাসে পড়ে, দিন দিন আরো অনেক বেশি বেড়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

বর্তমানে মাদরাসা এবং ব্লগ প্রজেক্টের বিভিন্ন খাতে (ওয়েবসাইট হোস্টিং, CDN,কনটেন্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং, ব্লগ পোস্টিং, ডিজাইন এবং মার্কেটিং) মাসে গড়ে ৫০,০০০+ টাকা খরচ হয়, যা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সেকারনে, এই বিশাল ধর্মীয় কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে সর্বপ্রথম আল্লাহর কাছে আপনাদের দোয়া এবং আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন, এমন কিছু ভাই ও বোন ( ৩১৩ জন ) দরকার, যারা আইডিসিকে নির্দিষ্ট অংকের সাহায্য করবেন, তাহলে এই পথ চলা অনেক সহজ হয়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

যারা এককালিন, মাসিক অথবা বাৎসরিক সাহায্য করবেন, তারা আইডিসির মুল টিমের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবেন, ইংশাআল্লাহ।

আইডিসির ঠিকানাঃ খঃ ৬৫/৫, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা -১২১২, মোবাইলঃ +88 01609 820 094, +88 01716 988 953 ( নগদ/বিকাশ পার্সোনাল )

ইমেলঃ info@islamidawahcenter.com, info@idcmadrasah.com, ওয়েব: www.islamidawahcenter.com, www.idcmadrasah.com সার্বিক তত্ত্বাবধানেঃ হাঃ মুফতি মাহবুব ওসমানী ( এম. এ. ইন ইংলিশ, ফার্স্ট ক্লাস )

 

নুন সাকিন ও তানভীনের কায়দা

 

প্রশ্ন:- নুন সাকিন কাকে বলে?

উত্তর:- নূন সাকিন: [ ‫نْ‬ ] জযমযুক্ত নূনকে নূন সাকিন বলা হয়, অর্থাৎ যে নূনের ওপর জযম [ ٨ ٫] থাকে তাকে নূন সাকিন বলে।

যথা-اَنْ – اِنْ -اُنْ

প্রশ্ন:- তানভীন কাকে বলে?

উত্তর দুই যবর, দুই যের,  দুই পেশকে তানভীন বলে।

যথা:- بً – بٍ – بٌ

প্রশ্ন:- নুন সাকিন ও তানভীন কয় নিয়মে পড়িতে হয়?

উত্তর:- নুন সাকিন ও তানভীন চার নিয়মে পড়িতে হয়। যেমন:- (১) ইযহার (২) ইক্বলাব (৩) ইদগাম (৪) ইখফা।

প্রশ্ন:- ইযহার অর্থ কি? ইহার হরফ কয়টি ও কি কি?

উত্তর:- ইযহার অর্থ স্পষ্ট করিয়া পড়া। ইযহারের হরফ ৬টি। যথা-: ء – ه – ع – ح – غ – خ

প্রশ্ন:- ইযহার কখন করিতে হয়?

উত্তর:- নুন সাকিন বা তানভীনের পর ইযহারের ৬টি হরফ হইতে কোন একটি হরফ আসিলে, উক্ত নুন সাকিন বা তানভীনকে গুন্নাহ ছাড়া স্পষ্ট করিয়া পড়া।

যথা:- اَنْعمت – عليمٌ خببر ‫اَجْرٌ غَيْرٌ‬ = وَ انْحَرْ = ‫مِنْ عَمَلٍ‬ = مِنْهُمْ = ‫كُفُوًا اَحَدٌ‬ ‫

প্রশ্ন:- ইক্বলাব অর্থ কি? ইহার হরফ কয়টি ও কি কি?

উত্তর:- ইক্বলাব অর্থ পরিবর্তন করিয়া পড়া। ইক্বলাবের হরফ একটি যথা:- ب

প্রশ্ন:- ইক্বলাব কখন করিতে হয়?

