আকিদা কী? সহীহ আকিদা কী?

 

প্রশ্ন: আসসালামু আলাইকুম। আজকাল ইসলাম সম্পর্কে কথা বলার সময় কিছু লোকের মুখে প্রায়ই আকিদা এবং সহিহ আকিদা কথাগুলো শুনতে পাই।
আমাদের দাদা চাচারা আলেম ছিলেন, কিন্তু তাদের মুখে এসব শব্দ বা পরিভাষা শুনিনি। বিষয়টি বুঝিয়ে দিলে উপকৃত হবো। K Alam

জবাব: ওয়ালাইকুম সালাম ওয়ারাহমাতুল্লাহ। আপনার প্রশ্নের জবাব হলো:

০১. ঈমানের সাথে জড়িত প্রাসঙ্গিক ধ্যান-ধারনা ও দৃষটিভঙ্গি বুঝানোর জন্যে আকিদা শব্দটি ব্যবহার করা হয়। ‘আকিদা’ মানে- বন্ধনযুক্ত। তাই এর দ্বারা ঈমানের সাথে যুক্ত বিষয়সমুহ বুঝায়।

০২. তবে কুরআন বা হাদিসে এসব বিষয় বুঝানোর জন্যে আকিদা শব্দের ব্যবহার দেখা যায়না।

০৩. আকিদার বহুবচন আকায়িদ। পরবর্তীকালে ঈমানের সাথে যুক্ত প্রাসঙ্গিক বিষয়াদি আলোচনার জন্যে ‘আকায়িদ’ নামে একটি শাস্ত্র উদ্ভাবন করা হয়।

০৪. আকায়িদ শাস্ত্রে যেসব বিষয়ের অবতারণা করা হয়েছে, সেগুলোর মধ্যে অনেক বিষয়ই এমন আছে, যেগুলোর ব্যাপারে আলেমদের মধ্যে মতভেদ আছে।

০৫. মতভেদ অনেক ক্ষেত্রেই সৃষটি হয়েছে কোনো শব্দ বা পরিভাষার বাহ্যিক অর্থ গ্রহণ হবে, নাকি ভাবার্থ গ্রহণ করা হবে তা নিয়ে। যেমন কুরআনে আল্লাহর চেহারা, হাত, আরশ, কুরছি -এসব শব্দ আছে। মতভেদ হয়েছে এগুলো কি বাহ্যিক অর্থে ব্যবহার হয়েছে নাকি ভাবার্থে- তা নিয়ে। যেমন কেউ মনে করেন অলিদের কেরামত সত্য বিষয়, আবার কেউ তা মনে করেন না ইত্যাদি ইত্যাদি।

০৬. যারা বাহ্যিক অর্থ গ্রহণ করেন, তারা নিজেদের দৃষটিভঙ্গিকে ‘সহীহ আকিদা’ বলে দাবি করেন।

০৭. আমাদের মতে ঈমানের প্রাসঙ্গিক বিষয়াদিও ঈমানেরই অংশ, এর জন্যে ‘আকিদা’ বা ‘সহীহ আকিদা’ ইত্যাদি শব্দ ব্যবহার করার প্রয়োজন নেই।

সহিহ আকিদা

সহীহ আকীদার ক্ষেত্রে যে সব বিষয়ে মানুষের ভুল ধারণা, সেগুলো কুরআন ও হাদিস দ্বারা পেশ করা হলঃ

  1. অনেকে আকীদা পোষণ করে যে আল্লাহ সুবহানুতায়ালা সব জায়গায় বিরাজমান, আসলে কোথায়?

মূলক-16, 17, হাদীদ-8, সূরা ফাত্বির ১০, সূরা মাআরিজ ৩-৪, সূরা আ’লা ১, সূরা ত্বা-হা ৫, সূরা আল আরাফ ৫৪, সূরা ইউনুস ৩, সূরা আর-রাদ ২, সূরা আল ফুরকান ৫৯, সূরা আস সাজদা ৪। [মুসলিম, অধ্যায়ঃ কিতাবুল মাসাজিদ] [-মুসলিম, অধ্যায়ঃ কিতাবুন নিকাহ]

  1. আল্লাহকে কেহ দুনিয়াতে দেখতে পাবে না।
    সূরা শুরা-51 আন-আম-103।
  2. আল্লাহ নিরাকার নয়,আল্লাহর আকার আছে।
    ইমাম আবূ হানিফার, ফিকহুল আকবার পৃঃ ৫৪৮-৫৯,ইবনু আবিল ইজ্জ্ব, মুআসসাতুর রিসালাহ-বাইরুত/২৬৪ পৃঃ
    ক. আল্লাহ হাত-সূরা ছোয়াদ-75, মায়েদা-64, যুমার-67, মূলক-01, হাদীদ-29।