উত্তর:- নুন সাকিন বা তানভীনের পরে ب হরফ টি আসিলে উক্ত নুন সাকিন বা তানভীনকে ছোট মীম দ্বারা পরিবর্তন করে গুন্নাহ ও ইখফার সাথে পড়িতে হয়।

যথা:- من بعد – سميع بصير ‫مِنْ بَعْدِ‬=مِنۢ بَعْدِ= قَوْمًۢا بَعْدِ – خَبِيرٌۢ بِمَا – حَدِيثٍۭ بَعْدَهُ للَّهُٱنۢبِعَا-‫اَنْبِيَاءُ – اَلِيْمٌ بِمَا‬ – ٱنۢبِعَا

প্রশ্ন:- ইদগাম অর্থ কি? ইহার হরফ কয়টি ও কি কি?

উত্তর:- ইদগাম অর্থ মিলাইয়া পড়া। ইদগামের হরফ ৬টি। যথা:- ي – ر – م – ل – و – ن

প্রশ্ন:- ইদগাম কখন করিতে হয়?

উত্তর:- নুন সাকিন বা তানভীনের পরে ইদগামের ৬টি হরফ হইতে কোন একটি হরফ আসিলে উক্ত নুন সাকিন বা তানভীনকে মিলাইয়া পড়িতে হয়।

যথা:- منْ يفعل – منْ ربك

প্রশ্ন:- ইদগাম কত প্রকার ও কি কি?

উত্তর:- ইদগাম দুই প্রকার- (১) ইদগামে বা-গুন্নাহ (২) ইদগামে বে-গুন্নাহ।

প্রশ্ন:- ইদগামে বা-গুন্নাহ অর্থ কি? ইহার হরফ কয়টি ও কি কি?

ইদগামে বা- গুন্নাহ অর্থ গুন্নার সহিত মিলাইয়া পড়া। ইদাগামে বা- গুন্নার হরফ ৪টি। যথা:- ي – و – م – ن

প্রশ্ন:- ইদগামে বা-গুন্নাহ কখন করিতে হয়?

নুন সাকিন বা তানভীনের পরে ইদগামে বা-গুন্নার ৪টি হরফ হইতে কোন একটি হরফ আসিলে উক্ত নুন সাকিন বা তানভীনকে গুন্নার সহিত মিলাইয়া পড়িতে হয়।

যথা:- منْ يفعل – قومٌ مسرفون ‫مَنْ يَّشَۤاءُ‬ – [ ي ] ‫نَفْسٍ وَّمَا‬- [ و ]‫ ‬ ‫رَسُوْلٌ ‬مِّنْ -[ م ] مِنْ نِّسَۤاءِ – [ن]‫

প্রশ্ন:- ইদগামে বে-গুন্নাহ অর্থ কি? ইহার হরফ কয়টি ও কি কি?

উত্তর:- ইদগামে বে-গুন্নাহ অর্থ গুন্নাহ ছাড়া মিলাইয়া পড়া। ইদগামে বে-গুন্নার হরফ ২টি। যথা:- ر – ل

প্রশ্ন:- ইদগামে বে-গুন্নাহ কখন করিতে হয়?

উত্তর:- নুন সাকিন বা তানভীনের পরে ইদগামে বে-গুন্নার ২টি হরফ হইতে কোন একটি হরফ আসিলে উক্ত নুন সাকিন বা তানভীনকে গুন্নাহ ছাড়া মিলাইয়া পড়িতে হয়।

যথা:- رزقاًلكم – منْ ربك غَفُورٌ رَّحِيمٌ – مِّنْ رَّبٍّ رَّحِيمٍ

প্রশ্ন:- ইখফা অর্থ কি? ইহার হরফ কয়টি ও কি কি?

উত্তর:- ইখফা অর্থ নাকের বাশিতে আওয়াজকে লুকাইয়া পড়া। ইখফার হরফ ১৫ টি।

যথা:-ت – ث – ج – د – ذ – ز – س – ش – ص – ض – ط – ظ – ف – ق – ك

প্রশ্ন:- ইখফা কখন করিতে হয়?