খ. আল্লাহর চোখ-সূরা হুদ-37, ত্বহা-39, তুর-48, আন-আম-103, শুরা-11।

গ. আল্লাহর চেহারা- আর রহমান 27, বাকারা-115, কাসাস-88।

ঘ. আল্লাহর পা-সূরা কালাম-42 (বুখারী শরীফ)

  1. আল্লাহর মত/সমতুল্য কেহ নাই।
    সূরা শুরা-11, ইখলাস-4।
  2. আল্লাহ ছাড়া অন্য কেহ গায়েব জানে না।
    সূরা নামল-65, আন-আম-59, আরাফ-187, 188, সাবা-14, আহযাব-63, ইউনুস-20।
  3. আল্লাহকে ডাকতে অন্য কোন মাধ্যম লাগে না।
    সূরা ফাতেহা-4, ইউনুস-106, বাকারা-186, আরাফ-180, আনকাবুত-17, মুমিন-60, সাফফাত-75।
  4. সকল বিষয়ে ক্ষমতা একমাত্র আল্লাহর।
    সূরা বাকারা-109, হুদ-123, ইমরান-26, 165, মায়দাহ-17, 40।
  5. একমাত্র ভরসার মালিক আল্লাহ।
    সূরা ইব্রাহীম-11, আল-ইমরান-160, তালাক-3, মায়দাহ-
  6. আল্লাহই গরীবে নেওয়াজ বা গরীবের সাহায্যকারী, গাউসুল আজম বা বিপদে বড় উদ্ধার কর্তা।
    সূরা মুহাম্মদ-38, আম্বিয়া-88, ফাতিহা-4, ইব্রাহীম-6, দোহা-8, বনী ইসরাইল-67।
  7. সিজদার একমাত্র মালিক আল্লাহ।
    সূরা হামিম-37, ফাতেহা-4।
  8. পীর বা সূফী অর্থ আল্লাহর কাছে পৌছানোর মাধ্যম, কাশফ অর্থ গায়েব জানা, ফানাফিল্লা অর্থ আল্লাহর সাথে মিশে যাওয়া ইত্যাদী আকীদা কুরআন ও হাদীসের বিপরীত।
    সূরা যুমার-3, ইউনুস-40, 106, আনকাবুত-41, নামল-65, শুরা-11, নাজম-23, কাফ-5, আশ-শুরা-213, আহকাফ-5-6।
  9. তওবা করলে আল্লাহ সমস্ত গুনাহ মাফ করবেন, শিরক্ ছাড়া। (মাধ্যম ছাড়াই)
    সূরা যুমার-53, নিসা-110, বাকারা-160, তাওবা-99, ফুরকান-70-71।
  10. সুপারিশের মালিক একমাত্র আল্লাহ (পীর, বূযূগ নহে)
    সূরা বাকারা-255, মরিয়ম-93-95, আস-সেজদাহ-4, নাবা-38, ইউনুস-03।
  11. পীর, অলী, আউলিয়া বা আলেমকে চুড়ান্ত দলীল মানা রব মানার সমান।
    সূরা তওবা-31, আরাফ-3।
  12. বিচার ফায়সালা বা সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য আল্লাহ এবং রাসূল (সঃ) চুড়ান্ত।
    সূরা মায়েদা-44, 45, 47, নিসা-59, হাশর-7, নূর-51, 54।
  13. ইসলাম ছাড়া অন্য কোন ধর্ম গ্রহন করা হবে না।
    সূরা আল-ইমরান-19, 85।
  14. নবী মোহাম্মাদ (সঃ) নূরের নয়, মাটির তৈরী। (সহীহুল বুখারী-6967)
    সূরা হামিম-6, কাহাফ-110, ইমরান-164, তাওবা-128, মারেফুল কোরআন-পৃঃ-80, বনী ইসরাইল-93, 95। (মুসলিম, যুহদ ও রাক্বায়িক্ব অধ্যায়,হা/৫৩৪)
  15. নবী মোহাম্মাদ (সঃ) গায়েব জানে না এবং ফেরেশতারা নহেন, আল্লাহ যা জানান তা জানেন।
    সূরা আন-আম-50, 59, আরাফ-55, 187, 188, মুলক-26, সাবা-14, তাওবা-78, 94, 105, আহযাব-63। সূরা লুক্বমান-৩৪, ইউনুছ, ১০: ২০, হুদ, ১১: ৪৯, নামল, ২৭: ৬৫, নাহল ১৬: ৭৭
    (ফতহুল বারী, সপ্তম খন্ড, পৃ.৪৯৭, ইবনে হিশাম, ২য় খন্ড, পৃ. ৩৩৭)
  16. নবী মোহাম্মাদ (সঃ)ইন্তেকাল করেছেন (নবী হায়াতুর নবী বা হাজির-নাযির নহেন)
    সূরা যুমার-30, আল-ইমরান-144, আম্বিয়া-34, 35, ইমরান-44, ‍ইউসুফ-102।
  17. নবী মোহাম্মাদ (সঃ) কে অনুসরণ করা ফরয।
    সূরা আল-ইমরান-32, 132, সূরা তওবা-29, সূরা মুহাম্মদ-33, সূরা আনফাল-1, সূরা হাশর-7, সূরা নিসা-14, 80, সূরা আহযাব-36,71, সূরা জীন-23,
  18. নবী মোহাম্মাদ (সঃ)এর সম্মানে দাড়ানো নিষেধ।
    সুনানে তিরমিযী-2745, 2755, আবু দাউদ-5231, বায়হাকী-245, আহমাদ, মিশকাত।
  19. দুরুদের নামে মিলাদ পড়ে নবী মোহাম্মাদ (সঃ) কে নিয়ে বাড়াবাড়ী করা নিষেধ।
    সূরা নিসা-171, সহীহ্ বুখারী, আবূ দাউদ।
  20. সাহাবীদের সমালোচনা করা নিষেধ।
    সূরা বাইয়্যেনাহ-8, সহীহ্ বুখারী, মুসলিম, তিরমিযী।
  21. শবে মেরাজ স্ব-শরীরে হয়েছিল।
    সূরা বনী ইসরাইল-1, সহীহ্ বুখারী।
  22. ইসলাম পরিপূণ, এতে নতুন কিছু সংযোজন করার নাই।
    সূরা মায়েদা-3।
  23. কোন ফেরকার পরিচয় নয়, আমার পরিচয় আমি মুসলিম।
    সূরা হামিম সাজদাহ-33, আল-ইমরান-102,103, হজ্জ-78, বাকারা-132।