উত্তর:- নুন সাকিন বা তানভীনের পরে ইখফার ১৫টি হরফ হইতে কোন একটি হরফ আসিলে, উক্ত নুন সাকিন বা তানভীনকে গুন্নার সহিত নাকের বাশিতে লুকাইয়া পড়িতে হয়।

যথা:- لنْ تفعلو – خيرً كثير
‎ ‫مِنْ قَبْلِكَ‬ ‫O‬ ‫مِنْ شَرِّO‬ ‫ اَنْتُمْ O‬ ‫لِتُنْذِرَ O‬ ‫اُنْزِلَ‬ ‫O‬ ‫ كُنْتُمْ‬ ‫ O‬ ‫اَنْتُمْ ضلٰلٍ كَبِيْرٍ O‬ ‫شَىْءٍ قَدِيْرٌ O‬ ‫سَمٰوَاتٍ طِبَاقًا O‬ ‫نَارًا ذَاتَ O‬ إِطْعَامٌ فِي ‫O‬

কিছু আয়াতের মধ্যে ইখফার উদাহরণ লক্ষ্য করিঃ — ‎يَوْمًا لَّا تَجْزِي نَفْسٌ عَن نَّفْسٍ شَيْئًا‎لِمَن شَاءَ مِنْكُمْ أَن يَسْتَقِيمَ‎أَوْ إِطْعَامٌ فِي يَوْمٍ ذِي مَسْغَبَةٍ‎وَاسْأَلْ مَنْ أَرْسَلْنَا مِنْ قَبْلِكَ ‎الَّذِي أَطْعَمَهُم مِّنْ جُوعٍ [সূরা কুরাইশ] ‎وَلَا أَنْتُمْ عَابِدُونَ مَا أَعْبُدُ [সূরা কাফিরুন]

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন!

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে  জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

 

 

রা অক্ষর পুর (মোটা ) বারিক ( পাতলা ) পড়ার নিয়ম।

প্রশ্ন:- রা অক্ষরটি পড়িবার নিয়ম কয়টি ও কি কি?

উত্তর:- রা অক্ষর পড়িবার নিয়ম ২টি। (১) পুর (২) বারিক।

প্রশ্ন:- রা কোন সময় পুর করিয়া পড়িতে হয়?

উত্তর:- রা, ৭ অবস্থায় পুর করিয়া পড়িতে হয়।

(১) রা, এর উপর যবর হইলে পুর করিয়া পড়িতে হয়। যথা:- – رَفع

(২) রা, এর উপর পেশ হইলে পুর করিয়া পড়িতে হয়। যথা:- رُقود

(৩) রা, সাকিন তার আগের হরফে যবর হইলে পুর করিয়া পড়িতে হয়। যথা:- مَرْيم

(৪) রা, সাকিন তার আগের হরফে পেশ হইলে পুর করিয়া পড়িতে হয়। যথা:- اُرْكسو

(৫) রা, সাকিন তার আগের হরফে অস্থায়ী যের হইলে পুর করিয়া পড়িতে হয়। যথা:- من ارْتضي – اِنِ ارْتبتم

(৬) রা, সাকিন তার আগের হরফে যের হইলে এবং পরে ইস্তে,আলার ৭টি হরফ হইতে কোন একটি হরফ একই শব্দে আসিলে পুর করিয়া পড়িতে হয়।

যথা:- قِرْطاس – مِرْصاد

ইস্তে,আলার হরফ ৭টি এই:- خص ضغط قظ

(৭) রা, ওয়াক্বফ অবস্থায় সাকিন তার আগের অক্ষরে যবর বা পেশ হইলে পুর করিয়া পড়িতে হয় এবং রা, ওয়াক্বফ অবস্থায় সাকিন ও তার আগের অক্ষরও সাকিন,

এর আগের অক্ষরে যবর বা পেশ হইলে পুর করিয়া পড়িতে হয়। যথা:- ★انهَرُ★نُفُرُ★ قَدْرِ★صُدُوْرِ

প্রশ্ন:- রা, কোন সময় বারিক করিয়া পড়িতে হয়?

উত্তর:- ৫ অবস্থায় রা, বারিক করিয়া পড়িতে হয়।

(১) রা, এর নীচে যের হইলে বারিক করিয়া পড়িতে হয়। যথা:- رِجال

(২) রা, সাকিন তার আগের হরফে যের হইলে বারিক করিয়া পড়িতে হয়। যথা:-مِرْية

(৩) রা, ওয়াক্বফ অবস্থায় সাকিন এবং তার আগের অক্ষরে যের হইলে বারিক করিয়া পড়িতে হয়। যথা:- مدكر

(৪) রা, ওয়াক্বফ অবস্থায় সাকিন, এর আগের অক্ষর সাকিন এবং তার আগের অক্ষরে যের হইলে রা, বারিক করিয়া পড়িতে হয়। যথা:- ذِي الذِّكْرِ

(৫) রা, ওয়াক্বফ অবস্থায় সাকিন তার আগের অক্ষর ইয়া সাকিন হইলে বারিক করিয়া পড়িতে হয়। যথা:- خبيْرً – سيْرُ

 

আলিফ জা’ইদাহ্ এবং আনাবা, আনাবু, আনামিলা আনাসিয়া’র নিয়মঃ

 

আলিফ জা’ইদাহ্ঃ আরবী বর্ণে কোনটার উপর গোল চিহ্ন থাকলে, এবং তার বাম পাশে ছোট কিম্বা গোল হামজাহ থাকলে তাহা টেনে পড়া যাবে না।
বি: দ্র: أَنَا [চারটি শব্দ টানতে হবে …যথা:

১। আনাবা (‘না’ এক আলিফ টানতে হবে)

২। আনাবু

৩। আনামিলা

৪। আনাসিই’য়া ।

বি: দ্র: এই চারটি শব্দে ‘না’ এক আলিফ টানতে হবে। কারন এগুলা আলিফ জাইদাহ্ এর আলিফ না, আনা শব্দের আলিফ না।]

 

Islami Dawah Center Cover photo

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টারকে সচল রাখতে সাহায্য করুন!

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টার ১টি অলাভজনক দাওয়াহ প্রতিষ্ঠান, এই প্রতিষ্ঠানের ইসলামিক ব্লগটি বর্তমানে ২০,০০০+ মানুষ প্রতিমাসে পড়ে, দিন দিন আরো অনেক বেশি বেড়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

বর্তমানে মাদরাসা এবং ব্লগ প্রজেক্টের বিভিন্ন খাতে (ওয়েবসাইট হোস্টিং, CDN,কনটেন্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং, ব্লগ পোস্টিং, ডিজাইন এবং মার্কেটিং) মাসে গড়ে ৫০,০০০+ টাকা খরচ হয়, যা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সেকারনে, এই বিশাল ধর্মীয় কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে সর্বপ্রথম আল্লাহর কাছে আপনাদের দোয়া এবং আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন, এমন কিছু ভাই ও বোন ( ৩১৩ জন ) দরকার, যারা আইডিসিকে নির্দিষ্ট অংকের সাহায্য করবেন, তাহলে এই পথ চলা অনেক সহজ হয়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

যারা এককালিন, মাসিক অথবা বাৎসরিক সাহায্য করবেন, তারা আইডিসির মুল টিমের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবেন, ইংশাআল্লাহ।

আইডিসির ঠিকানাঃ খঃ ৬৫/৫, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা -১২১২, মোবাইলঃ +88 01609 820 094, +88 01716 988 953 ( নগদ/বিকাশ পার্সোনাল )

ইমেলঃ info@islamidawahcenter.com, info@idcmadrasah.com, ওয়েব: www.islamidawahcenter.com, www.idcmadrasah.com সার্বিক তত্ত্বাবধানেঃ হাঃ মুফতি মাহবুব ওসমানী ( বি এ & এম. এ. ইন ইংলিশ )