«««তাই আপনাদের বলছি যাদের আকীদায় এখনো গলদ রয়েছে , এখনো সময় আছে তওবা করেন এবং ঐ কুরাআন ও সহীহ হাদিসের উল্টা বর্ণনা বাদ দিয়ে বিভিন্ন ফিতনা প্রচার বাদ দিয়ে শুধু মাত্র আল্লাহর ও রাসূল (সাঃ) এর দেখানো পথে ফিরে আসুন»»»

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন!

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে  জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।

 

Islami Dawah Center Cover photo

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টারকে সচল রাখতে সাহায্য করুন!

 

ইসলামী দাওয়াহ সেন্টার ১টি অলাভজনক দাওয়াহ প্রতিষ্ঠান, এই প্রতিষ্ঠানের ইসলামিক ব্লগটি বর্তমানে ২০,০০০+ মানুষ প্রতিমাসে পড়ে, দিন দিন আরো অনেক বেশি বেড়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

বর্তমানে মাদরাসা এবং ব্লগ প্রজেক্টের বিভিন্ন খাতে (ওয়েবসাইট হোস্টিং, CDN,কনটেন্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং, ব্লগ পোস্টিং, ডিজাইন এবং মার্কেটিং) মাসে গড়ে ৫০,০০০+ টাকা খরচ হয়, যা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সেকারনে, এই বিশাল ধর্মীয় কাজকে সামনে এগিয়ে নিতে সর্বপ্রথম আল্লাহর কাছে আপনাদের দোয়া এবং আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন, এমন কিছু ভাই ও বোন ( ৩১৩ জন ) দরকার, যারা আইডিসিকে নির্দিষ্ট অংকের সাহায্য করবেন, তাহলে এই পথ চলা অনেক সহজ হয়ে যাবে, ইংশাআল্লাহ।

যারা এককালিন, মাসিক অথবা বাৎসরিক সাহায্য করবেন, তারা আইডিসির মুল টিমের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবেন, ইংশাআল্লাহ।

আইডিসির ঠিকানাঃ খঃ ৬৫/৫, শাহজাদপুর, গুলশান, ঢাকা -১২১২, মোবাইলঃ +88 01609 820 094, +88 01716 988 953 ( নগদ/বিকাশ পার্সোনাল )

ইমেলঃ info@islamidawahcenter.com, info@idcmadrasah.com, ওয়েব: www.islamidawahcenter.com, www.idcmadrasah.com সার্বিক তত্ত্বাবধানেঃ হাঃ মুফতি মাহবুব ওসমানী ( এম. এ. ইন ইংলিশ, ফার্স্ট ক্লাস )